ব্রেকিংরাঙামাটি

সচেতনতার অভাবে পাহাড় ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে

রাঙামাটিতে গত ১৩ জুন ঘটে যাওয়া পাহাড় ধসের ঘটনা যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য এখন থেকে দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুতি নেয়ার আহবান জানিয়েছেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান এ আহবান জানান। তিনি বলেন, পাহাড় ধসের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোবাবেলায় মানুষের মাঝে পূর্ব থেকে প্রস্তুতি কিংবা সচেতনতা থাকলে এতো বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটতো না। স্মরণকালের এ ভয়াবহ দুর্যোগ সম্পর্কে মানুষের মাঝে কোন ধারণা না থাকায় এবার জানমালের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এই ঘটনার আর যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় সে লক্ষে মানুষকে প্রস্তুতিমূলক কাজে জনমত গঠন করতে হবে।

মঙ্গলবার রাঙামাটিতে পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় অভিজ্ঞতা ও ভবিষ্যৎ করণীয় বিষয়ক মতবিনিময় কর্মশালা রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান এ আহবান জানান।

জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিষয়ক কর্মসূচি ইউএনএফপিও ও একশন এইড বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় আশিকা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্রের সম্মেলন কক্ষে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গ্রীনহিল এ মত বিনিময় সভার আয়োজন করে। সভায় পাহাড়ধস পরবর্তী ও আগামীতে দুর্যোগ মোবিলায় প্রস্তুতি গ্রহণে করণীয় নির্ধারণ করতে সভায় বেশকিছু সুপারিশমালা গ্রহণ করা হয়।

পাহাড়ধসের ঘটনার পর গ্রীনহিল ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের বিশেষ করে মহিলাদের জীবনমান উন্নয়নে কমিউনিটি ওয়ার্চ গ্রুপ নামে এলাকা ভিত্তিক দল গঠন করে। এ কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপের প্রধানগণ মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণ করে। এছাড়া স্থানীয় বিভিন্ন পেশাজীবি ব্যক্তিবর্গ মতবিনিময় অংশ নেন।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গ্রীনহিলের নির্বাহী পরিচালক মং থোয়াই চিং এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন ইউএনএফপিএ এর প্রতিনিধি রুমানা পারভিন, একশন এইড বাংলাদেশের প্রতিনিধি শেখ মঞ্জুরুর-ই আলম, একশন এইড বাংলাদেশের ম্যানাজার কাসফিয়া ফিরোজ, রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর সহকারী পরিচালক গোলাম মোস্তফা, গ্রীনহিলের প্রজেক্ট ফোকাল লিভিং স্টোন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন গ্রীন হিলের চেয়ারপার্সন টুকু তালুকদার।

জেলা প্রশাসক বলেন, পাহাড়ের বসবাসরত মানুষের আর্থিক অবস্থা খুবই দুর্বল। তারা ক্ষুদ্র ঋণের যাঁতাকলে পরে অনেকে নিঃশেষ। এনজিগুলোর কাছ থেকে ঋণ নিয়ে তারা আর এ ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। অনেকেই এক এনজিও থেকে অপর এনজিও’র ঋণ পরিশোধ করছে। এতে আর্থ-সামাজিক উন্নতির পরিবর্তে আরো অবনতি হচ্ছে। তিনি এনজিওগুলোকে ঋনদান কর্মসূচির পাশাপাশি সামাজিক উন্নয়নে আরো বেশি ভূমিকা রাখার পরামর্শ দেন।

একশন এইড বাংলাদেশের প্রতিনিধি শেখ মঞ্জুরুর-ই আলম বলেন, রাঙামাটিতে ১৩জুনের ঘটে যাওয়ার পাহাড়ধসের মতো ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ রাঙামাটির ইতিহাসে আর ঘটেনি। তিনি বলেন, এ দুর্যোগকালীন সময়ে ঘটে যাওয়া বিষয়গুলো থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। তিনি আগামীতে দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিয়ে রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সমাজের নারীদের বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহায়তা করতে হবে তাহলেই ক্ষতি অনেকটা কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

ইউএনএফপিএ এর প্রতিনিধি রুমানা পারভিন বলেন, ইউএনএফপিএ রাঙামাটির পাহাড় ধসের ঘটনার পর ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছে। বিশেষ করে নারীদের স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি মোবেলায় সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ গ্রহণের সহায়তা দিয়েছে। তিনি বলেন, একশন এইড বাংলাদেশের মাধ্যেমে স্থানীয় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গ্রীনহিল এ কাজে সম্পৃক্ত হয়ে সফলভাবে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে। এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে গিয়ে গঠন করা হয়েছে কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপ যা আগামীতে যে কোন ক্রান্তিকালীন সময়ে সংকট নিরসনে ভূমিকা রাখতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

১টি কমেন্ট

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button
%d bloggers like this: