নীড় পাতা / ব্রেকিং / বৈধ-অবৈধ দ্বন্দ্বে রাঙামাটি জাতীয় পার্টি!
parbatyachattagram

বৈধ-অবৈধ দ্বন্দ্বে রাঙামাটি জাতীয় পার্টি!

সম্প্রতি জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটির সাথে তৃণমুল নেতৃবৃন্দের মতবিনিময় সভার সংবাদ পত্র-পত্রিকায় প্রকাশের পর উক্ত কমিটি ভূয়া ও অবৈধ বলে মন্তব্য করেন জেলা সভাপতি হারুন মাতব্বর। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমাকে সভাপতি করে কেন্দ্র থেকে যে কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছিল তার মেয়াদ আরো এক বছরের বেশি আছে। কমিটির মেয়াদ থাকাবস্থায় আরেকটি আহবায়ক কমিটি কখনো ন্যায় সঙ্গত নয়। পারভেজ তালুকদারের কমিটি ভূয়া ও অবৈধ বলে দাবি করেন হারুন মাতব্বর। কিন্তু এডভোকেট পারভেজ তালুকদার বলেন, ‘হারুন মাতব্বরের কমিটি আগেই বিলুপ্ত হয়ে গেছে, এখন রাঙামাটি জেলায় কেন্দ্র অনুমোদিত আহবায়ক কমিটিই বৈধ’।

হারুন মাতব্বরের মন্তব্যের প্রতিবাদে এড. পারভেজ তালুকদার বলেন, শাহজাহান মোল্লা মারা যাওয়ার পর হারুন মাতব্বর নিজেকে সভাপতি করে কেন্দ্রে অনুমোদনের জন্য জেলা কমিটি জমা দেন। সেই সময় সম্মেলন করার জন্য আমাকেও আহবায়ক করে একটি আহবায়ক কমিটি কেন্দ্র থেকে অনুমোদন দেয়া হয়েছিল। সমস্যা সমাধানের জন্য কেন্দ্র থেকে দু’টি কমিটির নেতৃবৃন্দকে ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় ঢাকা হয়। কিন্তু উক্ত মিটিংয়ে হারুন মাতব্বররা উপস্থিত হননি। ১৬ জুন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের নির্দেশে ও মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গার সুপারিশে আমাকে আহবায়ক করে কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। আর আগামী তিন মাসের মধ্যে জেলা কমিটি গঠন করার দায়িত্ব দেয়া হয়’।
জেলা জাতীয় পার্টির ‘সভাপতি’ হারুন মাতব্বর বলেন, এখনো পর্যন্ত রাঙামাটি জেলা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়নি। গত বছরের জানুয়ারিতে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হয়েছিল। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আরো দেড় বছরের মত সময় আছে। একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটির মেয়াদ থাকাবস্থায় সম্মেলন প্রস্তুতি নামক কোনো কমিটি হতে পারে না। পূর্নাঙ্গ কমিটির মেয়াদ থাকাবস্থায় এই ধরনের আহবায়ক কমিটি কিংবা সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটিও করা যায় না। এটা একমাত্র দলের চেয়ারম্যান এরশাদ ছাড়া কারো এখতিয়ার নাই। তারপরেও দলের মহাসচিব ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে ভুল বুঝিয়ে যারা এই কাজটি করেছে তাদেরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে জানান হারুন মাতব্বর। তিনি জানান, মেয়াদ শেষে সম্মেলন দেয়া হবে; তখন সবাই সম্মেলনে আসুক। আর তখন যারা কমিটিতে আসবে তাদেরকে সাধুবাদ জানায়।

নব গঠিত আহবায়ক কমিটির আহবায়ক এড. পারভেজ তালুকদার বলেন, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আমার প্রতি আস্থা রেখেই আমাকে আহবায়ক করে ৮১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন। মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গার সুপারিশে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন। সিনিয়র নেতৃবৃন্দের আস্থার প্রতি সম্মান রেখে দেশের বৃহত্তর এই জেলায় পার্টির কাজকে আরো বেগবান করার জন্য প্রতিটি উপজেলা কমিটিকে ঢেলে সাজাবো। ইতোমধ্যে দুইটি উপজেলা সফর করেছি। আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সবগুলো উপজেলা কমিটি গঠন করেই জেলা সম্মেলনের আয়োজন করতে পারব। এড. পারভেজ তালুকদার বলেন, আজকেও(বুধবার) ঢাকায় কেন্দ্রের সাথে মিটিং ছিল। সেই মিটিংয়েতো আমার নেতৃত্বে ২৬জন যোগ দিয়েছে। হারুন মাতব্বরের কমিটি যদি বৈধ হতো তবে তিনি আসেননি কেন?

জাপা’র কেন্দ্রীয় যুগ্ম দফতর সম্পাদক এম এ রাজ্জাক খান স্বাক্ষরিত পত্রের মাধ্যমে এড. পারভেজ তালুকদারকে আহবায়ক ও জ্যোতি বিকাশ চাকমাকে সদস্য সচিব করে গঠিত জেলা আহবায়ক কমিটি অনুমোদনের পত্র পাঠানো হয়। বর্তমানে রাঙামাটিতে জাতীয় পার্টির কেন্দ্র অনুমোদিত কমিটি কোনটি? বিষয়টি জানতে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম দফতর সম্পাদক এম এ রাজ্জাক খানকে মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও পাওয়া যায়নি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

হ্রদের নীল জলে বৈঠার ঝিলিক

পাহাড়ঘেরা রাঙামাটির স্বচ্ছ কাপ্তাই হ্রদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে …

Leave a Reply