ব্রেকিংরাঙামাটি

হাজার গানের গীতিকবি ৯৮ বছরের আম্রামাং মারমা

ঝুলন দত্ত, কাপ্তাই
রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার ৫নং ওয়াগ্গা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড কুকিমারা পাড়ার ৯৮ বছর বয়সী আম্রামাং মারমা। যিনি মারমা ভাষার একজন লোকগানের ( মারমা ভাষায়, কাপিয়া) গীতিকার, সুরকার এবং শিল্পী। এছাড়া তিনি মারমা ভাষার গল্পকার (মারমা ভাষায়, ওয়াইথুউ)। মারমা সম্প্রদায়ের প্রাচীন ইতিহাস, ঐতিহ্যকে যিনি কখনো কথা আর সুরের সংমিশনে এবং গল্পে গল্পে তুলে ধরে আসছেন বিগত ৮০ বছরের অধিক সময় ধরে। নিমিষেই তিনি মারমা লোকগীতি রচনা ও সুর করে তা নিজ কন্ঠে গাইতে পারেন। মারমা সংস্কৃতির ধারক-বাহক হিসেবে তিনি তাঁর লেখনীর মাধ্যমে মারমা সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করে আসছেন। হাজার খানেক লোকগীতি তিনি রচনা ও সুর করেছেন। কিন্তু সংরক্ষণের অভাবে বর্তমানে তাঁর রচিত অনেক গান বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

ওয়াগ্গা ইউনিয়নের কুকিমারা পাড়ায় তাঁর সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। আম্রামাং মারমা জানান, ‘সেই কিশোর বয়স হতে মারমা লোকগীতি এবং লোকগল্প লিখে আসছি। অনেক গানের সুর করেছি এবং আমাদের বিভিন্ন উৎসবে এইসব গান পরিবেশন করেছি। এখন বয়স হয়েছে, শরীর অসুস্থ, তাই আর লিখার বা গাইবার শক্তি নেই।’ তিনি, তাঁর গান সংরক্ষণের জন্য পরবর্তী প্রজন্মের নিকট অনুরোধ জানিয়েছেন।

এদিকে স্থানীয় ইউপি সদস্য অংচাপ্রু মারমা জানান, ‘তিনি আমাদের এলাকার প্রবীণ একজন মারমা গানের গীতিকার, সুরকার ও শিল্পী। তাঁর লেখা অজস্র গান মানুষের মুখে মুখে। তিনি ভালো গাইতে পারেন। তবে তাঁর গানগুলো লিখিত আকারে নেই। বর্তমানে গ্রামের অনেক শিল্পী তাঁর গানগুলো সংরক্ষণের চেষ্টা করছেন।’

মারমা সাংস্কৃতিক সংস্থার (মাসস) কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও কাপ্তাই উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির যুগ্ম সম্পাদক মংসুইপ্রু মারমা ও ওয়াগ্গা অংম্রাং শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান অংলাচিং মারমা জানান, ‘আমাদের মারমা সমাজের জন্য তিনি একজন অহংকার। তাঁর গান যদি সংরক্ষণ করা যায়, তাহলে মারমা সংস্কৃতি আর সমৃদ্ধ হবে।’

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button