নীড় পাতা / ব্রেকিং / স্বাস্থ্য সেবায় আরও এগিয়েছে রাঙামাটি
parbatyachattagram

স্বাস্থ্য সেবায় আরও এগিয়েছে রাঙামাটি

রাঙামাটির স্বাস্থ্য সেবা প্রসঙ্গে সিভিল সার্জন ডা. শহীদ তালুকদার বলেছেন, প্রসূতি সেবার ব্যাপারে রাঙামাটি অনেক এগিয়ে গেছে। গত মাসে রাঙামাটিতে ১৩২ ও তার আগের মাসে ১৩৭টি ডেলিভারি হয়েছে হাসপাতালে। চলতি মাসে এ পর্যন্ত ৪৯টি ডেলিভারি হয়েছে। সে হিসেবে বলা যায় মাসে গড়ে ১৩০টি ডেলিভারি হয় হাসপাতালে। এদিকে আমরা সফল। গতকাল সোমবার রাঙামাটি জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে আয়োজিত মাসিক আইন-শৃঙ্খলা সভায় এসব তথ্য জানান।

আমাদের অনেক সেবার বিষয়ে সাধারণ মানুষ জানেন না। যেমন কোনো প্রসূতিকে যদি উপজেলা থেকে রাঙামাটি সদর হাসপাতালে রেফার করার প্রয়োজন হয়, তাহলে ওই প্রসূতিকে আমাদের খরচে অ্যাম্বুলেন্স বা স্পিড বোট ভাড়া দিয়ে নিয়ে আসা হয়, সে টাকার পরিমাণ যতই হোক। শুধু তাই নয় তার সাথে অভিবাভক আসেন তাকে প্রতি দিন খাবার খরচ হিসেবে ১৮০ টাকা করে প্রদান করে থাকি। যা সাধারণ নাগরিকগণ জানেন না।

রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতাল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আগের তুলনায় জেনারেল হাসপাতাল এখন অনেক বেশি কার্যকর। আমাদের সীমাবদ্ধতার পরও সাধারণ মানুষ অনেক ভালো চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন। তবে ডেলিভারি রোগীর ক্ষেত্রে আমরা ২৪ঘন্টা সেবা দিতে পারছি না। কারণ দুপুর দুইটার পর ডাক্তার থাকেন না। তবে আমরা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষকে চিঠি দিয়েছি; আশা করি এ সমস্যার সমাধা হয়ে যাবে। এছাড়া আমরা একটা ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন পেয়েছি। সেটি স্থাপন হয়ে গেছে। শুধু মাত্র এসির জন্য সেটা চালু করা সম্ভব হচ্ছে না, আশা করি এ মাসেই সে সমস্যারও সমাধা হয়ে যাবে।

তিনি আরও বলেন, এখন সদর হাসপাতালে সকল সেবা চালু আছে। কোনো পরীক্ষা করতে রোগীকে আর বাহিরে যেতে হবে না। ফলে রোগীদের ভোগান্তি যেমন কমেছে তেমনি বেড়েছে সরকারে রাজস্ব আয়। গত বছর আমি ২৫ লাখ টাকা রাজস্ব জমা দিয়েছি, যা আগে ছিল মাত্র ১০ লাখ টাকা। এতেই প্রমাণ হয় রাঙামাটি হাসপাতালে চিকিৎসা সেবার মান উন্নত হয়েছে।

রাঙামাটি ডেঙ্গু প্রসঙ্গে ডা. শহীদ বলেন, গত বছরের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানোর কারণে এবার রাঙামাটিতে ডেঙ্গু মহামারি আকার ধারণ করতে পারেনি। স্বাস্থ্য বিভাগ ও পৌরসভা রাঙামাটি জেলা পরিষদ যৌথভাবে কাজ করায় আমরা এবার দেশের ৪র্থ লোয়েস্ট ছিলাম এবং চট্টগ্রাম বিভাগে সবার নিচে ছিলাম। আমি আশা করি আগামীতে রাঙামাটি পৌরসভা ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ পাশে থাকলে আমাদের রাঙামাটি হবে দেশের লোয়েস্ট জেলা।
রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের নতুন মির্মাণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের কাজ আমরা শেষ করেছি। এখন গণপূর্ত বিভাগের বিষয়। তবে তারা ফিল্ডে গিয়েছিলেন, আমাকে জানানো হয়েছে নকশায় কিছু ত্রুটি ধরা পড়েছে, সেগুলো সংশোধন করা হচ্ছে। তবে আমি তাদের সাথে সার্বোক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি। যাতে দ্রুত সময়ে কাজ শুরু করা যায়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

চুরির মামলা করে নিজেই ফেঁসে গেলেন বাদী !

রাঙামাটিতে মিথ্যা চুরির মামলায় বাদীর কারাদ- দিয়েছেন আদালত। জেলার কাউখালী থানার আর্দশগ্রাম নিবাসী আবুল কাসেমের …

Leave a Reply