রাঙামাটিলিড

রাঙামাটিতে লিচুর ফলনে বিপর্যয়

জিয়াউল জিয়া ॥
রাঙামাটির বাজারে আসছে রসালো ফল লিচু। তবে অন্যান্য বছর এই সময়ে লিচু কিনতে ঢাকা-চট্টগ্রামের পাইকাররা সেভাবে ভিড় করলেও এবারের চিত্র ভিন্ন। ক্রেতাদের আনাগোনা থাকলেও নেই তেমন বেচাকেনা। আবহাওয়া ও প্রকৃতিগত কারণে দেশের অন্যান্য অঞ্চলের চেয়ে রাঙামাটির লিচু মিষ্টি ও রসালো। তবে এবছর লিচুর ফলন কম হওয়ায় হতাশ চাষিরা। বৃষ্টি কম হওয়ার কারণে লিচুর উৎপাদন কম এবং সাইজেও ছোট হয়েছে বলে জানালেন চাষিরা। এবছর মুনাফা না হওয়ার পাশাপাশি পুঁজি খোয়ানোর শংকায় চাষিরা।

কৃষি বিভাগও বলছে সঠিক সময়ে বৃষ্টি না হওয়াতে একদিকে কমেছে ফলন অপরদিকে লিচুর আকারও ছোট হয়েছে। আবার ফেটেও যাচ্ছে লিচু। এ বছর জেলায় ১ হাজার ৮৮২ হেক্টর জমিতে লিচু উৎপাদনের লক্ষামাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

পাহাড়ে প্রতিবছর গ্রীষ্ম মৌসুমে লিচুর প্রচুর ফলন হলেও এ বছর তা দেখা যাচ্ছে না। লিচুর মৌসুমে প্রতিবছর রাঙামাটির বাজারে এবং ফলের বাগানগুলোতে পাইকার ব্যবসায়ীদের ভিড় লেগে থাকত। এ বছর লিচুর দাম থাকলেও ফলন কম হওয়ায় হতাশ চাষীরা। এ বছর পাহাড়ে বৃষ্টি না হওয়ায় লিচুর বাম্পার ফলন হয়নি। গত বছরের তুলনায় এ বছর লিচুর ফলন অর্ধেকে নেমেছে।

রাঙামাটির ঘাগড়া এলাকার লিচু চাষী মনোতষ চাকমা বলেন, এবার পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় ফলন তুলনামূলক কম হয়েছে। আবার আকারে ছোট হওয়ায় দামও ভালো পাওয়া যাচ্ছে না।

কাপ্তাই উপজেলার ওয়া¹্যা এলাকার চাষি মনি চাকমা লিচুর ফলন ভালো না হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, বৃষ্টি কম হওয়ার কারণে ফলন কম হয়েছে। গত বছরের তুলনায় ফলন অর্ধেক। আবার যতকুটু ফলন হয়েছে লিচুর আকার ছোট হওয়ায় দামও ভালো পাওয়া যাচ্ছে না।

ভালো ফলনে লাভের মুখ দেখবেন, এমন আসায় যারা আগাম বাগান কিনেছেন, ক্ষতির মুখে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

চট্টগ্রাম থেকে লিচু কিনতে আসা মো. হানিফ মিয়া বলেন, আগে কয়েক গাড়ি মাল কিনতে পারতাম এবং ভালো দামও পেতাম এবছর ৮-১০ হাজারের বেশি লিচু পাওয়া কঠিন। এবছর লিচুর ফলন ভালো হয়নি।

চট্টগ্রামের আরেক ব্যবসায়ী মো. লিটন বলেন বেশি লাভের আসার কিছু বাগান কিনেছিলাম, এবছর পুরাই লস। কি করবো বুঝতে পারছি না।

রাঙামাটি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষ্ণ প্রসাদ মল্লিক বলেন, কয়েক বছর ধরে দেশি লিচুর চাহিদা বেড়েছে। এবছর সঠিক সময়ে বৃষ্টি না হওয়াতে একদিকে কমেছে ফলন অপরদিকে লিচুর আকারও ছোট হলেও বাজারে চাহিদা থাকায় ভালো দাম পাচ্ছেন চাষিরা।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button