নীড় পাতা / ব্রেকিং / ‘মনে রাখবেন ধৈর্য্যর একটা সীমা আছে’
parbatyachattagram

সাফ জানিয়ে দিলেন জিওসি

‘মনে রাখবেন ধৈর্য্যর একটা সীমা আছে’

তিন পার্বত্য জেলার আইনশৃংখলা বিষয়ক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান বলেছেন, ‘পার্বত্য চুক্তি সম্পাদনের পর থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সিভিল প্রশাসনকে সহযোগিতা করে আসছে। এখন পাহাড়ে চুক্তিপূর্ব সময়ের মত সামরিক অভিযান পরিচালনা করেনা সেনাবাহিনী, আমরা এখন এখানে অপারেশন উত্তরণ পরিচালনা করছি,পূর্বের বিভিষিকাসময় পরিস্থিতি থেকে উত্তরণই এই অপারেশন এর মূল উদ্দেশ্য এবং আমাদের কাজ হলো সিভিল প্রশাসন ও অন্যান্য আইনশৃংখলাবাহিনীকে সহায়তা করা, পাশাপাশি চুক্তি বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা।’

তিনি আরও বলেন, ১৯৯৭ সালের বাস্তবতা আর বর্তমান বাস্তবতা এক নয়। চুক্তি স্বাক্ষরিত হবার পর তারা চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করেছেন, এটা দুঃখজনক। যারা সরকারের সাথে চুক্তি করেছিল সেই জনসংহতি সমিতির তখন যে জনসমর্থন ছিলো, তা এখন আর নেই। এ বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখা উচিত এবং এগুলো নিয়ে নতুন করে ভাবা উচিত। তখন সরকার যার সাথে চুক্তি সম্পাদন করেছিলেন, তখন তার যে সমর্থন ছিল, আমাদের একটি জরিপ ও ক্যালকুলেশনে দেখেছি, বর্তমানে তিনি মাত্র ১০% মানুষের প্রতিনিধিত্ব করছেন।’

জিওসি আরও বলেন, পৃথিবীর বহু দেশে আমাদের দেশের সেনাবাহিনী সুনামের সাথে কাজ করছে। অথচ এখানে জেএসএস ও ইউপিডিএফ এবং তাদের ছাত্র সংগঠন পিসিপি, হিল উইমেন্স ফেডারেশন বিভিন্ন ভাবে অপপ্রচার করে যাচ্ছে। তাদের মাঝে দেশপ্রেম বলতে কিছুই নেই, তারা বরারবই রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত থাকে, এদের ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া উচিত। এরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবসময় অপপ্রচার চালাচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ বাংলাদেশের মানুষ সাহসী মানুষ, তারা অনেক প্রতিবন্ধতা মোকাবেলা করতে পারে। আমরা অনেক দুর্বল অবস্থায় যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি, সুতরাং আমাদের পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যা সমাধান করা কোন ব্যপারই না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সংযম প্রদর্শন করছি, এটা দুর্বলতা ভাববেন না। বাঘাইছড়িতে সরকারি দায়িত্ব পালন শেষে ফেরার পথে সরকারি লোককে গুলি করে হত্যা করেছেন, রাজস্থলীতে আমার একজন সেনা সদস্যকে হত্যা করেছেন, আমরা কোন রিএ্যাকশন দেখাইনি। ঐ সব এলাকার একজন মানুষও বলতে পারবে না, সেখানে আমরা সাধারণ মানুষকে কষ্ট দিয়েছি। তবে মনে রাখবেন ধৈর্য্যরে একটা সীমা আছে।’

পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এই আলোচনা সভায় তিন পার্বত্য জেলা থেকে জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতারা অংশগ্রহণ করেছেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

হঠাৎ স্থগিত সম্মেলন, সংশয়ে রাঙামাটি আওয়ামীলীগ

দৃশ্যত: বড় কোন কারণ ছাড়াই রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের ৭ বছর পর অনুষ্ঠিতব্য রাঙামাটি সম্মেলন স্থগিত …

Leave a Reply