ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

পাহাড় ধসে যে ক্ষতি হলো রাঙামাটিতে

১২ ও ১৩ জুন রাঙামাটিতে সংঘটিত পাহাড় ধসে সারা জেলা জুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। রাঙামাটি জেলার ১০টি উপজেলা, ২টি পৌরসভা, ৫০টি ইউনিয়ন কম বেশি ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছে। এই জেলার মোট ১৮,৫৫৮টি পরিবারের ১,২৩,১২৭ জন লোক পাহাড় ধস দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এছাড়া রাঙামাটি জেলায় এই দুর্ঘটনায় মোট ১২০ জন নিহত এবং ১৯২ জন আহত হয়।

রাঙামাটি জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন দপ্তর থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে সারা জেলা জুড়ে ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে:
রাঙামাটি সদর: রাঙামাটি সদর উপজেলায় ৬টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ২৩২ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ৪০,৭২৮ জন, মৃতের সংখ্যা ১২ জন, খুব বেশি আহত ৯ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৪১০৮টি, সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ১৯১টি, আংশিকরূপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৩৭৪টি, হাঁসমুরগীর ক্ষতি ৯০৭০টির ১৬,৩০,০০০ টাকা, ফসলাদি বিনষ্ট ১৮১ হেক্টর জমি, ধ্বংস প্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০৫টি, কলেজ ০১টি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ১৯টি, ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদ/মন্দির ০৪টি, ধ্বংসপ্রাপ্ত সড়ক ৯.৪২ কি:মি: পাকা রাস্তা, ক্ষতিগ্রস্থ বন ২৫,৬৬,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যুৎ ৫,৪৯,৩৮,৫০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত টেলিযোগাযোগ তার ১,১৯,০০,০০০ টাকা, মৎস্য খামার ৫টি, ক্ষতি ৭,২০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ৬৯টি, হস্তচালিত নলকুপ ৬২টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ২টি, তাত ১টি, অন্যান্য’র মধ্যে ১০টি পর্যটন এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিলাইছড়ি: রাঙামাটি বিলাইছড়ি উপজেলায় ০৪টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৩০০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ১৫,০০০ জন, মৃতের সংখ্যা ০২ জন, খুব বেশি আহত ০৪ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৩,১০০টি, সম্পূর্ণরুপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ১০৭টি, আংশিকরূপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ১,৯৪২টি, ফসলাদি বিনষ্ট ১৯৫.১ হেক্টর জমি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০২টি, কলেজ ০১টি, ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদ/মন্দির ০১টি, মৎস্য খামার ০১টি, ক্ষতি ১২,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপসমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ১২টি, হস্তচালিত নলকুপ ১০টি।

কাউখালী: রাঙামাটি কাউখালী উপজেলায় ০৪টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ২৫০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ১৮,০০০ জন, মৃতের সংখ্যা ২১ জন, খুব বেশি আহত ১৫ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ২,৮০০টি, সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ২৩৪টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৯০০টি, ফসলাদি বিনষ্ট ১৫৮.৭১ হেক্টর জমি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০৮টি, মৎস্য খামার ১১টি, ক্ষতি ২,৭০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্থ নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ১৯টি, হস্তচালিত নলকুপ ২৭টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ০৭টি।

কাপ্তাই: রাঙামাটি কাপ্তাই উপজেলায় ০৫টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৫০.৫০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ৭০৮ জন, মৃতের সংখ্যা ১৮ জন, খুব বেশি আহত ৬৪ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ২১৭টি, সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ২১৭টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ২৯৬টি, হাঁসমুরগীর ক্ষতি ৪,৩০০টির ১৩,১৮,০০০ টাকা, ফসলাদি বিনষ্ট ৫০.১ হেক্টর জমি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০৯টি, মৎস্য খামার ০২টি, ক্ষতি ৪,০০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ৩১টি, হস্তচালিত নলকুপ ২৭টি।
জুরাছড়ি: রাঙামাটি জুরাছড়ি উপজেলায় ০৪টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৬০৬ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ২,২৩৬ জন, মৃতের সংখ্যা ০৬ জন, খুব বেশি আহত ০৫ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৫৫৯টি, সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ৬১টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৫৮১টি, ফসলাদি বিনষ্ট ২.৪৫ হেক্টর জমি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ২২টি, মৎস্য খামার ০৩টি, ক্ষতি ২,৪০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপসমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ০৯টি, হস্তচালিত নলকুপ ০৮টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ০৫টি।

রাজস্থলী: রাঙামাটি রাজস্থলী উপজেলায় ০৩টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৩০.২০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ১,৬০৫ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৫৪৮টি, সম্পূর্ণরুপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ১০৫টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৪৪৩টি, ফসলাদি বিনষ্ট ৭০.১ হেক্টর জমি, মৎস্য খামার ০৩টি, ক্ষতি ৩,০০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ১৫টি, হস্তচালিত নলকুপ ১৪টি।

