পাহাড়ের অর্থনীতিরাঙামাটি

লকডাউনে ব্যাংকে গ্রাহক কম, লেনদেনও সামান্য!

রাঙামাটি

কঠোর লকডাউনের মধ্যে ব্যাংক খোলে রাখা হলেও গ্রাহক উপস্থিতি খুবই কম এবং ব্যাংকে লেনদেনও হচ্ছে খুবই সামান্য!
করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে বাংলাদেশে কঠোর লকডাউন পালন করছে। যখন সকল সরকরি অফিস বন্ধ তখন জনগনের সুবিধার্থে ব্যাংক খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ব্যাংক লেনদেনের সময়সূচী নির্ধারন করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়ার কঠোর লকডাউনের ৪র্থ দিনে মাঝখানের শুক্র ও শনিবার বন্ধ থাকায় ব্যাংক খোলার ২দিনে  সকালে ১১:৩০ ঘটিকায় বিভিন্ন ব্যাংকে সরজমিনে গিয়ে দেখে যায়, প্রায় সকল ব্যাংকের দৃশ্য অভিন্ন!  অনান্য কর্মদিবসে ব্যাংক কর্মীদের যেভাবে ব্যাস্ত দেখা যায় সে তুলনায় তেমন কোন ব্যস্ততা দেখা যায় নি এইদিন। অনেকক্ষেত্রে অলস সময় পার করতে দেখে যায় ব্যাংক কর্মীদের। হাতেগোনা দুই-একজন গ্রাহক দেখা যায় ব্যাংকে। এমনকি সোনালী ব্যাংক নিউ কোর্ট বিল্ডিং শাখায় যেখানে অন্য সময় গ্রাহকের দীর্ঘ লাইন থাকে সেখানেও দেখা গেছে ব্যাংক প্রায় ফাঁকা খুব একটা গ্রাহক নাই।
ব্যাংকের গ্রাহক আব্দুল মতিন বলেন, আমার কার্ড নাই জরুরী কাজে কিছু টাকা তুলতে হচ্ছে তাই আসছি নয়তো তাও আসতাম না এমন করোনাকালীন সময়ে।
আইএফআইসি ব্যাংক রাঙামাটি শাখার ব্যবস্থাপক মো: শোয়েব রানা বলেন, অন্যদিনের তুলনায় গ্রাহক কম গ্রাহকরা তাদের খুব প্রয়োজনীয় লেনদেনগুলোই করছে। গাড়ি বন্ধ লকডাউন চলছে তাই গ্রাহক কম।
সোনালী ব্যাংক নিউ কোর্ট বিল্ডিং শাখার ব্যবস্থাপক সমীর কান্তি চাকমা বলেন, অনান্য দিনের তুলনায় আজ গ্রাহক খুবই কম। করোনার বিধিনিষেধের পাশাপাশি বুথ থেকে টাকা তোলা যাচ্ছে এবং অনলাইনে টাকা ট্রান্সফার করা যাচ্ছে তাই গ্রহক সংখ্যাও কম।
প্রসঙ্গত, ১৪ এপ্রিল থেকে ৭ দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষনার পর ব্যাংক খোলার নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সকাল ১০টা হতে বেলা ২:৩০টা পর্যন্ত ব্যাংক খোলা থাকবে।  এসময়ের মধ্য গ্রাহক লেনদেনের সময় সকাল ১০ টা হতে বেলা ১টা পর্যন্ত।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button