বান্দরবানব্রেকিংলিড

রুমা সড়কে পাহাড় ধসে ৫ জন নিখোঁজ

টানা ভারী বর্ষণে বান্দরবানে আবারো পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে। রুমা সড়কের দলিয়ান পাড়া এলাকায় ভাঙ্গা রাস্তায় পাহাড় ধসে ৫ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় স্থানীয়রা ৩ জন’কে জীবিত উদ্ধার করেছে। রোববার সকালে এগারোটায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বান্দরবান থেকে রুমা উপজেলার উদ্দেশ্যে এবং রুমা থেকে বান্দরবানের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া ২টি যাত্রীবাহি বাস পাহাড় ধসে বিধস্ত রুমা সড়কের দলিয়ান পাড়া এলাকায় পৌছায়। দু’পাশের যাত্রীরা বাস পরিবর্তনের জন্য ভাঙ্গা রাস্তা পায়ে হেটে পার হওয়ার সময় বৃষ্টিতে আবারো পাহাড় ধসে পড়ে। এসময় পাহাড়ের মাটি চাপা পড়ে অনেক যাত্রীরা। আহত অবস্থায় ৩ যাত্রীকে শ্রমিকেরা জীবিত উদ্ধার করেছে। তবে এখনো ৫ জন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে সেনাবাহিনী, দমকল বাহিনী এবং স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার তৎপরতায় নেমেছে। তবে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় উদ্ধার তৎপরতা ব্যাহত হচেছ। ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি, বান্দরবান ৬৯ সেনা রিজিয়নের কমান্ডার ব্রীগেডিয়ার জেনারেল মো: যোবায়ের সালেহীন, জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়’সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তরা।

বান্দরবানের মৃত্তিকা সংরক্ষণ কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মাহাবুবুল ইসলাম বলেন, সকাল নয়টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় বান্দরবানে ৭৮ মি:মি: বৃষ্টিপাত হয়েছে। এখনো ভারী বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে।

পরিবহন শ্রমিক স্বপন দাস বলেন, গতমাসের ১২ জুন অবিরাম বর্ষণে বান্দরবান-রুমা উপজেলা সড়কের দলিয়ান পাড়া এলাকায় পাহাড় ধসে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সেনাবাহিনী কয়েকদফায় পাহাড়ের মাটি সরানোর চেষ্টা করলেও বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় পারেনি। তবে সড়কের দু’পাশে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক ছিল। বিধস্ত ভাঙ্গা সড়ক পায়ে হেটে যাত্রীরা গাড়ী পরিবর্তন চলাচল করে আসছিল। আজ রোববার সকালেও যাত্রীরা পায়ে হেটে গাড়ী পরিবর্তন করতে যাবার সময় পাহাড় ধসে অনেক যাত্রী মাটি চাপা পড়েন। আহত অবস্থায় ৩ জন যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে আরো ৫ জন যাত্রী’কে খোজে পাওয়া যাচ্ছেনা।

পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি বলেছেন, পাহাড় ধসে মাটি চাপা পড়ে কয়েকজন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজদের উদ্ধারে সেনাবাহিনী, দমকল বাহিনী’সহ স্থানীয়রা চেষ্টা চালাচ্ছে। বৃষ্টিতে চলাচলে স্থানীয়দের আরো বেশি সতর্ক হওয়ার আহবান জানান মন্ত্রী।

জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক বলেন, পাহাড় ধসের ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় ৩ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। আরো ৫/৬ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। সেনাবাহিনী, দমকল বাহিনী’সহ সরকারী-বেসরকারী সংস্থার লোকজনেরা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে। তবে বৃষ্টির কারণে উদ্ধার তৎপরতা কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। বান্দরবান-রুমা উপজেলা সড়ক যোগাযোগ আজও বন্ধ রয়েছে।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button