ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ শাকিল-সায়েম

রাজনীতি তাদের দিয়েছে অনেক,উজাড় করেই,আর কেড়ে নিয়েছে অনেক। অর্জনের খাতা তবু শূণ্য নয়। জেল জুলুম হামলা মামলার বিপরীতে দলীয় কর্মীদের অকৃত্রিম ভালোবাসা আর দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পাওয়া সেই ভালোবাসারই বহি:প্রকাশ যেনো।

ছাত্রজীবন থেকে বর্তমান সময়,পার্বত্য জেলার রাঙামাটির জাতীয়তাবাদী রাজনীতির ইতিহাস তাদের ছাড়া পূর্ণতাও পাবেনা। বয়সের ব্যবধান সত্বেও কৈশর তারুণ্যের উত্তাল সময়ে দুজনই বেশ ঘনিষ্ঠ ছিলেন,যেনো হরিহর আত্মা একে অপরের। কিন্তু রাজনৈতিক প্রতিযোগিতা একসময় দুজনের মধ্যে বিরোধের যে চিড় তৈরি করছিলো,সেটা ধীরলয়ে বেড়েছে গত কয়েকমাসে। পুরো হৃদ্যতা ভুলে,হালের সমালোচক চোখে পরষ্পর পরষ্পরকে যেনো কাঁটা হয়েই বিঁধছিলেন,সময়ে অসময়ে। পৃথক পৃথক শো ডাউন কিংবা কর্মী ও কর্ম প্রদর্শন বাড়িয়েছে সমালোচনাও ঘরে-বাইরে,তরুণ দুই আইকন নেতার বিরোধে বিব্রত বোধ করতে শুরু করেছিলেন জেলার মূল দলের শীর্ষ নেতারাও। কিন্তু সবকিছুকেই যেনো মাটিচাপা দিয়ে ফের পুরনো সম্পর্কে মৌতাতে মেতেছেন তারা দুজন ! প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়েই বলছেন-‘আমাদের মধ্যে আর কোন বিরোধ নেই,গ্রæপিং নেই,আমরা একসাথে আছি,একসাথেই থাকব।’ এমন আকস্মিক ঘোষণায় ‘ছোটমনের’ দুরচারজন নেতাকর্মী ছাড়া বাকি সবাই হাসিমনে মেনে নিয়েছেন উচ্ছাসে,আবেগে।
বলছিলাম,রাঙামাটি জেলা যুবদলের দুইবারের টানা সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাকিল এবং সাধারন সম্পাদক আবু সাদাত মো: সায়েম এর কথা।

মাঝের কিছু অস্বস্তিকর সময় ভুলে দুজনেই এখন ফের মগ্ন পুরনো সম্পর্কের সুবাস ছড়াতে। কেনোইবা বেড়েছিলো দুরত্ব আর কোন যাদুতেই মিলল দুজনে,এমন প্রশ্নের জবাব হাসিমুখেই এড়িয়ে গেছেন তরুন দুই নেতা। তবে মুখে কুলুপ আঁটেননি। বলেছেন নিজেদের কথা।
জেলা যুবদল সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাকিল বলেন, ‘ সায়েম আমার ছোটভাই। আমরা একসাথে গত তিনদশক ধরে রাজনীতি করে আসছি। আমাদের মধ্যে কিছু বিষয় নিয়ে দুরত্ব তৈরি হয়েছিলো,সেটা এখন আর নেই। আমরা একসাথে কাজ করছি,যুবদলকে আরো শক্তিশালী করায় মনোনিবেশ করেছি। আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি।’
অন্যদিকে জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক আবু সাদাত মো: সায়েম বলেন- কিছু মতভিন্নতা ও বৈরিতা তৈরি হয়েছিলো নানা কারণে,সেসব এখন অতীত। আমরা জাতীয়তাবাদী রাজনীতির স্বার্থে নিজেরাই এখন সব বিভেদ ভুলে একসাথে কাজ করছি,কাজ করব। নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকবে,কিন্তু বিরোধীতা থাকবে না নিশ্চিত। যুবদল অতীতের যেকোন সময়ের তুলনায় এখন সবচে বেশি শক্তিশালী এবং ঐক্যবদ্ধ।’

দুই শীর্ষ নেতার ঐক্যকে কিভাবে দেখছেন সাধারন নেতাকর্মীরা তারই আঁচ পাওয়া গেলো সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক নাজিমউদ্দিনের কথায়। তিনি বলেন-আমাদের দুই মূল নেতার মধ্যে সব বিরোধের অবসান হওয়ায় আমাদের সব নেতাকর্মীরাই খুশি।’
কোন যাদুতে এই বিরোধের অবসান হলো’- এমন প্রশ্নের জবাবে নাজিমউদ্দিন বলেন, আসলে আমার মনে হয় গ্রুপিং আর কাদাছোঁড়াছুঁড়িতে তারা নিজেরাই বিরক্ত হয়ে গিয়েছিলেন এবং ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন। তাই তাদের নিজেদের বোধোদয়ের কারণেই এই পরিবর্তন,যা আমাদের যুবদলকে আরো শক্তিশালী করবে।’

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button