ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

সেতুর অভাবে হাজারো মানুষের দুর্ভোগ

কাপ্তাই প্রতিনিধি
রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার ২নম্বর রাইখালী ইউনিয়নের নারানগিরি খালের ওপর একটি সেতুর অভাবে বছরের পর বছর ধরে হাজারো মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বাঁশের সাঁকোর ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে অসংখ্য কোমলমতি স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ এর আশেপাশে বসবাসরত হাজারো এলাকাবাসী। বিশেষ করে গর্ববতি মা-বোন এবং মুমূর্ষ রোগীরা এই ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে যাতায়াত করতে প্রায় দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছেন অভিযোগ স্থানীয়দের।

ওই এলাকার বাসিন্দা মো. রাশেদ, পলু মারমা, নান্টু দাশ, লোকমান, মানিকসহ অনেকেই জানান, বর্ষাকালে উজান হতে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ইতিমধ্যে আট থেকে দশ বার সাঁকোটি ভেঙে কর্ণফুলী নদীতে তলিয়ে যায়। বিশেষ করে নারানগিরিমুখ ১নং পাড়ার প্রায় ৮শত মানুষ এই সাকোঁটি ব্যবহার করে নারানগিরি স্কুল, রাইখালী বাজার, ইউনিয়ন পরিষদ এবং উপজেলা সদরে আসেন। এছাড়া জগনাছড়ি, মৈদং পাড়া, ক্যাজাইয়া পাড়া, ডলুছড়ি পাড়ার লোকজনরাও নিত্যনৈমিত্তিক কাজে এই সাঁকো ব্যবহার করে নারানগিরি বৌদ্ধবিহার, নারানগিরি স্কুল এবং রাইখালী বাজারে আসেন। দুবছর আগে বর্তমান পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি নারানগিরি বৌদ্ধ বিহার উদ্বোধনে এসে এই খাল পরিদর্শন করে এখানে সেতু নির্মাণের গুরুত্বারোপ করেছেন। কিন্তু এখনোও তাদের আশা আকাক্সক্ষার প্রতিফলন ঘটেনি।’

রাইখালী ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এনামুল হক জানান, নারানগিরি খালের ওপর এই ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন শতশত স্কুল পড়ুয়া ছেলে মেয়েসহ গ্রামবাসীরা তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বাজারে বেচা-বিক্রি করেন। বর্ষায় সাঁকোটি অনেকবার ভেঙে পড়ায় আমি অনেকবার এই সাঁকোটি তৈরি করে দিয়েছি। তবে এই খালের ওপর সেতু হলে এখানকার বসবাসরত জনগণের আত্ম-সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে। শীঘ্রই এই খালের ওপর এলজিইডি একটি সেতু নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

এ ব্যাপারে এলজিইডি কাপ্তাইয়ের সিনিয়র প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম চৌধুরী জানান, করোনার কারণে এতদিন এই সেতুর নির্মাণের কাজ পিছিয়ে পড়লেও ইতিমধ্যে এটা অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। শীঘ্রই আমরা টেন্ডার প্রক্রিয়ায় যাব।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button