নীড় পাতা / পাহাড়ের রাজনীতি / সাধারন সম্পাদক হতে চান মমতাজ
parbatyachattagram

২৫ নভেম্বর রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন

সাধারন সম্পাদক হতে চান মমতাজ

আগামী ২৫ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে সাধারন সম্পাদক পদে প্রার্থী হিসেবে নিজের নাম ঘোষণা করে প্রচার শুরু করেছেন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোঃ মমতাজুল হক।

রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের এই সিনিয়র নেতা ১৯৮৭ সাল থেকে একই পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ১৯৭৭ সালে জেলা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে রাজনীতি শুরু করা এই নেতা ১৯৮১ সালে গঠিত রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের ৩৯ সদস্য বিশিষ্ট জেলার আহ্বায়ক কমিটির ১৫ তম সদস্য ছিলেন এবং ১৯৮৩ সালে আওয়ামীযুবলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। পরে ১৯৮৭ সালে প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে অদ্যাবধি একই পদে দায়িত্ব করে আসছেন।

সিনিয়র এই আওয়ামীলীগ নেতা দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রামকে সাধারন সম্পাদক পদে প্রার্থীতার কথা জানিয়ে বলেছেন, দীর্ঘদিন ধরে দল করে আসছি। গত ৪৩ বছর ধরে দলের নানান দায়িত্ব পালন করে আসছি। এবার দলের মূল দায়িত্ব নিয়ে দলের সেবা করতে চাই।’

মমতাজুল হক বলেন, আমি কর্মীবান্ধব রাজনীতি করে আসছি,সুখে দুখে নেতাকর্মীদের পাশে ছিলাম এবং আরো বেশি করে থাকতে চাই। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়ন ও জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার জন্য জেলা আওয়ামীলীগের মূল পদে নেতৃত্ব দিতে চাই।’

কোন চাপের কাছে নতি স্বীকার করবেন না এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়াবেন না জানিয়ে মমতাজ বলেন, এই পদে প্রার্থী হিসেবে আরো যাদের নাম শুনছি,তারা প্রত্যেকেই যোগ্য। তবে নেতাকর্মীরা নিশ্চয়ই আমাদের সবার দলের জন্য ত্যাগ, কে কতটুকু দলের দু:সময়ে মাঠে ছিলাম,সেসবের মূল্যায়ন করবে বলে আমি আশাবাদি।’

তিনি আরো বলেন, জননেতা দীপংকর আমাদের সবার নেতা। তিনি কারো পক্ষে অবস্থান নিবেন না। কারণ যারাই প্রার্থী হবেন সবাই ওনার । তাই তিনি সরাসরি কোন প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিবেন না।’
নির্বাচিত হলে দলের অনুপ্রবেশকারিদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবেন এবং আওয়ামীলীগের ত্যাগি ও প্রকৃত কর্মীদের মূল্যায়ন করব।’

মমতাজুল হক জানিয়েছেন, আমি রক্তে মাংসে আওয়ামীলীগ। এই দলের জন্য জীবন যৌবন সব দিয়েছি,বিনিময়ে কিছুই নিইনি। এখন দলের মূল পদে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগকে আরো বেশি জনগণবান্ধব ও কর্মীবান্ধব দল হিসেবে ভীত শক্তিশালি করতে ভূমিকা রাখতে চাই। এখন দলের নেতাকর্মী,কাউন্সিলররা যদি চান এবং মূল্যায়ন করেন,তবেই আমার ইচ্ছা ও আকাংখা বাস্তবায়ন করতে পারব।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

ঘুমধুম সীমান্তে ২ বিজিবি সদস্য গুলিবিদ্ধ

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম মিয়ানমার সীমান্তে বিজিবি সঙ্গে চোরাকারবারী চক্রের গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এসময় ২ …

Leave a Reply