ব্রেকিংরাঙামাটি

শোক ও শ্রদ্ধায় প্রয়াত শিব প্রসাদ মিশ্রকে স্মরণ

দীপন কুমার ঘোষ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ রাঙামাটি জেলা কমিটির প্রয়াত সভাপতি ডাঃ শিব প্রসাদ মিশ্রের শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেলে রাঙ্গাশ্রী কমিউনিটি সেন্টারে শোক সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন সিনিয়র সহ-সভাপতি ইন্দ্র দত্ত তালুকদার। এতে অতিথি ছিলেন পৌর মহিলা কাউন্সিলর রূপসী দাশ গুপ্ত, অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ রাঙামাটি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক পঞ্চানন ভট্টাচার্য্য। বক্তব্য রাখেন হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ জেলা কমিটি সিনিয়র সহ-সভাপতি দীপন কুমার ঘোষ, অরূপ মুৎসুদ্দি সাধারণ সম্পাদক পলাশ কুসুম চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক সামীরন বড়ুয়া, মহিলা সম্পাদিকা মহতী চাকমা, ডাঃ শিব প্রসাদ মিশ্রের ছোট মেয়ে ঊষা মিশ্র, পুরোহিত কল্যাণ সমিতি অসিম চক্রবর্তী বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সহ সভাপতি স্বপন মল্লিক, অর্থ সম্পাদক বিমল চক্রবর্ত্তী, লোকনাথ ব্রহ্মচারী যোগ আশ্রমে সাধারণ সম্পাদক কুশল চৌধুরী, সনাতন যুব পরিষদ শহর কমিটির সভাপতি উজ্জ্বল চৌধুরী, এস্টোলোজার সমিতির সদস্য সচিব তাপস আর্চায্য।

বক্তারা বলেন, ডাঃ শিব প্রসাদ মিশ্র সারাজীবন ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সারা জীবন মানুষের সেবা প্রদান করে গেছেন। সমাজ সেবার পাশাপাশি রাঙামাটি জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহŸায়ক, রাঙামাটি নবগ্রহ মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা, পুরোহিত কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান উপদেষ্টা, পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর, স্বর্ণটিলা শ্রী শ্রী দুর্গা মন্দিরের উপদেষ্টা, হযরত আবদুল ফকির মাজার ওরস পরিচালনা কমিটির নির্বাহী সদস্য, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন কমিটির সিনিয়র সহ সভাপতি, শ্রী শ্রী কৈবল্যকুঞ্জ আশ্রমের উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন।

সভার দ্বিতীয় অধিবেশনে উপস্থিত সকলেই বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ জেলা কমিটির সভাপতি ডাঃ শিব প্রসাদ মিশ্র অকাল মৃত্যুতে জেলা কমিটি শূন্য পদে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে দীপন কুমার ঘোষকে নির্বাচিত করেন এবং সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামল দেব অকাল মৃত্যুতে জ্যোতিষ তাপস আর্চায্য কে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করেন। এছাড়া জেলার সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের সার্বজনীন শারদীয় দুর্গা উৎসব, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী কঠিন চীবর দান উদযাপন ও খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী বড়দিন যথাসময় সুষ্ঠু সুন্দরভাবে পালনের সহযোগিতা ও যোগাযোগের জন্য ১১ জন বিশিষ্ট একটি মনিটরিং সেল কমিটি গঠন করা হয় এবং সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে সরকারি সকল নির্দেশনা অনুসরণ করে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান যথা সময়ে সম্পন্ন করার আহ্বান জানান।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button