ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

প্রিয় স্কুল ক্যাম্পাসে ভালোবাসায় রোপিত হলো কৃঞ্চচূড়া-সোনালু

রাঙামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এলামনাই’র উদ্যোগে

১৮৯০ সালে পথচলা শুরুর পর থেকেই একই স্থানে স্থানু হয়ে দাঁড়িয়ে যুগ যুগান্ত ধলো ছড়িয়ে যেনো ইতিহাসের নীরব সাক্ষী পাহাড়ের সবচে প্রাচীন মানুষ গড়ার বিদ্যাপীঠ রাঙামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। পার্বত্য জনপদের সবচে গুরুত্বপূর্ণ এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন ‘রাঙামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশন’ এর ব্যানারে রবিবার স্কুল চত্বরে বোপন করা হলো ত্রিশটি কৃঞ্চচূড়া ও সোনালু গাছ।

সকালে ঝুম বৃষ্টিতে ভিজেই স্কুল ক্যাম্পাসে হাজির প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। বৃষ্টিমুখর সকালে ভিজে ভিজেই স্কুলের মাঠের পাশে সমানদুরত্ব রেখে সাড়িবদ্ধভাবে রোপন করা হয় এইসব গাছ। এসময় উপস্থিত ছিলেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক মৃদুল কান্তি তালুকদার। প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফজলে এলাহী, কবিতা চাকমা,বিপ্লব তালুকদার,সুবিনয় খীসা,সালাউদ্দিন জুয়েল,তাপস দাশ,রূপন নাগসহ স্কুলের বেশ কয়েকজন প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। আর নেপথ্যে থেকে পুরো উদ্যোগে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও এলামনাই’র অন্যতম সংগঠক জোহরা বিবি,শহীদ খান,শান্তুনু পালিত।

চারা রোপন শেষে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সাথে সৌজন্য বিনিময়কালে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা তার কাছ থেকে স্কুলের বিদ্যমান বিভিন্ন প্রয়োজন ও সমস্যা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেন এবং স্কুলের প্রয়োজনে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা সবাই সবসময় পাশে থাকবে বলেও জানান।

এইসময় প্রধান শিক্ষক এলামনাই এসোসিয়েশন’কে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন,আজকে সুপরিকল্পিতভাবে লাগানো এইসব কৃঞ্চচূড়া ও সোনালু চারা ঠিকমতো বিকশিত হলে স্কুলের পরিবেশই বদলে যাবে।

এলামনাই এর সদস্য সুবিনয় খীসা বলেন, আমরা শুধু দায়সাড়া চারা লাগানোর কাজ না করে পরিকল্পিতভাবে চারা লাগিয়েছি এবং সেইসব চারা যেনো ঠিকঠাকমতো বেড়ে উঠে সেইজন্য ঘেরাবেড়াও দিয়েছি। আশা করছি প্রতিবছরই নানান কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে আমরা স্কুলের সাথে থাকতে পারব।’

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button