নীড় পাতা / ফিচার / খোলা জানালা / প্রসঙ্গ: কাচালং নদীর পূর্বপাড়ের নতুন উপজেলা !

প্রসঙ্গ: কাচালং নদীর পূর্বপাড়ের নতুন উপজেলা !

লংগদু উপজেলায় কাচালং নদীর পূর্বপাড়ে নতুন একটি উপজেলা গঠন কেন প্রয়োজন?? ১। লংগদু উপজেলা সদর হতে নদীর পূর্বপাড়ের তিনটি ইউনিয়ন(ভাসান্যাম, বগাচতর ও গুলশাখালী) ভৌগলিকভাবে দূরে অবস্থিত। উপজেলা সদর হতে এসব এলাকার গড় দূরত্ব ১০-১৫ কিঃ মিঃ। অপরদিকে বাঘাইছড়ি উপজেলাধীন আমতলী ইউনিয়ন লংগদু উপজেলার পাশ্বর্বর্তী কিন্তু বাঘাইছড়ি উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৩৫ কিঃ মিঃ দূরে অবস্থিত। পূর্বপাড়ে একটি উপজেলা গঠিত হলে এই দূরত্ব কমে আসবে। ২। ভৌগলিকভাবে বিচ্ছিন্ন ও দূরবর্তী হওয়ায় এই চারটি ইউনিয়নবাসীর উপজেলা ভিত্তিক প্রশাসনিক সুবিদা গ্রহন করতে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়। পূর্বপাড়ে উপজেলা হলে ভোগান্তি কিছুটা হলেও কমে আসবে। ৩। উপজেলা সদরে গিয়ে কাজ সারতে মানুষের প্রচুর সময় ও অর্থের অপচয় ঘটে। পূর্বপাড়ে উপজেলা হলে হাজার হাজার মানুষের শ্রমঘন্টা বাঁচবে পাশাপাশি পরিবহণ খরচ বাবদ প্রচুর পরিমাণ অর্থের অপচয় রোধ হবে। ৪। উপজেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন ও দূরবর্তী হওয়ায় এসব এলাকার বেশিরভাগ মানুষ সরকারি স্বাস্থ্য সেবা থেকেও বঞ্চিত। অনেক সময় একজন মুমূর্ষু রোগীকে উপজেলা হেল্থ কমপ্লেক্সে নিতে নিতেই দূর্ঘটনা ঘটে যায়। পূর্বপাড়ে উপজেলা গঠিত হলে সরকারি হাসপাতাল স্হাপনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবা মানুষের হাতের নাগালে চলে আসবে এবং মা ও শিশুর মুত্যু হার কমে আসবে। ৫। বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার কেন্দ্র এবং শিক্ষকদের ট্রেনিং সেন্টারগুলো উপজেলা কেন্দ্রীক হওয়ায় এসব এলাকার শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের পরীক্ষা, মিটিং ও প্রশিক্ষণে অংশগ্রহনের জন্য উপজেলা সদরে অবস্খান করতে হয়। এখানে তাদের থাকা-খাওয়া ও নৌ-পথে আসা-যাওয়া করতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। চারটি ইউনিয়ন নিয়ে উপজেলা গঠিত হলে অভ্যন্তরীন সরক যোগাযোগের মাধ্যমে এ সমস্যা লাঘব হবে। ৬। নিকটাবর্তী ও সহজ প্রশাসনিক তদারকির মাধ্যমে এ অঞ্চলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর গুনগত মানের আমুল পরিবর্তন হবে। ৭। কাচালংয়ের পূর্বপাড়ে একটি উপজেলা গঠিত হলে প্রশাসনিক কারণেই দেশের মুল ভূখন্ডের সাথে সরক যোগাযোগ স্হাপন করা হবে এবং অব্যন্তরীণ যোগাযোগের জন্য এলাকার রাস্তাঘাট, ব্রীজ কালভার্ট নির্মান করা হবে। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থার নতুন দ্বার উন্মেচিত হবে। ৮। নতুন উপজেলা গঠন করা হলে প্রশাসনিক উদ্যেগে যুগ যুগ ধরে অন্ধকারে ডুবে থাকা এসব এলাকায় সহজে বিদ্যুৎ পৌছে যাবে। ফলে বিদ্যুতের আলোর ঝলকানিতে আলোকিত হবে এই অঞ্চলের বাসিন্দারা। আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়বে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে মাল্টিমিডিয়া পাঠদানের মাধ্যমে আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে শিক্ষা ব্যবস্থা। ৯। উপজেলা গঠিত হলে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ও বিদ্যুৎ পৌছানোর মাধ্যমে এসব এলাকায় নতুন নতুন শিল্প ও কল-কারখানা স্হাপিত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এতে এলাকায় ব্যপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে ও বেকারত্ব কমবে। মানুষের জীবন মানেরও ব্যপক পরিবর্তন হবে। ১০। দুর্গম এই চারটি ইউনিয়নে উপজেলা গঠিত হলে এখানকার বাসিন্দারা বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ছোট বড় পদ, পদবী লাভ করবেন। এতে প্রশাসনিক সুবিদার পাশাপাশি রাজনৈতিকভাবেও লাভবান হওয়া যাবে। ১১। উপজেলা গঠনের মাধ্যমে চারটি ইউনিয়নে পারষ্পরিক ও অভ্যন্তরীন যোগাযোগের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে সহযোগিতা ও ভ্রাতৃত্ববোধ বাড়বে। ফলে তুলনামুলক পিছিয়েপড়া এলাকাগুলো শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে অগ্রসর হওয়ার চেষ্টা করবে। ১২। বিরক্তিকর নৌ পরিবহণ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে ও সড়ক পথে জীবনের নতুন দিগন্তের সূচনা হবে। এছাড়াও বিভিন্ন সুযোগ, সুবিদার কথা বিবেচনা করে কাচালং নদীর পূর্বপাড়ে দুর্গম, দূরবর্তী ও ভৌগলিকভাবে বিচ্ছিন্ন চারটি ইউনিয়ন(ভাসান্যাদম, বগাচতর, গুলশাখালী ও আমতলী) নিয়ে একটি উপজেলা গঠন করার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।।

 

লেখক : পেশায় শিক্ষক

আরো দেখুন

আঞ্চলিক রাজনীতির জিঘাংসার শিকার এক বৃদ্ধা মা

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার রুপকারী ইউনিয়নে মঙ্গলাদেবী চাকমা (৫৫) নামে বৃদ্ধা এক নারীকে পিটিয়ে আহত করা …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

2 × 4 =