নানিয়ারচর: রাঙামাটি নানিয়ারচর উপজেলায় ০৪টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৯০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ২,০০০ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৮০০টি, আংশিকরূপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ২০০টি, গবাদি পশুর ক্ষতি ৩৪টি, ২৮,৪৬,০০০টাকা, হাঁসমুরগীর ক্ষতি ২০০টির ৫০,০০০ টাকা, ফসলাদি বিনষ্ট ৯১ হেক্টর জমি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০৪টি, মৎস্য খামার ০৯টি, ক্ষতি ২,১৬,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ২৬টি, হস্তচালিত নলকুপ ১৯টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ০৫টি।

বরকল: রাঙামাটি বরকল উপজেলায় ৫টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ১৫০.০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ২৬,৫০০ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৫,৩০০টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ১,৫০০টি, ফসলাদি বিনষ্ট ৬১৫.৩ হেক্টর জমি, ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদ/মন্দির ০১টি, মৎস্য খামার ০২টি, ক্ষতি ১,৬০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ১৪টি, হস্তচালিত নলকুপ ১৫টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ২টি।

লংগদু: রাঙামাটি লংগদু উপজেলায় ০৭টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৫২০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ৫,২০০ জন, আংশিকরুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ১,৩০০টি, ফসলাদি বিনষ্ট ১৬ হেক্টর জমি, ধ্বংসপ্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০১টি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০১টি, ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদ/মন্দির ০৩টি, মৎস্য খামার ০৪টি, ক্ষতি ৬,২০,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ১৯টি, হস্তচালিত নলকুপ ১৮টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ২টি।

বাঘাইছড়ি: রাঙামাটি বাঘাইছড়ি উপজেলায় ০১টি পৌরসভা ও ০৮টি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ৪৭৭.২২ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ৪,৯০০ জন, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ১,২২৫টি, ফসলাদি বিনষ্ট ২৭৭ হেক্টর জমি, ধ্বংস প্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০১টি, মৎস্য খামার ০৩টি, ক্ষতি ১,৬৫,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ২৪টি, হস্তচালিত নলকুপ ১৯টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ০৭টি।

রাঙামাটি পৌরসভা: রাঙামাটি পৌরসভার ৩.০০ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি, ৪.৫০ বর্গ কি:মি: এলাকা বেশি এবং ১১.৫০ বর্গ কি:মি: এলাকা আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ৬,২৫০ জন, মৃতের সংখ্যা ৬১ জন, খুব বেশি আহত ১০ জন, বেশি ১৮ জন, আংশিক ৬৭ জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ১,১২৬টি, সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ৩১৬টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৭৭৬টি (পৌরসভার অন্য হিসাবগুলো সদর উপজেলা সাথে সংযুক্ত)।
সব মিলিয়ে রাঙামাটি জেলা জুড়ে ক্ষয়ক্ষতি: রাঙামাটি জেলা জুড়ে ১০টি উপজেলা, ০২টি পৌরসভা, ৫০টি ইউনিয়ন মিলে ২৭০৮.৯২ বর্গ কি:মি: এলাকা খুব বেশি, ৪.৫০ বর্গ কি:মি: এলাকা বেশি এবং ১১.৫০ বর্গ কি:মি: এলাকা আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ১,২৩,১২৭ জন, মৃতের সংখ্যা ১২০ জন, খুব বেশি আহত ১০৭ জন, বেশি ১৮জন, আংশিক ৬৭জন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ১৮,৫৫৮টি, সম্পূর্ণরুপে বিধ্বস্ত বাড়ির সংখ্যা ১,২৩১টি, আংশিক রুপে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির সংখ্যা ৯,৫৩৭টি, গবাদি পশুর ক্ষতি ৩৪টি, ২৮,৪৬,০০০ টাকা, হাঁসমুরগীর ক্ষতি ১৩,৫৭০টির ২৯,৯৮,০০০ টাকা, ফসলাদি বিনষ্ট ১৮৯৯.৩১ হেক্টর জমি, ধ্বংস প্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ০৭টি, কলেজ ০১টি, আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্কুল/মাদ্রাসা ৪৯টি, কলেজ ০১টি, ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদ/মন্দির ০৯টি, ধ্বংসপ্রাপ্ত সড়ক ৯.৪২ কি:মি: পাকা রাস্তা, ক্ষতিগ্রস্ত বন ২৫,৬৬,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যুৎ ৫,৪৯,৩৮,৫০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত টেলিযোগাযোগ তার ১,১৯,০০,০০০ টাকা, মৎস্য খামার ৪৩টি, ক্ষতি ৩১,০৩,০০০টাকা, ক্ষতিগ্রস্ত নলকুপ সমূহের মধ্যে অগভীর নলকুপ ২৪৮টি, হস্তচালিত নলকুপ ২১৯টি, পুকুর/জলাশয় ক্ষতি হয়েছে ৩০টি।

রাঙামাটির এই ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে জানতে চাইলে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা বিশ^নাথ মজুমদার বলেন, জুন মাসে রাঙামাটিতে সংঘটিত হওয়া পাহাড় ধস দুর্ঘটনায় রাঙামাটি সদর, পৌরসভা, কাপ্তাই, কাউখালীতে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অন্যগুলো তুলনামূলকভাবে কম। তিনি আরো বলেন, যারা ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছে তাদের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে ত্রাণ আসছে। সকল ত্রাণই তাদেরকে প্রদান করা হচ্ছে এবং যা আসবে সবই প্রদান করা হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

১টি কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 3 =

Back to top button