রাঙামাটিলিড

রাঙামাটির ৪২ মন্ডপে পূজোর আয়োজন

সাইফুল হাসান
সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সব চেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে এ বছর ৪২টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দুর্গাপূজা আয়োজনের শেষ মুহূর্তে সাজ-সজ্জাসহ অন্যান্য কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে প্রতিমা তৈরি কারিগর ও আয়োজকরা।

রাঙামাটির শহরের বেশ কয়েকটি মন্দিরের মন্ডপ ঘুরে দেয়া যায়, প্রতিমাতে রং তুলিতে কাজ শেষ। শেষ মুহূর্তে প্যান্ডেলসহ আলোক সজ্জা ও তোরণ তৈরিতে ব্যস্ত অনেকে।

রাঙামাটি শহরের গীতাশ্রম মন্দিরের শারদীয় দুর্গাপূজা আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক রাজু প্রসাদ দে জানান, আমাদের মন্দিরের পূজা সব চেয়ে বড় হয়। আমরা এবছর প্রায় ১২ লক্ষ টাকা বাজেট ধরেছি। আমাদের পার্বত্য অঞ্চলে বিভিন্ন জাতি, ধর্ম, বর্ণ ও সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস। আমরা পূজাতে সকল ধর্মের মানুষের সহযোগিতা পেয়ে থাকি। পূজা আয়োজনে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ আর্থিক, মানসিক এবং শারীরিকভাবে সহযোগিতা করে থাকে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের প্রতিবছরই নানান থিমে আমরা প্রতিমা তৈরি করে থাকি। ঠিক এবছরও আমরা একটি থিমের ওপর প্রতিমা তৈরি করেছি। আশা করছি আমরা খুবই শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও দূর্গাপূজা উদযাপন করতে পারবো।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ রাঙাামটি সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব রণতোষ মল্লিক জানান, রাঙামাটি শহরে ১৪টি এবং অন্যান্য ৯টি উপজেলায় ২৮টি মন্ডপসহ সর্বমোট জেলায় ৪২টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ইতিমধ্যে আমরা সরকারিভাবে যে সকল সহযোগিতা পাওয়ার কথা ছিলো তা পেয়েছি। এছাড়া আমাদের সাথে জেলা প্রশাসনসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বৈঠক হয়েছে। আমরা সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি।

তিনি আরও বলেন, ইতিমধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বেশ কিছু নির্দেশনা পাওয়া গেছে। আমরা দশ উপজেলার মঠ-মন্দিরের সভাপতি-সম্পাদকদের সাথে বৈঠক করেছি। তাদেরকে নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছি যাতে করে যথাযথভাবে সরকারি নির্দেশনা মেনে পূজা উদযাপন করা হয়। প্রতিটি মঠ-মন্দিরে সিসি ক্যামেরা লাগানোর জন্য বলা হয়েছে। আশা করছি আমাদের কোন ধরণের সমস্যা হবে না। আমাদের কোন ঝুঁকিপূর্ণ মন্ডপ নেই। আমরা মা দুর্গার কৃপায় সুন্দরভাবে দুর্গাপূজা উদযাপন করতে পারবো বলে আশা রাখছি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × three =

Back to top button