নীড় পাতা / পাহাড়ের সংবাদ / রাঙামাটি / ৮ তলা ২৫০ শয্যার নতুন হাসপাতাল হচ্ছে রাঙামাটিতে
parbatyachattagram

বাজেট অধিবেশনে জানালেন বৃষ কেতু

৮ তলা ২৫০ শয্যার নতুন হাসপাতাল হচ্ছে রাঙামাটিতে

মানসম্মত স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পরিষদ কর্তৃক বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য রিংওয়েল/ডিপ টিউবওয়েল স্থাপন, পাইপ লাইন স্থাপন, স্বাস্থ্য সম্মত লেট্রিন নির্মাণ, স্বাস্থ্য কেন্দ্র মেরামত/ রক্ষণাবেক্ষণ, চিকিৎসা শিবির পরিচালনা, হাসপাতাল প্রাঙ্গণ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা, এম্বুলেন্স সেবা, হাসপাতালের জেনারেটর/ আইডিএস সরবরাহ ইত্যাদিতে ২০১৯-২০ অর্থ বছরে রাঙামাটি জেলা পরিষদে বাজেটে ৪ কোটি ৭২ লক্ষ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে নিজস্ব অর্থায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লক্ষ টাকা। গত অর্থবছরে স্বাস্থ্য খাতে ব্যয় করেছে প্রতিষ্ঠানটি ৩ কোটি ২৭ লক্ষ টাকা।

বুধবার বিকেলে রাঙামাটি জেলা পরিষদের ২০১৯-২০ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষনা করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক হোসেন, এতে পরিষদের সদস্য ও কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ রাঙামাটির বিভিন্ন গনমাধ্যমের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্য খাত নিয়ে কথা বলতে গিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, ২৫০ বেডের ৮ তলা বিশিষ্ট নতুন একটি হাসপাতাল নির্মাণ কাজ এবছর শুরু হবে। টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। এবছরের মধ্যে কাজ শুরু হলে দ্রুতই কাজ শেষ করার জন্য বলবো, যাতে এখানকার সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত না হয়। রাঙামাটিতে যেসব ডাক্তার আসেন তারা বিভিন্ন কায়দা করে বদলী হয়ে যান। সেই কারণে উপজেলাগুলো ও রাঙামাটির একমাত্র জেনারেল হাসপাতটিতেও ডাক্তার সংকট রয়েছে। এক সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘মেডিকেল কলেজে যেসব ডাক্তার ক্লাশ করতে আসেন তারা ক্লাশ শেষ করেই চলে যান। তারা বসতে পারেন না, সেটা পুরো মিথ্যা কথা। তারাও একটু সময় দিলে এখানকার বসবাসকারীরা আরো ভালো চিকিৎসা সেবা পেত। হাসপাতাল এলাকা দিন দিন দখল হয়ে যাচ্ছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি যখন পরিষদের সদস্য ছিলাম তখন থেকে জেলা প্রশাসনকে বলে আসছি এবং চেয়ারম্যান হওয়ার পরও বিষয়টি নিয়ে কয়েকবার বলেছি। উচ্ছেদ বা দখল মুক্ত করার জন্য প্রশাসনের তারা যদি সহযোগীতা না করে তাহলে আমাদের পক্ষে তো সম্ভব না। রোগীদের জায়গা সংকট হচ্ছে না, এবিষয়ে জানাতে চাইলে তিনি জানান, হাসপাতালের একটি অংশ ফাটল দরায় বুয়েট থেকে লোক এনে পরীক্ষা করতে দেড় বছর সময় লেগেছে। হাসপাতালটিতে কেবিনের সংখ্যা খুব কম তাই উপরে তৃতীয় তলায় কেবিন করা হচ্ছে যা আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে শেষ হবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

অস্ত্রের মুখে রুমায় ৬ গ্রামবাসীকে অপহরণ 

বান্দরবানের রুমায় অস্ত্রের মুখে ৬ গ্রামবাসীকে অপহরণ করেছে সন্ত্রাসীরা।  রোববার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে পুলিশ …

Leave a Reply