নীড় পাতা / ফিচার / খেলার মাঠ / বঙ্গবন্ধু ফুটবলে রাঙামাটির চ্যাম্পিয়ন লংগদু

বঙ্গবন্ধু ফুটবলে রাঙামাটির চ্যাম্পিয়ন লংগদু

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনুর্ধ্ব-১৭) এর রাঙামাটির জেলা পর্যায়ে ফাইনাল খেলায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে লংগদু উপজেলা দল। ফাইনালে লংগদু উপজেলা রাজস্থলী উপজেলাকে পরাজিত করে। নির্ধারিত সময়ে উভয় দল ২-২ গোলে ড্র করলে শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে ম্যাচ গড়ায়। টাইব্রেকারে লংগদু উপজেলা দল ৪-৩ গোলে জয়লাভ করে। বুধবার বিকেলে চিং হ্লা মং মারী স্টেডিয়ামে ফাইনাল খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়।

ফাইনাল খেলা ও সমাপনী অনুষ্ঠানে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক ও রাঙামাটি ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি এ কে এম মামুনুর রশিদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এনডিসি। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান তরুণ কান্তি ঘোষ, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য পরিকল্পনা প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, রাঙামাটির পুলিশ সুপার আলমগীর কবির, রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শফি কামাল, রাঙামাটির জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বরুণ বিকাশ দেওয়ান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন রাঙামাটি ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি সুনীল কান্তি দে।

লংগদু উপজেলা একাদশের ৯ নাম্বার জার্সি পরিহিত খেলোয়াড় মেহেদী হাসান (এরশাদ) প্রথম অর্ধে ২০ মিনিটের মাথায় গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। উল্টো লংগদু উপজেলা ডিফেন্ডারের ভুলে প্রথম অর্ধে ৩২ ও ৩৫ মিনিটের মাথায় পর পর দুটি গোল খেয়ে বসে। পর পর দুটি গোল খাওয়ায় চাপে পড়ে লংগদু উপজেলা একাদশ। দ্বিতীয় অর্ধের ২০ মিনিটের মাথায় আবারো লংগদু উপজেলা একাদশের ৯ নাম্বার জার্সি পরিহিত খেলোয়াড় মেহেদী হাসান (এরশাদ) দ্বিতীয় গোল করে গোলের সমতা নিয়ে আসেন। এরপর কোন দলই কাক্সিক্ষত গোলের দেখা পায়নি। উভয় দলেই গোলের সুযোগ তৈরি করলেও কাক্সিক্ষত গোল আদায় করতে পারেনি কেউ। নির্ধারিত সময় ও অতিরিক্ত সময়েও উভয় দল ২-২ গোলে ড্র করলে টাইব্রেকারে লংগদু উপজেলা দল ৪-৩ গোলে জয়লাভ করে।

লংগদু ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও লংগদু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রবীর কুমার রায় বলেন, ‘আমি কিছুদিন হলো লংগদু উপজেলা যোগদান করেছি। লংগদু উপজেলা একাদশ জয়লাভ করায় আমি অনেক খুশি। এই জয় পুরো লংগদুবাসীকে উৎসর্গ করলাম।

উক্ত ফাইনাল খেলা ও সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এনডিসি বলেন, ‘দেশ এগিয়ে যাচ্ছে তার সাথে তাল মিলিয়ে আমাদের বিভিন্ন খেলাধুলাও এগিয়ে যেতে হবে। নারী ফুটবল দল এখন ভালো খেলছে। আর সেই দলে পার্বত্য এলাকার তিনটি মেয়ে দেশের হয়ে খেলে সুনাম বলে আনছে। একইভাবে ছেলেদের ফুটবলেও তোমরা ভালো কিছু করবে এটাই আশা করি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু খেলা খুব পছন্দ করতেন, তাঁর নামে এই গোল্ডকাপ টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছে। সারাদেশ থেকে বাছাই এর মাধ্যমে আগামীতে তোমরা জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পাবে।

তিনি আরো বলেন, আমি কয়েকদিন আগে খাগড়াছড়ি জেলায় একই সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম কিন্তু সেখানে তুলনার এখানকার দর্শক ও খেলার মান অনেক ভালো ছিল। আর খেলায় মান উন্নয়নের জন্য উন্নয়ন বোর্ড সব সময় পাশে থাকবে এবং স্টেডিয়াম উন্নয়নের জন্য যা যা করার দরকার সব উন্নয়ন বোর্ড করবে।

টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ গোলদাতা নির্বাচিত হয়েছেন বিলাইছড়ি ৭ নাম্বার জার্সি পরিহিত খেলোয়াড় সোহাগ বাবু মারমা। তিনি মোট ৫টি গোল করেন এবং সেরা খোলোয়াড় নির্বাচিত হন রাজস্থলী উপজেলা একাদশের ৬ নাম্বার জার্সি পরিহিত খেলোয়াড় লুপি ত্রিপুরা। খেলা পরিচালনা করেন মো. সোহেল, সহকারী দায়িত্বে ছিলেন হাসমত আলী ও মৃনাল ত্রিপুরা। চতুর্থ রেফারির দায়িত্বে ছিলেন রাজন ত্রিপুরা।

আরো দেখুন

জেএসএস’র সশস্ত্র শাখার দুই চিকিৎসা সহায়তাকারি আটক

সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সশস্ত্র গ্রুপকে চিকিৎসা সহায়তা প্রদানের সাথে জড়িত থাকার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

2 + four =