রাঙামাটিলিড

পুরো জেলায় সম উন্নয়নের পরামর্শ দীপংকরের

কাউখালীতে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সংবর্ধনা

হেফাজত সবুজ, জিয়াউল জিয়া ও জয়নুল আবেদীন ॥
শীঘ্রই রাউজান থেকে রাঙামাটি পর্যন্ত চার লেন সড়ক নির্মাণ করা হবে ঘোষণা দিয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার বলেছেন, রাঙামাটি পর্যটন নগরী। পর্যটনে নগরীতে উন্নত সড়ক ব্যবস্থা না থাকলে পর্যটকরা আগ্রহ হারাবে, যেহেতু রাউজান পর্যন্ত চার লেন নির্মিত হচ্ছে, সহসাই রাঙামাটিতে সড়কটিও চার লেনে উন্নীত হবে। তিনি বলেন, অনেকেই আশঙ্কা করছেন পাহাড়ি সড়কে কিভাবে চার লেন নির্মিত হবে, সে সমাধানও আমরা নিয়ে রেখেছি। কাপ্তাই হ্রদ ড্রেজিং করে পলি অপসারণ করে সেগুলো সড়ক নির্মাণে ব্যবহার করা হবে। কাপ্তাই হ্রদ ড্রেজিংয়ের জন্য ডিপিপি প্রণয়ন করা হয়েছে। তিনি শনিবার বিকেলে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের নব মনোনীত চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দদের সংবর্ধনা প্রদানকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। কাউখালী উপজেলা পরিষদের মাঠে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, আপনাদের অনেক দায়িত্ব, রাঙামাটি পুরো জেলাকে সমানভাবে উন্নয়ন করতে হবে। কেউ যাতে বলতে না পারে জেলা পরিষদ দুর্নীতির আখড়া হয়ে উঠেছে। কেউ যাতে বলতে না পারে এখানে চাকরি জন্য টাকা লাগে। টাকা নাই তো চাকরি নাই। এমন কিছু শুনলে বা জানতে পারলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। সব কিছু সঠিকভাবে করতে হবে, মেধাবিরা যাতে বঞ্চিত না হয়, সেদিকে কঠোর নজর রাখতে হবে।

এসময় তিনি আরও বলেন, আমরা ৫ বছরের জন্য নির্বাচিত হই। তাই বলে শুধু ৫ বছরের জন্যই আমরা চিন্তা করি তা না। নৌকা আছে, আমি আছি, আওয়ামী লীগ আছে, উন্নয়ন আছে। আমার চিন্তা করি সুদূর প্রসারী উন্নয়নের। এসরকারের আমলে পালটে যাবে কাউখালী উপজেলার চিত্র। যদি কেউ এই আগামী ৩ বছর বাহিরে থাকে তবে ৩ বছর পর কাউখালী আর চিনতে পারবে না।

তিনি বলেন, আমরা অবৈধ অস্ত্রের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। বিএনপি সহ বড়বড় দলগুলো কখনই পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্রের বিরুদ্ধে কথা বলে নাই। আমাদের দাবির ফলে সেনাবাহিনীর অভিযান চালিয়েছে। ফলে এখন চাঁদাবাজি কমেছে। আমরা প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছি অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে আরও অভিযান বাড়ানো হোক। আওয়ামীলীগ সরকার বাংলাদেশের সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে ২০৪১ সালে একটি উন্নয়নশীল দেশে হবে।

কাউখালী উপজেলা পরিষদ এর চেয়ারম্যান সামশু দোহা চৌধুরী এর সভাপতিত্বে কলমপতি ইউনিয়ন পরিষদ এর চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ক্যজাই মারমা এর সঞ্চালয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ এর নব নিযুক্ত চেয়ারম্যান ও কাউখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অংসুইপ্রু চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চিংকিউ রোয়াজা, জেলা পরিষদ সদস্য ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. মুছা মাতব্বর, জেলা পরিষদ সদস্য ও কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসুই ছাইন চৌধুরী, সদস্য প্রিয় নন্দ চাকমা, নিউচিং মারমা, মো. আব্দুর রহিম, দিপ্তীময় তালুকদার, প্রবর্তক চাকমা, ঝর্ণা খীসা, ইলিপন চাকমা, সবির কুমার চাকমা, মোছা. আছমা বেগম বাদল চন্দ্র দে, বিপুল ত্রিপুরা, রেমলিয়ান পাংখোয়া, কাউখালী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এস এম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এরশাদ সরকার, সাবেক যুগ্ন সম্পাদক বেলাল উদ্দিন। সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ক্যচিংমং মারমা সহ জেলা উপজেলা আওয়ামীলীগ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী বলেন, সরকার ও দাদার উন্নয়ন পরিকল্পনায় কাউখালী এগিয়ে যাচ্ছে, উপজেলার সকল ইউনিয়নে বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে, সকল সড়কের সংস্কারের জন্য টেন্ডার হয়ে গেছে, আগামী ৩ বছরে কাউখালী আরো এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, দাদা বাঘাইছড়িতে এমন এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, কাউখালীর মত আর দুএকটা উপজেলা থাকতো তাহলে আমি ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে এমপি হতে পারতাম। আপনারা আমাদের এই অর্জন ধরে রাখতে হবে। তিনি আরও বলেন, দাদা আমাদের ও ভালবাসেন তার প্রমাণ, দাদার হাত ধরে ৪ বার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনোনিত হয়েছে তার মধ্যে ২ বার হয়েছে কাউখালী থেকে। আমাদের কাউখালীতে কোন গ্রুপিং নেই, আমরা সবাই দাদার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। তিনি বলেন, অতীতে সংসদ নির্বাচনে দাদার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী যে ভোট পেয়েছে, আমরা কথা দিচ্ছি আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীর আরও করুণ অবস্থা হবে।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পরিষদের সদস্য হাজি মুছা মাতব্বর নীরবতা ভেঙ্গে রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচনের জন্য আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আকবর হোসেন চৌধুরীরর জন্য ভোট চাইলেন। তিনি বলেন, আপনাদের অনেক আত্মীয় রাঙামাটিতে থাকেন, যারা পৌরসভার ভোটার, আপনারা তাদের অনুরোধ করবেন আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালবাসা দিবসে আওয়ামীলীগ মনোনিত মেয়র প্রার্থী আকবর হোসেন চৌধুরীকে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কাউখালী উপজেলা সর্বস্থরের মানুষের ফুলেল ভালোবাসায় সিক্ত হন সংবর্ধিত জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, সদস্য ও রাঙামাটি সাংসদ দীপকংকর তালুকদার এমপি।

শেষে এলজিএসপি এর অর্থায়নে উপজেলা ৪টি ইউনিয়ন পরিষদে কম্পিউটার ও প্রিন্টার প্রদান করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button