ব্রেকিং নিউজ
নীড় পাতা / ব্রেকিং / ২৩ দিনের সফরে ভারতে সন্তু লারমা !
parbatyachattagram

মাতৃ-পিতৃ তর্পণ ও ধর্মীয় আচারাধি সম্পন্ন করতে

২৩ দিনের সফরে ভারতে সন্তু লারমা !

গত ১৮ মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পার্বত্য জেলা রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে নির্বাচনী কাজে নিয়োজিত ৮ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করার পর আইনশৃংখলা বাহিনীর ব্যাপক অভিযানে কিছুটা হলেও বদলে যাওয়া পার্বত্য চট্টগ্রামে এই মুহুর্তে  ‘নেই’ পাহাড়ের সবচে পরিচিত ও প্রভাবশালী নেতা হিসেবে পরিচিত জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা সন্তু।

এই হত্যাকান্ডের পর এই ইস্যুতে একেবারেই নির্বাক থাকা,সাবেক গেরিলা সংগঠন শান্তিবাহিনীর শীর্ষ এই নেতা ও বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের গত ২০ বছর ধরেই নির্বাচন ছাড়াই চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করা সন্তু লারমা’র সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি। এই সংগঠনকেই দায়ি করা হচ্ছে বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ডের জন্য। বিবৃতি দিয়ে জড়িত থাকার দায় অস্বীকার করলেও নানাভাবে সংগঠনটির নাম আসছেই। এমনকি এই ঘটনার পর গঠিত সরকারি তদন্ত কমিটিও দুষছে এদেরকেই।

বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ডের পর পার্বত্য চট্টগ্রামে যৌথবাহিনীর অভিযানে হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহভাজন বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে রাঙামাটি জেলায় জনসংহতি সমিতির শীর্ষ চাঁদা কালেক্টর জ্ঞানশংকর চাকমা, আইনশৃংখলাবাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। আত্মগোপনে চলে গেছেন দলটির বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতা ও সক্রিয় নেতাকর্মীরা।

আইনশৃংখলাবাহিনীর সক্রিয়তা ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। ফলে দিশেহারা সন্ত্রাসীরা কিছুটা সময়ের জন্য হলেও পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে। এমনই অবস্থায় পাহাড়ে বৈসাবি উদযাপন নিয়ে শংকা থাকলেও বেশ সাড়ম্ভরেই পাহাড়ে এই বছর পালিত হয়েছে উৎসব। কিছু শংকা থাকলেও শেষাবধি বেশ উৎসবানন্দেই শেষ হয়েছে পাহাড়ের সবচে বড় সামাজিক উৎসবটি।

কিন্তু এই উৎসবের মুখরতার সময়কালেও পার্বত্য রাঙামাটি কিংবা দেশেই ছিলেন না পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির শীর্ষ নেতা জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা সন্তু। পিতা-মাতার তর্পণ ও ধর্মীয় আচারাদি সম্পন্ন করার জন্য এপ্রিল মাসের চার তারিখ থেকে ২৮ তারিখ পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয় থেকে অনুমোদন নিয়েছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করা এই নেতা। ২৩ দিনের জন্য ভারত সফরে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নেয়া সন্তু লারমা ভারতে সকল ব্যয়ভার নিজেই বহন করবেন এবং এর সাথে বাংলাদেশ সরকারের কোন সংশ্লেষ থাকবেনা বলে মন্ত্রনালয়ের এক চিঠিসূত্রে জানা গেছে।

তবে আশি ও নব্বইয়ের দশকে দীর্ঘদিন ভারতে অবস্থান করে পার্বত্য চট্টগ্রামে সশস্ত্র গেরিলা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া সন্তু লারমার এবারের ভারত সফরকে ‘ব্যক্তিগত ও পারিবারিক কারণ’ বলেই মনে করা হলেও সংশ্লিষ্ট অনেকেই এর নেপথ্যে নানা কারণ নিয়ে আলোচনা পর্যালোচনা করছেন। এনিয়ে আছে নানা ভ্রান্তি ও প্রচারনাও।

প্রসঙ্গত, বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে পরাজিত সন্তু লারমার দলের প্রার্থী ও উপজেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক বড়ঋষি চাকমা ও তার দল জনসংহতি সমিতিকেই বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ডের জন্য দায়ি করে আসছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি(এমএনলারমা) এবং আইনশৃংখলাবাহিনী। সর্বশেষ এই ঘটনার পর গঠিত তদন্তকমিটিও একই মত পোষন করেছে ।

 

Micro Web Technology

আরো দেখুন

‘জঙ্গিপনা যে অশুভ ছায়া ফেলছে তার বিরুদ্ধে মৈত্রী বার্তা ছড়িয়ে দিতে হবে’

মৈত্রীপূর্ণ চিন্তা চেতনা ও ধর্মীয় অনুশাসন মেনে স্ব-স্ব অবস্থান থেকে সম্প্রীতির বন্ধন সুদৃঢ় করার আহবান …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

15 + seventeen =