ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

রাবিপ্রবি ভিসি প্রদানেন্দু’র অপসারন দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে স্বারকলিপি

রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. প্রদানেন্দু বিকাশ চাকমার অপসারনের দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাঙামাটি জেলাপ্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নানের মাধ্যমে এই স্বারকলিপি প্রদান করেন। এসময় রাঙামাটি মেডিকেল কলেজ ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম মুন্না, যুগ্ম আহবায়ক জাহাঙ্গীর কামাল ও সদস্য সচিব আবদুল্লাহ আল মামুন উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর দেয়া স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, ‘শুধুমাত্র বর্তমান ভিসি ড. প্রদানেন্দু বিকাশ চাকমার অযোগ্যতা, অনভিজ্ঞতা,সাম্প্রদায়িক আচরণ এবং আত্মীয়করণের কারণেই পার্বত্যবাসীর দুঃস্বপ্নে পরিণত হতে যাচ্ছে স্বপ্নের এই বিশ্ববিদ্যালয়। ১১ জানুয়ারী ভিসি’র মেয়াদ শেষ হয়েছে। আতংকের কথা হলো তিনি পুনরায় ভিসি পদে নিয়োগ পাওয়ার জন্য তোড়জোড় শুরু করেছেন।’

স্মারকলিপিতে বলা হয় হয়, ‘বিগত তিন বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতির জনকের জন্মদিন, শোক দিবস কিংবা অন্যান্য কোনো রাষ্ট্রীয় বা জাতীয় দিবসের আলোচনা না করলেও সম্প্রতি ঘটা করে আয়োজন করেছেন বঙ্গবন্ধুর ৭মার্চের ভাষণের স্বীকৃতির কর্মসূচী। ভিসি এটি করেছেন শুধুমাত্র তার পুননিয়োগ নিশ্চিত করার জন্যই। এই ভিসিই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম প্রকাশনায় বঙ্গবন্ধুর ছবি ও নাম উল্লেখ করেননি। এমনকি প্রধানমন্ত্রীর অবদান স্বীকার করতে চাননি এবং যার ফলে তুমুল সমালোচনা ও সাংবাদিকবৃন্দের লেখালেখির মুখে বাধ্য হয়েছিলেন সে প্রকাশনা বাতিল করতে। এই ভিসিই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন করার অপরাধে হল থেকে এক ছাত্রকে বহিস্কার করেছিলেন। আর সেই ভিসিই তার নিজের স্বার্থে আবারো পুুননিয়োগ পাওয়ার প্রত্যাশায় কি কারনে হঠাৎ ভালবাসা দেখাচ্ছেন তা সকলের কাছেই স্পষ্ট।’

স্মারকলিপিতে বলা হয়, এই ভিসি যদি দ্বিতীয় মেয়াদে আবারো নিয়োগ পান তবে এই বিশ্ববিদ্যালয়টিতে একচেটিয়াভাবে সাম্প্রদায়িকরণ হবে এবং সেই সাথে এও আশংকা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষার দ্বারতো উন্মুক্ত হবেইনা বরং এটি এ অঞ্চলের স্থানীয় পাহাড়ি-বাঙালীদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টিতে ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করবে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় বিরোধিতাকারীদের পক্ষাবলম্বন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের গতিকে স্থবির করে দেয়াই ভিসির মিশন। তাই ভিসি’র অপসারনের দাবি করছি।’

এর আগে ১০ জানুয়ারি ভিসি প্রদানেন্দুর অপসারণ দাবি করে রাঙামাটিতে সাংবাদিক সম্মেলনও করেছিলো চারবছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির শ্রেণী কার্যক্রম চালুর দাবিতে কর্মসূচী পালন করার মাধ্যমে সৃষ্ট এই সংগঠনটি। যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক ছাত্র ইউনিয়ন নেতা ও রাঙামাটি সরকারি কলেজের সাবেক জিএস জাহাঙ্গীর আলম মুন্না।

সাংবাদিক সম্মেলন থেকে ভিসির মেয়াদ বৃদ্ধি বা তাকে পুনর্বহাল করা হলে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে লাগাতার হরতাল কর্মসূচীর ঘোষণা দেয়া হয়। একই সাথে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান,গণসাক্ষর সংগ্রহ,সুধী সমাজের সাথে মতবিনিময়সহ ধারাবাহিক নানা কর্মসূচীর ঘোষণা দেয়া হয়।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

ি কমেন্ট

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button
%d bloggers like this: