রাঙামাটিলিড

সৌর বিদ্যুতে সেচের আওতায় জুরাছড়ির প্রান্তিক কৃষক

প্রান্ত রনি,জুরাছড়ি থেকে ফিরে
রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম জলবায়ু সহনশীল প্রকল্প’র (সিসিআরপি) অধীন সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে কৃষি জমিতে সেচ প্রকল্প পরিদর্শন করা হয়েছে। সোমবার সকালে জুরাছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুরেশ কান্তি চাকমা প্রকল্প পরিদর্শন করেছেন। এসময় তাঁর সঙ্গে ১নং জুরাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যানন চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম জলবায়ু সহনশীল প্রকল্পের রাঙামাটি জেলা কর্মকর্তা পলাশ খীসা, টেকনিক্যাল কর্মকর্তা সুশীল চাকমা, ইউপি সদস্য ও স্থানীয় কারবারি কিরণ কুমার চাকমা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুরেশ চাকমা প্রকল্প পরিদর্শনের পাশাপাশি স্থানীয় কৃষকের সঙ্গে কথা বলেন। চেয়ারম্যান সুরেশ চাকমা বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রান্তিক এলাকাগুলোতে সেচ ব্যবস্থার অভাবে অনেক জমি অনাবাদী থাকে। এতে করে কৃষকরাও সদিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও চাষাবাদ করতে পারেন না। এই প্রকল্পের অধীনে চারটি সৌর সেচ পাম্পের মাধ্যমে কৃষকরা কৃষি জমিতে সেচ ব্যবস্থা করতে পারছেন। আমি মনে করি, এটির দেখাদেখি রাঙামাটির অন্যান্য উপজেলাতেও এ ধরণের প্রকল্পের উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ, তাই এ ধরণের উদ্যোগ কৃষকের জন্য খুব প্রয়োজন।

পরিদর্শন শেষে জুরাছড়ি ইউনিয়নের সাপছড়ি পাড়ার মতবিনিময় সভাও অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অতিথি, প্রকল্প সংশ্লিষ্টগণ ও গ্রামবাসীরা গ্রামীণ কৃষি কাজ প্রসঙ্গে নানা আলোচনা করেন। সভায় তাদের বক্তব্যে গ্রামীণ কৃষকের চাষাবাদে বিভিন্ন ধরণের প্রতিকূলতার কথা ওঠে আসে। এসময় কৃষকরা বিভিন্ন ধরণের আধুনিক কৃষি যন্ত্রের প্রয়োজনের কথা জানান এবং আধুনিক কৃষি ক্ষেত্রে নিজেদের দুর্বলতার কথাগুলো তুলে ধরেন।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন- জুরাছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুরেশ চাকমা, ১নং জুরাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যানন চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম জলবায়ু সহনশীল প্রকল্পের রাঙামাটি জেলা কর্মকর্তা পলাশ খীসা, টেকনিক্যাল অফিসার সুশীল চাকমা, স্থানীয় কারবারি ও ইউপি সদস্য কিরণ কুমার চাকমা, শিক্ষক কনক চাকমা, মিতালি চাকমা, মিঠুন চাকমা, বড় কুমার চাকমা প্রমুখ। এসময় উপসহকারী কৃষি আশীষ চাকমাসহ গ্রামের কৃষকরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ডেনমার্কভিত্তিক সহায়তা প্রতিষ্ঠান ডেনিশ ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এজেন্সিসের (ডানিডা) অর্থায়নে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ ও ইউএনডিপি যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম জলবায়ু সহনশীল প্রকল্পের অধীন সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে কৃষি জমিতে সেচ ব্যবস্থা ছাড়াও পাহাড়ে পানীয় জলের সংকট নিরসনসহ নানামুখী কাজ করা হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button