বান্দরবান

৫৩০ টাকার জন্য খুন !

পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে বান্দরবানের লামা উপজেলায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হুমায়ুন কবির (৩০) ঘটনার দুইদিন পর মারা গেছেন। মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুই দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে তিনি মারা যান। হুমায়ুন কবির উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছা হিমছড়ি পাড়ার বাসিন্দা মৃত মোস্তফা কামালের ছেলে। মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘাতক সালাহ উদ্দিনসহ অন্যরা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সম্প্রতি ইয়াংছা কাঁঠালছড়া পাড়ার বাসিন্দা ফজলু মিয়ার ছেলে সালাহ উদ্দিনের কাছে কিছু মাছের পোনা বিক্রি করেন হুমায়ুন কবির। পরে পরিশোধ করবেন, এমন শর্তে পোনা বাবদ ৫৩০ টাকা বাকী রাখেন ক্রেতা সালাহ উদ্দিন। গত ২৮ জুলাই রাত ৮টার দিকে ইয়াংছা বাজারে বাকী টাকা চাইলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সালাহ উদ্দিনসহ আরো একজন সংঘবদ্ধ হয়ে হুমায়ুন কবিরের ওপর হামলা করেন। এতে হুমায়ুন কবির গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহতকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনেরা। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার সকাল ৬টার দিকে হুমায়ুন কবির মারা যান।

ইয়াংছা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবদুল হামিদ বলেন, মাত্র ৫৩০ টাকার জন্য হুমায়ুন কবিরের ওপর হামলা করেন প্রতিপক্ষ সালাহ উদ্দিন গং। এতে গুরুতর আহত হলে হুমায়ুন কবিরকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার সকালে হুমায়ুন কবির মারা যায় বলে শুনেছি।

প্রতিপক্ষের হামলায় হুমায়ুন কবিরের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. শহীদুজ্জামান বলেন, হুমায়ুন কবিরের মৃত্যুর খবর পেয়ে প্রতিপক্ষ সালাহ উদ্দিনসহ অন্যরা এলাকা থেকে পালিয়েছে।

এ বিষয়ে লামা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, ‘হুমায়ুন কবিরকে হত্যার বিষয়ে বিস্তারিত জানি না। খবর নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button