খাগড়াছড়ি

মাটিরাঙ্গায় নারীর মৃতদেহ উদ্ধার

মাটিরাঙ্গা প্রতিনিধি ॥
খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা জেলাধীন গোমতী ইউনিয়নে পাহাড়ের খাদে সৃষ্ট পুকুর থেকে ভাসমান অবস্থায় সবিতা ত্রিপুরা (২০) নামে এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশ। বুধবার ভোরের দিকে মাটিরাঙ্গার গোমতি ইউনিয়নের দুর্গম বেহাদন্ত কার্বারি পাড়া থেকে এ মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

সবিতা ত্রিপুরা মাটিরাঙ্গার গোমতি ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের বেহাদন্ত কারবারীপাড়ার কবিসা ত্রিপুরা স্ত্রী। সে উর্মি ত্রিপুরা নামে দেড় বছরের এক কন্যা সন্তানের জননী।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরের দিকে বাড়ির আদুরে সমাজয় ত্রিপুরা বাড়ি নিচে পাহাড়ের খাদে সৃষ্ট পুকুরে গোসল করা ও পানি আনার উদ্দেশ্যে যায় সবিতা ত্রিপুরা। দিন গড়িয়ে সন্ধ্যা হলেও সে বাড়ি ফিরে না আসলে আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত ৮ টার দিকে সমাজয় ত্রিপুরা বাড়ির পাশে দুই পাহাড়ের নিচে সৃষ্ট পুকুরে তার ভাসমান অবস্থায় মৃতদেহ দেখতে পায়।

পরে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি মেম্বার মিলন ত্রিপুরা মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশকে খবর দিলে মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশের একটি টীম সমাজয় ত্রিপুরা বাড়ির পাশে প্রায় ৪০০ ফুট খাদে সৃষ্ট পুকুর থেকে ভাসমান অবস্থায় তার মৃতদেহ উদ্ধার করে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আলী বলেন, স্থানীয় ইউপি মেম্বার মিলন ত্রিপুরার কাছ থেকে খবর পেয়ে ৭/৮ কিলোমিটার দুর্গম পাহাড়ি পথ পায়ে হেটে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমের চিহ্ন রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রাথমকি ভাবে ধারনা করা হচ্ছে এটি একটি হত্যাকান্ড তবে কেবা কাহারা এ হত্যাকান্ড করেছে তা আমরা সুনির্দিষ্ট নয়। তবে পুলিশ হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে তদন্ত শুরু করেছে।

এদিকে মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে সবিতা ত্রিপুরার মৃতদেহ পরিবারের কাছে হন্তান্তর করা হবে বলেও জানান তিনি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button