ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

সন্ধ্যার পর কাপ্তাই হ্রদে ঘোরাঘুরি না করার পরামর্শ

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা উন্নয়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে জেলা পরিষদের সভাকক্ষে এই সভার আয়োজন করা হয়।

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে ও পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য গুনেন্দু বিকাশ চাকমা, রাঙামাটি পুলিশ বিভাগের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) পিপিএম মোঃ ইউসুফ সিদ্দিকী, রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ রুবেলসহ জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, এ জেলায় বসবাসরত জনগণের জীবনমান উন্নয়নে জনপ্রতিনিধি, প্রতিষ্ঠান প্রধান, নাগরিক সমাজ এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। সমন্বিতভাবে সকলে কাজ করলে এ জেলার উন্নয়ন ঘটবে। তিনি বলেন, সরকার অর্পিত দায়িত্ব সম্পর্কে আমাদের আরো সচেতন হতে হবে। জেলার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড ও অর্জন ধরে রাখার লক্ষ্যে উন্নয়ন সভার মাধ্যমে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে তিনি পরিষদের প্রতিটি সভায় প্রতিষ্ঠান প্রধানদের উপস্থিত থাকার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, এ জেলা একটি পর্যটন খ্যাত জেলা। তাই পর্যটকদের সুরক্ষায় সন্ধ্যার পর কোন পর্যটক বোট যাতে কাপ্তাই হ্রদে ঘোরাঘুরি না করে সে বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবস্থা গ্রহণের পরামর্শ দেন তিনি।

সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য গুনেন্দু বিকাশ চাকমা বলেন, আমরা সকলেই উন্নয়ন প্রত্যাশী। তাই জেলা উন্নয়ন সভায় উপস্থিত থাকাটাও আমাদের সকলের কর্তব্য। এ সভায় উপস্থিত থেকে সুপরামর্শ প্রদানের আহ্বান জানান তিনি। জেলার প্রতিটি উন্নয়ন কর্মকান্ডে আঞ্চলিক পরিষদের সহযোগিতা থাকবে বলেও তিনি প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

রাঙামাটি পুলিশ বিভাগের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ ইউসুফ সিদ্দিকী বলেন, যে কোন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ড যাতে এ জেলার কোন এলাকায় না ঘটে সে বিষয়ে পুলিশ প্রশাসন তৎপর রয়েছে। এরপরও যে কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড ও মাদক বিক্রী ও সেবনের কোন তথ্য থাকলে তা পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান তিনি।

রাঙামাটি পৌরসভার কাউন্সিলর বিল্লাল হোসেন টিটু বলেন, বর্তমানে পৌরসভার একটি প্রকল্পের মাধ্যমে পৌর এলাকার বিভিন্ন জায়গায় রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে। যার ফলে শহরের বনরুপা বাজারের কিছু কাঁচা বাজার ব্যবসায়ীদের বন বিভাগ কার্যালয়ের বাউন্ডারির বাইরে অস্থায়ীভাবে বসার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আগামী ১৫-২০ দিনের মধ্যে রাস্তা সংস্কারের কাজ শেষে পুনরায় আগের স্থানে তাদের বসানো হবে। এছাড়া সৌন্দর্য বর্ধনে ফুটপাত সম্প্রসারণের কাজ আগামী কয়েক সপ্তাহের পুনরায় শুরু হবে বলেও তিনি সভাকে জানান।

রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি বলেন, গত বছরের ১৩ জুন প্রাকৃতিক দুর্যোগে যে সমস্ত রাস্তার ভাঙ্গন ও ক্ষতি হয়েছে তা দ্রুত সংস্কার ও মেরামত করার পরামর্শ দেন।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী প্রিসলি চাকমা জানান, জেলার ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্যে রাঙামাটি সরকারি কলেজ পরীক্ষা কেন্দ্র ৮৫, উলুছড়ি হাই স্কুল ৮০, তুলাবান হাই স্কুল ৮৭, কাউখালী কলেজ ৫২ ও কেআরসি উচ্চ বিদ্যালয়ের কাজ ৯২ ভাগ কাজ বাস্তবায়ন হয়েছে।

বাংলাদেশ বেতার রাঙামাটির আঞ্চলিক পরিচালক জানান, রাঙামাটিতে অনুষ্ঠিত উন্নয়ন মেলায় বাংলাদেশ বেতার অংশগ্রহণ করে বর্তমান সরকারের বিগত ৪বছরের উন্নয়ন কর্মকান্ড ও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের আইসিডিপি’র প্রকল্পের ৪হাজার পাড়াকেন্দ্র প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করেছে।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ এমদাদ হোসেন বলেন, চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের রাবার বাগান ও রাণীর হাট হতে ডিসি বাংলো পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্ত ও সৌন্দর্যকরণের কাজ চলছে। এছাড়া সেনাবাহিনী কর্তৃক চেঙ্গী নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণের কাজও শুরু হয়েছে।

এছাড়া সভায় উপস্থিত অন্যান্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব স্ব বিভাগের কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button