রাঙামাটিলিড

‘শিক্ষার্থীদের মাঝে পুষ্টি সচেতনতা ও খাদ্য বিতরণে নজর দিতে হবে’

সাইফুল হাসান ।।

নারী ও শিশুদের পুষ্টিমান খাদ্য নিশ্চিত করতে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে এবং শিক্ষার্থীদের মাঝে পুষ্টি সচেতনতা এবং পুষ্টিকর খাদ্য বিতরণে নজর দেওয়ার বিষয়ে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম জনগোষ্ঠীর পুষ্টির প্রতিশ্রুতি উন্নয়ন’ শীর্ষক গোল টেবিল বৈঠকে বক্তারা জোর দেন।

এসময় রাঙামাটি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রবিউল হাসান বলেন, রাঙামাটিতে প্রাথমিক ৭০৭টি স্কুল রয়েছে জেলা জুড়ে। এতে প্রায় ৮১ হাজার শিক্ষার্থী বর্তমানে পড়ালেখা করছে। আমরা প্রাক-প্রাথমিক থেকে পুষ্টি বিষয়ে যেনো সকলে সচেতন হয় এবং কোন কোন খাদ্য শিশুদের জন্য ভালো সে বিষয়ে বিশেষভাবে নজর দিয়ে তাদের পড়ানো হয়। এছাড়া আমরা বিভিন্ন স্কুলে ক্ষুদে ডাক্তার নামক একটি প্রোগ্রাম করে থাকি। এতে কারে শিশুরা নিজেদের পুষ্টিগত বিষয় নিয়ে নিজেরা আলোচনা করেন।

তিনি আরও বলেন, শিশুদের পুষ্টি নিশ্চিত করতে মিট দ্যা মিল বেশি উপকারে আসবে। যেমন বাঘাইছড়ির সাজেকে ২২টি স্কুল আসে কিন্তু সেখানের মানুষ খুবই দরিদ্র, তাই দারিদ্রতার জন্য শিশুদেরকে পুষ্টিগত খাদ্য দিতে পারছে না। আমরা আমাদের ফান্ড থেকে ইতিমধ্যে এসব প্রান্তিক এলাকায় দরিদ্র পিতা মাতার শিশুদেরকে যেনো সহযোগিতা করা হয় সে বিষয়ে নজর দিয়েছি। এছাড়া আমরা এ ফান্ড থেকে তাদেরকে স্কুল ড্রেস এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয় করে দিচ্ছি।

এ প্রসঙ্গে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, প্রাথমিকের মত আমাদের সেরকম কোন ফান্ড যদিও নেই। তবে ডিসি, টিএনও, পৌরসভার মেয়রসহ স্থানীয় চেয়ারম্যানদের সহযোগিতায় আমরা চাইলেই টিফিন বক্স বিতরণ করতে পারি। এছাড়া আমরা পুষ্টি বিষয়ে তাদের জন্য নানান উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারি। আমরা অভিবাবক সমাবেশে যদিও এই পুষ্টি বিষয়ে বিশেষভাবে আলোচনা করে থাকি। তবে এই আলোচনা যেনো আরো ফলপ্রসূ হয় সে বিষয়ে নজর দিতে হবে।

সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ পরিচালক রুপনা চাকমা বলেন, আমরা বয়স্ক, বিধবা এবং প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদান করে থাকি। যদিও এটি অর্থের দিক থেকে অনেক কম কিন্তু আমরা মাসে যাই দেয় তা আমরা বলে দেয় যেনো পুষ্টিকর খাবার তারা যেন খায়। এছাড়া আমাদের জেলা এতিম খানা ও শিশু পরিবার আছে মোট ২৯টি। আমরা এসব এতিম খানা এবং শিশু পরিবারে যেনো পুষ্টিকর খাদ্য খাবানো হয় সে বিষয়ে নজর দিয়ে থাকি।

তবে কোন তালিকা আছে কি না জানতে চায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুইপ্রু চৌধূরী। তালিকা না থাকার কথা জানিয়ে এবিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ পরিচালক রুপনা চাকমা।

শহরের পর্যটন কমপ্লেক্স’র সম্মেলন কক্ষে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পুষ্টি বিষয়ক এই বৈঠকের আয়োজন করেন লিন, ফাউন্ডার বাই দ্যা ইউরোপিয়ন ইউনিয়ন এবং বাংলাদেশ জাতীয় পুষ্টি পরিষদ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen + 15 =

Back to top button