ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

‘সাময়িক বহিষ্কৃত’ হলেন রাঙামাটির ৬ ছাত্রলীগ নেতা

গত ২৮ জানুয়ারি সংবাদ সম্মেলন করে বর্তমান জেলা সভাপতি ও সাধারন সম্পাদককে ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করে নিজেদের ‘ভারপ্রাপ্ত সভাপতি’ ও ‘ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক’ ঘোষণা করা জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি সাইফুল আলম রাশেদ,ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক ও জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক মঈনুদ্দিন শাকিলকে সংগঠন থেকে ‘সাময়িকভাবে বহিষ্কার’ করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। মঙ্গলবার রাতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে আপলোড করা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারন সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য সাক্ষরিত একই বিজ্ঞপ্তিতে, জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও রাঙামাটি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ চৌধুরী বাপ্পা, দপ্তর সম্পাদক নুর আলম,উপ দপ্তর সম্পাদক জহিরুল ইসলাম স্বাধীনকে ‘সাময়িক বহিষ্কার’ এর কথাও জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় ও দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনিবার্হী সংসদের এক জরুরী সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক প্রকাশ চাকমা জানিয়েছেন, বহিষ্কারের বিষয়টি আমাকে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সম্পাদক। আসলে বহিষ্কৃতরা গত ২৮ জানুয়ারি সাংবাদিক সম্মেলন করে যে ‘অগনতান্ত্রিক’ কাজ করেছে,বিভিন্ন গণমাধ্যমে সেই সংবাদ দেখে কেন্দ্রীয় সভাপতি-সম্পাদক আমাদের কাছে বিষয়টি জানতে চায়। এরই প্রেক্ষিতে আমরা জেলা ছাত্রলীগ লিখিত প্রতিবেদন দিয়েছি। সেই প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই এই পদক্ষেপ। এর মাধ্যমে প্রমাণিত হলো,সংগঠনের গঠনতন্ত্র বিরোধী কাজ করে কেউই পার পাবেনা।’

তাৎক্ষনিকভাবে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় ‘সাময়িক বহিষ্কৃত’ সাইফুল আলম রাশেদ ও সুলতান মাহমুদ বাপ্পা জানিয়েছেন, এটা খুবই আশ্চর্যজনক সিদ্ধান্ত যে, যাদের বিরুদ্ধে সংগঠনকে ধ্বংস করার অভিযোগ, যে সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে ‘হত্যাচেষ্টা’সহ একাধিক মামলা চলমান,তৃণমূল কর্মীরা যাদের ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করেছে,তাদের বহিষ্কার না করে যারা আজন্মই ছাত্রলীগ করেছি,তাদের বিরুদ্ধেই সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত নেয়া হলো। এটা দুঃখজনক।’ তারা বলেন, ‘রাঙামাটিতে আমাদের অভিভাবক জননেতা দীপংকর তালুকদার কিংবা জেলা আওয়ামীলীগের সাথে কোন পরামর্শ না করে এই ধরণের সিদ্ধান্ত হতাশাজনক।’

এদিকে ছাত্রলীগের এই বহিষ্কারের ঘটনার পর তাৎক্ষনিক এক প্রতিক্রিয়ায় রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর জানিয়েছেন, যাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা ও বিভিন্ন অভিযোগ বিচারাধীন,তাদের বিরুদ্ধে কোন সাংগঠনিক পদক্ষেপ না নিয়ে যারা এইসব অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে,তাদের বিরুদ্ধেই কেনো পদক্ষেপ নেয়া হলো,বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। এই বিষয়ে আমরা সিনিয়র নেতৃবৃন্দ আলোচনা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাথেও আলোচনা করব।’

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে কাউন্সিল ছাড়াই পরদিন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের পক্ষে ৬ সদস্যের জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর। সুজনকে সভাপতি ও প্রকাশকে সাধারন সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণার পরপরই ক্ষুদ্ধ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয় ব্যাপক ভাংচুর করে। সেই থেকে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের যে বিরোধ শুরু হয় তার সমাধান হয়নি বিগত ৫ বছরেও। ২০১৭ সালে প্রায় দুই বছর পর জেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হলে সেই বিরোধ আরো তীব্রতা পায়। এইসব বিরোধের ঘটনায় রাঙামাটি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আহমেদ ইমতিয়াজ রিয়াদকে মারধর,রাঙামাটি পৌর ছাত্রলীগের সভাপতিকে অব্যাহতি,কলেজ সম্মেলনে কাউন্সিল অধিবেশনের আগেই সভাপতি-সম্পাদকের পালিয়ে আসার পর কমিটিহীন রাঙামাটি কলেজ ছাত্রলীগ,সর্বশেষ সংবাদ সম্মেলন করে সভাপতি-সম্পাদককে ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করে নিজেদের ভারপ্রাপ্ত হিসেবে ঘোষণা করে বহিষ্কৃতরা। গত ৫ বছর ধরেই নানান ঘটনার জন্ম দিয়ে আলোচিত বর্তমান জেলা ছাত্রলীগের সুজন প্রকাশ কমিটির বিরুদ্ধে অভিযোগের অন্ত নেই। কখনো সাংবাদিককে মারধর ও সংবাদপত্রের বিরুদ্ধে মিছিল সমাবেশ, পুলিশের গাড়ী থেকে আসামী ছিনতাই, ব্যবসায়ির গাড়ী ছিনিয়ে আনাসহ নানান ঘটনায় আলোচিত এই কমিটি। সর্বশেষ সাধারন সম্পাদক প্রকাশ চাকমার বিরুদ্ধে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ রেস্ট হাউজ ভাংচুরের ঘটনায় ও সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজনের বিরুদ্ধে যুবলীগ নেতা নাসিরকে ‘হত্যাচেষ্টা’র ঘটনায় পৃথক পৃথক মামলাও হয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের এক শীর্ষ নেতা ও সহযোগি সংগঠনের এক শীর্ষ নেতা বর্তমানে ছাত্রলীগের পৃথক  এই দুই অংশের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে নেপথ্যে রয়েছেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen − 13 =

Back to top button