ব্রেকিংরাঙামাটি

রাঙামাটি জেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় নানান তথ্য

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা উন্নয়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকালে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সম্মেলনের কক্ষে এই সভার আয়োজন করা হয়।

আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) পিপিএম মোঃ ইউসুফ সিদ্দিকী, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাস্ট্রির সভাপতি বেলায়েত হোসেন, রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ রুবেলসহ জেলা ও উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা উন্নয়ন কমিটির প্রতিটি সভায় উপস্থিত থেকে পারস্পরিক আলোচনার ভিত্তিতে এ জেলার প্রান্তিক জনগোষ্ঠির আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। তিনি বলেন, এ জেলার সমস্যাগুলোকে চিহ্নিত করে সভায় তুলে ধরে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করে এ জেলার উন্নয়ন আরো বৃদ্ধি করা সম্ভব। সমন্বিতভাবে সকলে কাজ করলে এ জেলার সার্বিক উন্নয়ন ঘটবে।

জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, জেলায় অবৈধ ইটভাটাসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজ রুখতে প্রশাসন থেকে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে। অপরাধমূলক যে কোন তথ্য থাকলে প্রশাসনকে জানানোর অনুরোধ জানান তিনি। এছাড়া মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে প্রশাসন থেকে ২৫ ও ২৬ মার্চ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে সকলকে অংশগ্রহণ করার অনুরোধ জানান তিনি। তিনি বলেন, প্রশাসনের উদ্যোগে জেলার জুরাছড়ি, কাপ্তাই ও নানিয়ারচর উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করা হয়েছে। কাউখালী উপজেলাকেও ভিক্ষুক মুক্ত করার কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে। প্রশাসনের সকল উন্নয়নমূলক কাজে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

রাঙামাটি পুলিশ বিভাগের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ ইউসুফ সিদ্দিকী বলেন, যে কোন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ড যাতে এ জেলার কোন এলাকায় না ঘটে সে বিষয়ে পুলিশ প্রশাসন তৎপর রয়েছে। এরপরও যে কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড ও মাদক বিক্রি ও সেবনের কোন তথ্য থাকলে তা পুলিশ প্রসাশনকে জানিয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান তিনি।

রাঙামাটি পৌরসভার কাউন্সিলর কালায়ন চাকমা বলেন, বর্তমানে পৌরসভার একটি প্রকল্পের মাধ্যমে পৌর এলাকার বিভিন্ন জায়গায় রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে। এছাড়া “ক্লিন রাঙামাটি গ্রীন রাঙামাটি” প্রকল্পের মাধ্যমে শহরকে আরো পরিচ্ছন্ন রাখার কাজ এগিয়ে চলছে।

রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্দিত পর্যটনের শহর রাঙামাটিতে পর্যটকদের আগমন আরো বেশি বৃদ্ধি করতে ঠেগামুখে স্থল বন্দর নির্মাণ অতীব জরুরি। এই স্থল বন্দরটি চালু হলে বিদেশি পর্যটকদের আনাগোনা আরো বৃদ্ধি পাবে। তাই এ বিষয়ে যা যা করা প্রয়োজন তা করার জন্য পরিষদ চেয়ারম্যানকে অনুরোধ জানান তিনি।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী প্রিসলি চাকমা জানান, জেলার ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্যে রাঙামাটি সরকারি কলেজ পরীক্ষা কেন্দ্র ৯০%, উলুছড়ি হাই স্কুল ৮৭%, তুলাবান হাই স্কুল ৯২%, কাউখালী কলেজ ৭০%, কেআরসি উচ্চ বিদ্যালয়ের কাজ ৯৫% ও টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ এর ১৭% কাজ বাস্তবায়ন হয়েছে।

বাংলাদেশ বেতার রাঙামাটির আঞ্চলিক পরিচালক জানান, পুরো মার্চ মাস জুড়ে মহান স্বাধীনতা দিবসের সকল অনুষ্ঠান সম্প্রচার করা হচ্ছে।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ এমদাদ হোসেন বলেন, চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের রাউজান ও রাণীর হাট হতে ডিসি বাংলো পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্তÍ ও সৌন্দর্যকরণের কাজ এগিয়ে চলছে। শীঘ্রই সকল কাজ সম্পন্ন করা হবে। অন্যদিকে সেনাবাহিনী কর্তৃক নানিয়ারচরে চেঙ্গী নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণের কাজও এ বছরের মধ্যে সম্পন্ন করার পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া সওজ এর অধীনে রাস্তার সাধারণ মেরামতের কাজ চলমান রয়েছে।

জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মকর্তা হোমনে আরা বেগম জানান, মহিলাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এছাড়া গত ৮ মার্চ নারী দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা সম্পন্ন করা হয়েছে।

এছাড়া সভায় উপস্থিত অন্যান্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব স্ব বিভাগের কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button