বান্দরবান

সীমান্ত সুরক্ষায় সীমান্ত সড়ক নির্মাণের কাজ চলছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

থানচিতে মডেল থানা উদ্বোধনকালে

পার্বত্য চট্টগ্রামে বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি খুবই সুন্দর তিনটি জেলায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করা হচ্ছে। উন্নয়নের সাথে এই অঞ্চলের নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করা হচ্ছে। পাহাড়ের উন্নয়ন এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে সমান গুরত্ব দিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে নানামুখী পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে মিয়ানমারের সঙ্গে সীমান্ত সড়ক নির্মাণের কাজও চলমান রয়েছে। সীমান্ত সড়ক বাস্তবায়িত হলে এই অঞ্চলে ডেভেলপমেন্ট এবং বিনিয়োগ আরও বেড়ে যাবে। পাহাড়ের উন্নয়ন এবং নিরাপত্তায় করণীয় সব ব্যবস্থায় গ্রহণ করা হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বান্দরবানের দুর্গম থানচি উপজেলায় সবনির্মিত মডেল থানা ভবনের উদ্বোধনকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি গণমাধ্যমে এসব কথা বলেছেন।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ, বিপিএম (বার), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, বিপিএম, বান্দরবান জেলা প্রশাসক মো: দাউদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার জেরিন আখতারসহ বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তা, পুলিশ, স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, গণপূর্ত বিভাগ (পিডবিøউডি) ও স্থাপত্য অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে এবং বাংলাদেশ পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় ৯ কোটি ৪৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত থানচি উপজেলা চারতলা বিশিষ্ট মডেল থানা ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে। মন্ত্রী সকালে হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা থেকে বান্দরবানের থানচি এসে পৌঁছান। পরে মন্ত্রীসহ অতিথিরা থানা ভবনের সামনে বৃক্ষরোপণ করেন। এছাড়াও স্থানীয়দের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে যোগ দেন মন্ত্রী। বিকালে নির্মাণাধীণ সীমান্ত সড়কের বাগলাই নামক ৪ কিলোমিটার স্থানটি পরিদর্শন করেন। রাতে বেসরকারি রিসোর্টে রাত্রী যাপন করবেন। অপরদিকে আগামীকাল শুক্রবার থানচির দুর্গম রেমাক্রী এলাকা পরিদর্শন করে বান্দরবান ত্যাগ করবেন মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি আরও বলেন, সীমান্ত নিরাপত্তায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে নাইক্ষ্যংছড়ি এবং থানচি উপজেলায় সীমান্ত সড়ক নির্মাণের কাজ দ্রæতগতিতে চলমান রয়েছে। নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের স্বার্থে থানচি-লিইক্রে সীমান্ত সড়ক নির্মাণের কাজও শুরু হয়েছে। পার্বত্যাঞ্চলের নিরাপত্তায় যা যা করা দরকার সবকিছুই করা হবে। সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ সবার সঙ্গে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গুলো গ্রহণ করা হচ্ছে। যাতে পার্বত্যাঞ্চল তথা সীমান্ত আরো বেশি নিরাপদ ও সুরক্ষিত করা যায়।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button