ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

‘পাহাড়কে অস্থিতিশীল করতে একটি মহল পাঁয়তারা চালাচ্ছে’

‘পাহাড়কে অস্থিতিশীল করার জন্য একটি মহল পাঁয়তারা চালাচ্ছে’ অভিযোগ করে আওয়ামীলীগ নেতারা বলেছেন, পার্বত্য শান্তি চুক্তির মাধ্যমে পাহাড়ে শান্তি আসলেও একটি মহল আবারো অবৈধ অস্ত্রের মাধ্যমে শান্তি বিনষ্ট করছে। যা কখনো মেনে নেয়া হবে না।’ পাহাড় থেকে অবৈধ অস্ত্র ও চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়ে তারা বলেছেন,পাহাড়ে আওয়ামীলীগকে ঠেকাতে কর্মীদের হত্যা ও হুমকি দেয়া হচ্ছে এবং অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে জোর পূর্বক আওয়ামীলীগ থেকে পদত্যাগে বাধ্য করা হচ্ছে।’

একই সময় সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য দীপংকর তালুকদার বলেন, পাহাড়ে কিভাবে আওয়ামীলীগ টিকে আছে সেটি আমাদের নেত্রী জানেন কিনা জানি না। পাহাড়ে শান্তির জন্য পার্বত্য শান্তি চুক্তি করা হয় কিন্তু চুক্তির কয়েক মাস পর থেকে আবারো অশান্ত হতে থাকে পাহাড়। আগে একটি সশস্ত্র সংগঠন থাকলেও এখন পাহাড়ে ৪টি সশস্ত্র সংগঠন আছে। তারা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে চাঁদাবাজি করে যাচ্ছে। র‌্যাব ও সরকারের সকল বাহিনীর সমন্বয়ে চিরুনি অভিযান পরিচালনা মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহবান জানান ১৯৯১ সাল থেকে অনুষ্ঠিত প্রতিটি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকে রাঙামাটি আসন থেকে প্রার্থী হওয়া এই প্রভাবশালী নেতা,যিনি একই সাথে বর্তমানে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন।

রোববার সকালে রাঙামাটি জেলা যুব মহিলা লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেছেন।

রাঙামাটি শহরের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে রাঙামাটি জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক রোকেয়া আখতার’র সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সাধারন সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিল।

এসময় বক্তব্য রাখেন, রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি নার্গিস মাহাতাব, দপ্তর সম্পাদক বীনা চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহিতা দেওয়ানসহ কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সাধারন সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিল বলেন, বিএনপি জামাত জোট পার্বত্য চুক্তিকে অসম্মান করেছে, অপমান করেছে। বিএনপি জামাত জোট ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের এখানে এনে অস্ত্রের ট্রেনিং দিয়েছে, পাহাড়কে অশান্ত করেছে, অস্ত্রের ব্যবসা করেছে। ভারতের দশ ট্রাক অস্ত্রের চালান আমরা এই চট্টগ্রামে দেখেছি। এই পাহাড়কে অশান্ত করার জন্য বিএনপি জামাত জোট এককভাবে দায়ি।

‘শেখ হাসিনা পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা করবেই’ এমন বক্তব্য জানিয়ে অপু উকিল আরো বলেন, পাহাড়ে যদি আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা অপমান অপদস্থ হয় আমরা মানবো না। এই এলাকার আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা মানবে না। যেখানে অশান্ত হবে। আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের ওপর জলুম আসবে, জ¦ালা করবে তাদের অবশ্যই বিচার করতে হবে।

সম্মেলন শেষে রোকেয়া আকতারকে সভাপতি ও লেখিকা চাকমাকে সাধারন সম্পাদক হিসেবে ঘোষণা করা হয়। সভাপতি সম্পাদককে আগামী তিনমাসের মধ্যে ৮১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে কেন্দ্রে অনুমোদনের পাঠানোর নির্দেশ দেন কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক অপু উকিল। এরই মধ্যে যেসব ইউনিট কমিটি এখনো গঠিত হয়নি,সেসব কমিটি গঠনের কাজও শেষ করার নির্দেশনা দেন তিনি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

১টি কমেন্ট

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button
%d bloggers like this: