খাগড়াছড়ি

বাজারজাত নিয়ে চিন্তিত মহালছড়ির ফল চাষি

মিল্টন চাকমা, মহালছড়ি ॥
বিশ^ মহামারী করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে বাজারজাতকরণ নিয়ে চিন্তিত খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার ফল চাষিরা। সারাদেশের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ও দোকানপাট বন্ধ থাকলে ব্যবসায়ী আসতে না পারলে এবং সময় মতো উৎপাদিত ফল সমূহ বাজারজাত করা না গেলে বিপুল পরিমাণ লোকসানের মূখে পড়বেন বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন চাষিরা।

জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত মিশ্রফল চাষি হ্লাচিংমং চৌধুরী জানান, প্রায় ৪০ একর জমিতে মিশ্রফল চাষ করেছেন তিনি। বাগানে তিনি বিভিন্ন প্রজাতির আম, ড্রাগন ফল, কলাসহ বিলুপ্তপ্রায় অনেক ধরণের ফলগাছ লাগিয়েছেন। ফলনও ভালো হয়েছে। কিন্তু তিনি করোনা পরিস্থিতিতে গত বছর থেকেই লাভের মূখ দেখছেন না। বর্তমান সময়ে করোনা পরিস্থিতি আরো অধিকতর ভয়াবহতা বিরাজ করায় সরকার কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে। এ অবস্থাতে তাঁর বাগানে উৎপাদিত প্রায় ৫০ মেট্রিকটন আম এবং ২২-২৩ শত কেজি ড্রাগন ফল বাজারজাত নিয়ে চিন্তিত তিনি। করোনা পরিস্থিতির করোনা কোন পাইকার আসছে না। স্থানীয় যে সব পাইকাররা আছে, তারাও বাজারজাতকরণের চিন্তা করে ফল না কিনে ঘুরে ফিরে যাচ্ছে।

মহালছড়ির ২৪ মাইল নামক এলাকায় আম বাগানের মালিক কান্তি চৌধুরী বলেন, ৮ একর জায়গার ওপর সৃজিত আম বাগানটিতে এ বছর ফলন ভালো হয়েছে তবে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে স্বল্পমূল্যে বাগান বিক্রি করতে হয়েছে।

ব্যবসায়ী মো: সোহেল বলেন, মহালছড়িতে যেসব আম বাগান কেনা হয়েছে সব কটিতে লোকসান হবে। যে আম ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হতো করোনা পরিস্থিতির কারণে সেই আম বর্তমানে ২০ থেকে ২৫ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। বাগানে এখনো প্রায় ৫’শ মেট্রিকটন কেনা আম রয়েছে। বর্তমান সময়ে করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সরকার কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করলে এই আম কোথায় কিভাবে বাজারজাত করবো তা নিয়ে চিন্তিত আছি।

এ বিষয়ে মহালছড়ি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: আবদুল জব্বার জানান, মহালছড়িতে প্রায় ১৪’শ হেক্টর এর মধ্যে মিশ্র ফলের বাগান রয়েছে। এ মৌসুমে ফলনও মোটামুটি ভালো হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার সোমবার হতে কঠোর বিধি নিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে জানি তবে, প্রজ্ঞাপন আকারে আমাদের কাছে এখনো নির্দেশ আসেনি। তাই এ ব্যাপারে এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। পরবর্তী নির্দেশ আসলে অথবা জেলা প্রশাসকের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেয়া যাবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

16 − twelve =

Back to top button