বান্দরবান

বান্দরবানে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, ৪ ছাত্রনেতা বহিষ্কার

সংবর্ধনাকে কেন্দ্র করে বান্দরবানে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় উপ-ছাত্র বিষয়ক সম্পাদকসহ চারজনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে সাড়ে আটটায় দলীয় কার্যালয়ে জরুরি সভায় বহিষ্কারের এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বহিষ্কৃতরা হলেন- জেলা ছাত্রলীগের উপ-ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শুভ দাশ, সদস্য সাইফুল ইসলাম আকাশ, জুনায়েদ হাসান, মামুনুর রশীদ শাহীন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং বড় সন্তান ও জেলা ছাত্রলীগের এক নং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক উসিং হাই রবিন বাহাদুর ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী পরিষদের নির্বাহী সদস্য হওয়ায় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা সভায় আয়োজন করা হয় বৃহস্পতিবার বিকালে জেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনের রাস্তায়। সংবর্ধনায় যোগ দিতে ঢাকা থেকে ফেরার পথে বান্দরবানের প্রবেশপথ সূয়ালক থেকে নেতাকর্মীরা মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা সহকারে নেতাকে বরণ করে বান্দরবানে নিয়ে আসেন। এসময় মোটর সাইকেল শোভাযাত্রায় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে ছাত্রলীগের সদস্য সাইফুল ইসলাম আকাশের সঙ্গে জেলা ছাত্রলীগের আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক আবিদ হাসান ফাহিমের বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে ক্যায়াংমোড় এলাকায় আকাশকে থাপ্পড় মারেন সংগঠনের সিনিয়র নেতা ফাহিম। এ ঘটনায় সংবর্ধনা চলাকালে আকাশের পক্ষের রাজারমাঠ এলাকার ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা এবং ফাহিমের পক্ষের মেম্বারপাড়ার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে সংবর্ধনাস্থলের কাছাকাছি জড়ো হয়। অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতারা বক্তব্য রাখেন।

পরে সংবর্ধনা শেষে রাজারমাঠে সম্পাদক ফাহিমকে একা পেয়ে আকাশের সহপার্ঠিরা ১০/১২ জন মিলে ফাহিমকে বেধড়ক মারধর করেন। খবর পেয়ে ফাহিমের পক্ষের নেতাকর্মীরাও রাজারমাঠে গিয়ে পাল্টা হামলা করেন। এতে সংঘর্ষে আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক আবিদ হাসান ফাহিম এবং সদস্য সাইফুল ইসলাম আকাশ ২ জন আহত হয়। খবর পেয়ে ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতাকর্মীরা এবং পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এদিকে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরের মেম্বারপাড়া, রাজারমাঠসহ গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিক উল্লাহ। তিনি বলেন, পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে।

ঘটনার পর আওয়ামীলীগসহ ছাত্রলীগের নেতারা দলীয় কার্যালয়ে জরুরি সভায় বসেন। সভায় প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য শোনে দোষী ৪ জন ছাত্রনেতাকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কাওছার সোহাগ জানান, তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে মারামারির মত অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় দোষী ৪ জনকে সাময়িকভাবে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button