পাহাড়ে নির্বাচনের হাওয়াব্রেকিংরাঙামাটিলিড

‘বিদ্রোহী’ অমরকে আমলে নিচ্ছে কি আওয়ামীলীগ ?

রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচন

ইয়াছিন রানা সোহেল 
রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেলা আওয়ামীলীগের উপ-প্রচার সম্পাদক অমর কুমার দে। অবশ্য অমর কুমার দে নিজেকে ‘বিদ্রোহী’ নয় ‘বিকল্প’ প্রার্থী হিসেবেই দাবি করছেন। বিগত পৌরসভা নির্বাচনেও তিনি মেয়র প্রার্থী হয়েছিলেন। নির্বাচনের চারদিন আগে আওয়ীমীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আকবর হোসেন চৌধুরীকে আনুষ্ঠানিক সমর্থন দিয়ে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছিলেন তিনি। তবে এবার কোন অবস্থাতেই অমর কুমার দে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। অবশ্য আওয়ামীলীগের জয়ের ক্ষেত্রে অমর কুমারকে বাধা হিসেবে গণ্যই করছে না দলের নেতারা।

অমর কুমার দে নিজেকে বিদ্রোহী নয় বিকল্প প্রার্থী উল্লেখ করে বলেন, বিগত নির্বাচনেও আমি বিকল্প প্রার্থী ছিলাম, বিদ্রোহী প্রার্থী নই। তিনি ক্ষোভের সঙ্গে জানান, বিগত নির্বাচনে দলের স্বার্থে আমার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলাম। কারণ তখন আমাদের দলের সাংসদ ছিলনা, উপজেলা চেয়ারম্যান এবং পৌরসভার মেয়র পদেও দলীয় লোক ছিলনা। সবদিক বিবেচনা করে আকবরকে জয়যুক্ত করার জন্য আমার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলাম। তখন আমাকে নির্বাচনের যাবতীয় খরচ, দলের কাজ করতে গিয়ে যা যা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি ক্ষতিপূরণসহ অনেক কিছু দেয়ার আশ্বাস দিয়েছিল। কিন্তু কিছুইতো দিলনা। উপরন্তু নির্বাচনের পর দূরছড়িতে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও দলীয় কিছু লোকজন দখল করে নিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলাম; সেটাও ছেড়ে দিয়েছি। বর্তমানে একেবারেই নিঃস্ব।’ দলের পক্ষ থেকে এবারও প্রার্থীতা প্রত্যাহারের জন্য বললে প্রত্যাহার করবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অমর স্পষ্টই বলেন, ‘প্রার্থীতা প্রত্যাহারের প্রশ্নই আসেনা, আমার পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে।’ দলীয় নেতাকর্মী সাথে আছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলের অনেকের আমার প্রতি সমর্থন রয়েছে, তারা আমাকে ভালোবাসে। আমার পক্ষেই তারা রায় দিবেন’। জয়ের ব্যাপারেও বেশ আশাবাদী অমর কুমার দে।

অমরের প্রার্থীতা নিয়ে আওয়ামীলীগ টেনশন করছেন কি না এবং দলের কি পরিমাণ ভোট সে পাবে এসব কথা জানতে চাইলে রাঙামাটি পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. সোলায়মান চৌধুরী বলেন, ‘অমরকে নিয়ে টেনশন করার কিছুই নেই। অমর হয়ত এক দেড়শো ভোট পাবে; এর বেশি নয়। আওয়ামীলীগের জয়ের ক্ষেত্রে অমর কোন বাধাই না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

হিন্দুধর্মাবলম্বীদের একচেটিয়া ভোট অমর পেতে পারেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি বলেন, ‘হিন্দুদের ভোট তো অমর কিনে নেয়নি যে; হিন্দুদের ভোট একচেটিয়া সে পাবে। তাদের নেতারাও আমাদের সাথে টাইম টু টাইম যোগাযোগ করছেন। দলীয় লোক হিসেবে অমরকে বুঝাব, তারপরেও যদি সে না বুঝে তবে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান পৌর আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী এই নেতা।

এদিকে জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. মুছা মাতব্বর বলেন, গতবারও অমর প্রার্থী হয়েছিল, তাকে বুঝিয়ে আমরা প্রার্থীতা প্রত্যাহার করিয়েছিলাম। এবারও তাকে বুঝাব। সে প্রত্যাহার না করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অমরকে নিয়ে আওয়ামীলীগ টেনশন করছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে হাজী মুছা মাতব্বর বলেন, অমরকে নিয়ে টেনশন করার প্রশ্নই উঠেনা। নৌকার জয়ের ক্ষেত্রে অমর কোন বাধাই নয় বলে মন্তব্য করেন জেলা আওয়ামীলীগের এই নেতা।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button