বান্দরবানলিড

রুমায় পাঁচ হত্যা মামলায় গ্রেফতার ২২

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান ॥
বান্দরবানের রুমায় পাড়া প্রধান কার্বারিসহ পাঁচজনকে হত্যার ঘটনায় অজ্ঞাতনামা ছয়সহ ২৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। হত্যা মামলায় ২২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য লাশগুলো বান্দরবান সদর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, রুমা উপজেলার গ্যালেঙ্গা ইউনিয়নের সাত নাম্বার ওয়ার্ডের দুর্গম আবুপাড়া এলাকায় কুসংস্কারকে কেন্দ্র করে তাবিজ-কবচ করে পাড়াবাসীদের হত্যা এবং জুম চাষের জমি নিয়ে বাকবিতন্ডার অভিযোগে বোমাং সার্কেলের পাড়া প্রধান কার্বারির পরিবারের ওপর হামলা চালায় পাড়াবাসী। এতে পাড়া প্রধান কার্বারি এবং তার চার ছেলের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন- বোমাং সার্কেলের আবুপাড়া কার্বারি (পাড়া প্রধান) লরুই ¤্রাে, কার্বারীর ছেলে রুমথুই ম্রো, লেংঙিন ম্রো, মেন ওয়াই ম্রো এবং রিংরাও ম্রো। এ ঘটনায় নিহত কার্বারীর ছেলের বউ হায়পোয়ে ম্রো বাদী হয়ে রুমা থানায় শুক্রবাররাতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে আবুপাড়া থেকে ২২ জনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- রুইতু ম্রো (৫০), ইংচং ম্রো (২৬), মাংজং ম্রো (২৮), ক্রংপং ম্রো (৩৮), পাসিং ম্রো (২২), ক্রংতন ম্রো (৩৫), ক্রাতপং সিংচাং ম্রো (৩৯), রিংয়ং ম্রো (৩৫), ইজাং ম্রো (২৭), থনলক ম্রো (৩৫), পালে ম্রো (২৫), ক্লাংসাই ম্রো (২০), মেনপ্রে ম্রো (২০), খংপ্রে ম্রো, কাইং প্রে ম্রো (১৮), মেনরাও ম্রো (২২), মেনয়া ম্রো (২৬), খনতন ম্রো (৪১), মেনয়ং ম্রো (২৪), চাংরাও ম্রো (৩১), থংওয়াই ম্রো (২৪) এবং মেনপং ম্রো (৩৭)। এরা সবাই রুমার গ্যালেংগা ইউনিয়নের পান্তলা মৌজার আবু পাড়ার বাসিন্দা।

সত্যতা নিশ্চিত করে রুমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম জানান, লাশগুলো উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য রুমা থেকে বান্দরবান হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর লাশ পরিবারের কাছে সৎকারের জন্য হস্তান্তর করা হবে। হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত কার্বাবির ছেলের স্ত্রী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ছ’জনসহ ২৮ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলায় ইতিমধ্যে ২২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আবুপাড়া কার্বারির ছেলের ঘরের নাতি থাংপই ম্রো বলেন, পাড়াবাসী আমার দাদু, বাবা, চাচাদের মেরে ফেলেছে। আমরা তাদের কোনো কিছুই করিনি। হত্যার পর লাশগুলো নদী ও খালের নিচে ছুড়ে ফেলেছিল তারা। আমাদের কাউকে কাছেও যেতে দেয়নি। আমার ছোট চাচু একজনকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তবে তারা আমাদের নারীদের কিছুই করেনি।

আবুপাড়ার বাসিন্দার মাংসাই ম্রো বলেন, লাশ গুলো পুলিশের সহযোগিতায় উদ্ধার করা হয়েছিল। কার্বারির পরিবারকে কেন মারা হয়েছে, আমরা ছোট মানুষ জানি না। লাশগুলো গাড়িতে করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে আনা হয়েছে। নিহতের পরিবারের স্বজনরাও সাথে রয়েছে।

এদিকে ঘটনাস্থল রুমা উপজেলার গ্যালেঙ্গা ইউনিয়নের সাত নাম্বার ওয়ার্ডের দুর্গম আবুপাড়া এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। অনেকটা ফাঁকা হয়ে পড়েছে পাড়ার রাস্তাঘাট গুলো। গ্যালেঙ্গায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

জেলা পুলিশ সুপার জেরীন আখতার জানান, হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হয়েছিল রাতের বেলায়। পাড়া কার্বারির পরিবারের সাথে পাড়াবাসীর জুম চাষের জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। তাবিজ-কবচ করে পাড়াবাসীকে হত্যার গুজবও ছড়িয়ে পড়েছিল পাড়াবাসীদের মধ্যে। বিষয়গুলো পাড়াবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে হামলা চালিয়ে কার্বারি এবং চার ছেলেকে হত্যা করেছে। হত্যার ঘটনায় মামলায় ২২ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাতে রুমা উপজেলার গ্যালেঙ্গা ইউনিয়নের সাত নাম্বার ওয়ার্ডের দুর্গম আবুপাড়া এলাকায় কুসংস্কার কেন্দ্র করে তাবিজ-কবচ করে পাড়াবাসীদের হত্যার অভিযোগে এনে বোমাং সার্কেলের পাড়া প্রধান কার্বারির পরিবারের ওপর হামলায় ৫ জনের মৃত্যু হয়।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen − twelve =

Back to top button