রাঙামাটিলিড

হ্রদের ধারে বন্যহাতির শাবক জন্ম

ওমর ফারুক মুছা, লংগদু ॥
রাঙামাটির লংগদু উপজেলার ভাসান্যাদম ইউনিয়নের বড়মাঠ এলাকায় লোকালয়ে এসে নতুন শাবকের জন্ম দিয়েছে একটি বন্য হাতি। অতি উৎসাহি লোকজন হাতির শাবকটিকে একনজর দেখতে গিয়ে পারভেজ আলম(২২) নামে এক যুবক মা হাতির আক্রমণের শিকার হয়ে গুরুতর আহত হয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যার পর থেকেই ভাসান্যাদম ইউনিয়নের বড়মাঠ এলাকার চারপাশে হাতির উৎপাত বেড়ে যায়। সারারাত আশপাশের মানুষ জড়ো হয়ে হৈ চৈ করে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করে। রাতব্যাপী উদ্বেগ ও উৎকন্ঠায় কাটিয়েছে এলাকাবাসী। বড়মাঠ এলাকার পল্লি চিকিৎসক আশ্রাফ আলী জানান, রাত বারটার সময় ৪/৫টি বন্যহাতি তাদের বাড়িসহ আশপাশের কয়েকটি বাড়িতে আ্ক্রমণ চালিয়ে বিভিন্ন ফলের গাছপালা সহ ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি করে।

এভাবে রাতের আঁধার কেটে যাওয়ার পরের দিন বৃহষ্পতিবার ভোর হতেই একটি সুখবর পেলো এলাকাবাসী। ভাসাইন্যাদম ইউনিয়নের বড়মাঠ এলাকার রমজান মেম্বারের বাড়ির পাশের টিলায় কাপ্তাই লেকের ধারে একটি বন্যহাতি নতুন শাবকের জন্ম দিয়েছে। সকালে হাতি বাচ্ছা দেওয়ার খবর পেয়ে এলাকার লোকজন কৌতুহলী হয়ে ছুটে যেতে থাকে সদ্য ভুমিষ্ঠ হাতির শাবককে এক নজর দেখার জন্য।

প্রত্যক্ষদর্শী ফারুক হোসেন মাস্টার জানায়, বন্যহাতিটি হ্রদের পানির কিনারে শাবকের জন্ম দেওয়ায় পানি থেকে তার শাবকটিকে রক্ষার জন্য প্রানপণ চেষ্টা করে শেষমেশ সফল হয় মা হাতিটি। কিছুক্ষণ পর একটি দুর্ঘটনাও ঘটে। হাতি শাবক দেখার জন্য অতি উৎসাহি হয়ে এলাকার লোকজন আশপাশে বিরক্ত করতে থাকে। এ সময় ক্ষিপ্ত হয়ে মা হাতিটি হামলা করে পারভেজ আলম(২২) নামে যুবককে ধরে আছাড় মারে। সে বড়মাঠ এলাকার হযরত আলীর ছেলে। পরে আহত অবস্থায় যুবকটিকে লংগদু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

ভাসাইন্যাদম ইউপি চেয়ারম্যান হযরত আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বর্তমানে নতুন শাবক জন্ম দেওয়া মা হাতিটি তার শবকটিকে পানির কিনার থেকে তুলে নিয়েছে। এখন শাবকটি একটু একটু করে হাঁটতে পারছে। এখনও ভাসাইন্যাদম বড়মাঠ এলাকায় নতুন শাবকের জন্ম দেওয়ায় ৪/৫টি বন্যহাতি এখনও অবস্থান করছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button