ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

‘বিধিমালা প্রণয়ন হলেই কমিশন কাজ শুরু করবে’

রাঙামাটিতে ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের আইন সংশোধনের পর এই কমিটির তৃতীয় সভা আজ রাঙামাটি সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের বিধামালা প্রণয়ন করা হলেই কমিশন কাজ শুরু করতে পারবে। ইতোমধ্যে আঞ্চলিক পরিষদ তাদের খসড়া বিধিামাল সংশোধনী জমা দিয়েছেন সরকার যতদ্রুত অনুমোদন দিবে ততদ্রুতই কমিশন কাজ শুরু করতে পারবে বলে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জানানভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন চেয়ারম্যান সাবেক বিচারপতি মোহাম্মদ আনোয়ার উল হক।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা) বলেন, বিধিমালা প্রনতি না হওয়া পর্যন্ত ভূমি কমিশনের কাজ এগিয়ে নেওয়া সম্ভব না। আগে বিধিমালা হওয়া জরুরী। । যতদ্রুত সরকার বিধিমালা করে দিবে ততই দ্রুত কমিশন কাজ শুরু করতে পারবে। তার আনুসাঙ্গীক কাজগুলো কমিশনার পক্ষ থেকে যথাযথভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

রাঙামাটি চাকমা সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাষীশ রায় বলেন, ‘আজকে একটা ব্যাপারে সিন্ধান্ত হয়েছে ভারত ফেরত শরনার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। চাকমাদের কিছু কিছু শরর্নার্থীদের মধ্যে পূর্নাবাসিত হয়নি আবার কিছু কিছু তাদের স্ব স্ব ভিড়াতে ফিরতে পারলেও চাষের জমি ফেরত পায়নি সেগুলো আমরা দেখছি।

ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন চেয়ারম্যান সাবেক বিচারপতি মোহাম্মদ আনোয়া উল হকের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা), রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়াম্যান বৃষ কেতু চাকমা, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ চেয়াম্যান কংজরী চৌধুরী, বান্দরবার জেলা পরিষদ চেয়রাম্যান ক্যশৈ হ্লা, রাঙামাটি চাকমা সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাষীশ রায়, খাগড়াছড়ি মং সার্কেলের প্রতিনিধি, বান্দবানের বোমাং সার্কেল চিফ উ চ প্রু উপস্থিত ছিলেন।

তবে নয় সদস্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের কমিটির মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের প্রতিনিধি এদিন সভায় উপস্থিত ছিলেন না।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button