বান্দরবানব্রেকিংলিড

মাসব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু বান্দরবানে

পূন্যের আশায় বান্দরবানে পাহাড়ের বৌদ্ধ বিহারগুলোতে মাসব্যাপী দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু হয়েছে। এ উৎসবে বৌদ্ধ ধর্মালম্বী নারীরা মাত্র চব্বিশ ঘন্টায় একদিনের মধ্যে তুলা থেকে বিশেষ কায়দায় চরকায় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে সুতা তৈরী করে। আর সুতায় নতুন রং লাগিয়ে কাপড় বুনে বৌদ্ধ ধর্মীয় গুরু ভিক্ষুদের পরিধানের জন্য চীবর কাপড় তৈরি করে। পরেরদিন নতুন সুতায় তৈরি করা চীবর ধর্মীয় গুরু ভিক্ষুদের মাঝে দান করার নামই হচ্ছে কঠিন চীবর দানোৎসব। প্রচলিত আছে, গৌতম বুদ্ধের মহা পূণ্যবতী নারী বিশাখা দেবী এই কঠিন ব্রতী পালন করে বুদ্ধকে চীবর দান করেছিলেন। সেদিন থেকে প্রতিবছর বান্দরবানেও বৌদ্ধ বিহারগুলোতে ব্যাপক আয়োজনে কঠিন চীবর দানোৎসব ধর্মীয়ভাবে পালন করে আসছে পাহাড়ের বৌদ্ধ সম্প্রদায়েরা নারীরা।
বৌদ্ধ ধর্মালম্বী নারী এনি মারমা, মেএ্যানু মারমা বলেন, একরাতের মধ্যে না ঘুমিয়ে তুলা থেকে সুতা তৈরি করে, নতুন সুতায় রং লাগিয়ে কাপড় বুনে চীবর তৈরি করি পাহাড়ের নারীরা। বুদ্ধ ভিক্ষুদের পরিধানের উপযুক্ত করে চীবরগুলো দ্বিতীয়দিন ভিক্ষুদের মাঝে দান করা হয়। এটি হচ্ছে কঠিন চীবর দানোৎসব। আমরা বিশ্বাস করি জীবনে একবারও যদি আমরা ভিক্ষুদের চীবর তৈরি করে দান করতে পারি, তাহলে আমরা পরবর্তী বুদ্ধ যিনি আবির্ভাব হবেন আগামী জনমে আমরা তারই পূন্যার্থী হবো।
বৃহস্পতিবার থেকে দুদিন ব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু হয়েছে বটতলী পাড়া, ডলুঝিরি পাড়া বৌদ্ধ বিহারে। শুক্রবার রামজাদী বিহার, কালাঘাটা ধ্যানরত্ব বৌদ্ধ ভিক্ষুর আজুগুহায় এবং শনিবার বালাঘাটা বৌদ্ধ বিহারে দানোত্তম কঠিন চীবর উৎসব শুরু হবে। এছাড়াও সার্বজনীন বৌদ্ধ বিহার, রাজগুরু বৌদ্ধ বিহার, কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহার’সহ পাহাড়ের বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবর উৎসব আয়োজন করা হয়েছে।
উৎসব আয়োজন কমিটির সদস্য সচিব উজ্জল তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, রেইছা বৌদ্ধ বিহার, জ্ঞানরত্ব বৌদ্ধ বিহার, আমতলী বৌদ্ধ বিহার’সহ কয়েকটি বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার বালাঘাটা বৌদ্ধ বিহার’সহ কয়েকটি বিহারে এ উৎসব শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে বান্দরবানের বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারগুলোতে এ উৎসব চলবে নভেম্বর মাসব্যাপী। সবশেষে কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। উৎসবের শেষদিনে কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহার থেকে বিহারের অধ্যক্ষ ভিক্ষু উচহ্লা ভান্তের নেতৃত্বে শতাধিক বৌদ্ধ ভিক্ষু খালি পায়ে লাইন ধরে হেটে উজানীপাড়া-মধ্যমপাড়া’সহ বৌদ্ধ ধর্মালম্বী অধ্যুষিত এলাকাগুলো থেকে ছোয়াইং (খাবার) এবং নগদ টাকা-কাপড় সংগ্রহ করবেন। বৌদ্ধ ভিক্ষুদের ছোয়াইং দানের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে মাসব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button
Close