ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

পার্বত্য তিন জেলায় ৫.৯ মাত্রার ভূমিকম্প

বৃহস্পতিবার শেষ বিকেলে হঠাৎ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল পার্বত্য চট্টগ্রামও। বিকাল আনুমানিক ৫.৪৫ মিনিট ২৩ সেকেন্ডে এই ভূমিকম্প কয়েক সেকেন্ড স্থায়ী ছিলো। তবে তাৎক্ষনিক কোথাও কোন ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা থেকেই আমাদের প্রতিনিধিরা ভূমিকম্পের খবর নিশ্চিত করেছেন।

ভূমিকম্প পর্যবেক্ষন করা করা আন্তর্জাতিক সাইট ইউএসজিএস জানিয়েছে, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিলো ভারত মিয়ানমার সীমান্তে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিলো ৫.৯,যা বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ের সবচে বড় মাত্রার ভূকম্পন। প্রতিষ্ঠানটির তথ্য বলছে,গত ৫ মাসে এটিই সর্বোচ্চ মাত্রার ভূকম্পন পৃথিবীতে। পাঁচ মাস আগে একই উৎপত্তিস্থল থেকে ৪.৬ মাত্রার আরেকটি ভূকম্পন হয়েছিলো।

ভূমিকম্প অনুভূত হওয়ার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানান ধরণের প্রতিক্রিয়া আসতে শুরু করে।

প্রসঙ্গত, পার্বত্য রাঙামাটি জেলার ভারত সীমান্তবর্তী বরকলে ২০০৮ সালের জানুয়ারি মাসে ১৭ দিনের ব্যবধানে ১৮ বার ভূকম্পন হয়েছে। এর প্রথম দফা ভূমিকম্প ১৩ জানুয়ারি এবং সর্বশেষ ৩০ জানুয়ারি সংঘটিত হয়। ১৩ ও ৩০ জানুয়ারি পার্শ্ববর্তী চট্টগ্রামসহ পার্বত্য তিন জেলায় কয়েক দফা ছোট-বড় ঝাঁকুনি অনুভূত হলেও ওই সময়ের মধ্যে শুধু বরকলেই ১৮ বার ভূকম্পন হয় বলে আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা জানান। ভূমিকম্পের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে যে তিনটি জোনে ভাগ করা হয়েছে তার মধ্যে পার্বত্য জেলাগুলোর অবস্থান ১ নম্বরে চিহ্নিত হয়েছে। বারবার ভূমিকম্পের ফলে বরকল উপজেলার অধিকাংশ সরকারি স্থাপনার পাকা দালানসহ কয়েকটি উঁচু পাহাড়ের মাঝখানে ফাটল দেখা দিয়েছিল। ভূতাত্ত্বিক বিশেষজ্ঞরা বলেন, ১৩ জানুয়ারি ভোররাতে বরকলে সংঘটিত মাঝারি ধরনের ভূমিকম্প প্রায় ২৫ থেকে ৩০ সেকেন্ড স্থায়ী ছিল। ওই সময় তিন দফায় মাঝারি কম্পন অনুভূত হয়। ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল বাংলাদেশ-ভারতের সীমান্তবর্তী এবং চট্টগ্রামের আমবাগান ভূকম্পন পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র থেকে ৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্ব ও ঢাকা ভূকম্পন কেন্দ্র থেকে ২৫৬ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে। রাঙামাটির বরকল উপজেলার কাছাকাছি এর উৎপত্তিস্থল হওয়ায় রাঙামাটির মানুষ ভূমিকম্পের মাত্রা অধিক অনুভব করে। ভূমিকম্পের মাত্রাটি ছিল রিখটার স্কেলে ৪.৯। এরপর ২০০৯ থেকে ২০২০ প্রতিবছরই ভূমিকম্প সংঘটিত হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 3 =

Back to top button