লিড

পানি স্বল্পতায় কমেছে বিদ্যুৎ উৎপাদন

কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র

জিয়াউল জিয়া
গত সেপ্টেম্বর থেকে বৃষ্টিপাত না হওয়া এবং প্রচণ্ড তাপদাহের কারণে রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদের পানি দ্রুত কমছে। একই সঙ্গে কমছে বিদ্যুৎ উৎপাদন। বিদ্যুৎ উৎপাদন কমে যাওয়ায় বাড়ছে লোডশেডিং। অন্যদিকে কয়েক দিনের ভ্যাপসা গরমে জন-জীবনে নেমে এসেছে দুর্ভোগ। বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষের দুর্ভোগ আরও বেশি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রতিবছর বর্ষায় পাহাড়ি ঢলের সাথে আসা ময়লা, আবর্জনার কারণে এবং হ্রদের আশেপাশে বসবাসরতদের নির্বিচারে বর্জ্য ফেলায় হ্রদের গভীরতা দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। পানির অভাবে কেন্দ্রের সব ক’টি ইউনিট সচল রাখা সম্ভব হচ্ছে না। এতে বিদ্যুৎ উৎপাদন সর্বনিম্ন পর্যায়ে ঠেকেছে। রুলকার্ভ অনুযায়ী এসময় হ্রদে পানি থাকার কথা ৮৮.৮৬ এমএসএল (মীন সী লেভেল) বর্তমানে পানি আছে ৭৬.০৮ এমএসএল।

কাপ্তাই ইঞ্জিনচালিত বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. ইদ্রিছ জানান, বর্তমানে হ্রদের পানি শুকিয়ে যাওয়ার ফলে ডুবোচরের সৃষ্টি হয়েছে। হ্রদের বিভিন্ন স্থানে জেগে উঠা চরে ইঞ্জিনচালিত বোট চালানো সম্ভব হচ্ছে না। হ্রদে পানি বৃদ্ধি না হলে নৌ-পথের সাথে সংশ্লিষ্ট চালকরা তাদের দৈনন্দিন কর্মে ফিরতে পারছেনা।

কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক এটিএম আবদুজ্জাহের জানান, কেন্দ্রের ৫টি ইউনিটের মধ্যে বর্তমানে ১টি ইউনিট চালু রয়েছে। কেন্দ্রের ৫টি ইউনিট থেকে দৈনিক ২৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা থাকলেও পানির অভাবে ১টি ইউনিট থেকে প্রতিদিন ২২-২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। রুলকার্ভ অনুযায়ী এসময় হ্রদে পানি থাকার কথা ৮৮.৮৬ এমএসএল (মীন সী লেভেল) বর্তমানে পানি আছে ৭৬.০৮ এমএসএল।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button