খাগড়াছড়িব্রেকিং

পাচারের সময় অবৈধ কাঠ জব্দ করলো সেনাবাহিনী

খাগড়াছড়ি মাটিরাঙ্গায় অবৈধ ভাবে কাঠ পাচারের সময় জব্দ করেছে মাটিরাঙ্গা সেনাবাহিনী। গতকাল দুপুরের দিকে মাটিরাঙ্গা জোনের নিরাপত্তা বাহিনী গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাঙ্গামাটি বনবিভাগের বাঘাইহাট ফরেষ্ট রেঞ্জ থেকে বৈধ টিপির মাধ্যমে সরকারী রির্জাভ ফরেষ্টের চাম্পাফুল কাঠ পাচারের সময় মাটিরাঙ্গা জোনের আরপি গেইটে ট্রাকটি (চট্র-মেট্রো ট-১১-০৮৫২) আটক করে।

পরে জোন অধিনায়কের নির্দেশে মাটিরাঙ্গা বনবিভাগে গাড়িটি হস্তান্তর করা হয়। অবৈধভাবে পাচারের ব্যর্থ চেষ্ঠার পর দিনভর বনবিভাগের নাটকীয়তার পর সন্ধ্যার সময় গাড়িটি আনলোড করে প্রথমে বনবিভাগ চাম্পাফুল বললেও পরে বনবিভাগের উপরের মহলের ফোন আর অবৈধ সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের ফোনে চাম্পাফুল হয়ে গেল চাপালিশ। জানা যায়, চাপালিশ কাঠ গুলোও সরকারী রির্জাভ ফরেষ্টের।

বাঘাইহাট রেঞ্জ কর্মকর্তা মো: ফজলুর রহমান মিয়ার কাছে অবৈধ চাম্পাফুল কাঠের সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি এই প্রতিবেদককে মুঠোফোনে বলেন, এক পিস চাম্পাফুল কাঠ পাবেন না এবং চাপালিশ কাঠ ও বাড়তি পাবেন না। বিশেষ সূত্রে জানা যায়, রির্জাভ ফরেষ্টের চাপালিশ কাঠ কোন জোত বা টিপি দিয়ে নিতে পারবেনা এটি সরকারী বাগানের কাঠ। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে বাঘাইহাট রেঞ্জ কর্মকর্তা রির্জাভ ফরেষ্টের কাঠ রক্ষা না করে অসাধু কাঠব্যবসায়ীদের সাথে হাত মিলিয়ে শতবর্ষী চাম্পাফুল কাঠ, চাপালিশ কাঠ ধ্বংস করে দিচ্ছে বলে বাঘাইহাটের স্থানীয় জনগণ মন্তব্য করেন।

গাড়ীতে মোট কাঠ পাওয়া যায়-৫৭৯.১৪ টিবিতে ছিলো ৪৫৪.৩১ -গাড়ীতে অতিরিক্ত বহন ১২৫.৮৩ গাড়ীতে পাওয়া যায় ৩৮ পিছ। ১৬ পিছ:টিবিতেঃ ২৩৫.৯৫ পাওয়া যায়ঃ ৩২১.৫৫ ।৪পিছ অতিরিক্তঃ ৮৪.৮৪ ১৮ পিছ টিবির সাথে মিলঃ ১৭২.৭৫ মোট অবৈধ কাঠ ৪০৬.৩৯ ঘন ফুট।

মাটিরাঙ্গা রেঞ্জকর্মকর্তা মো: মোশারফ হোসেনের কাছে অবৈধ চাপালিশ কাঠের সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ট্রানজিট রুলে ১৯৭২ সালের বন আইনে যাহা (২০০০সালের সংশোধিত) বন আইনে ৪১ নং ধারায় অপরাধটি সংঘটিত হয়েছে ৪২ ধারায় অবৈধ কাঠের গাড়ীর চালক, কাঠের মালিক, শাস্তির বিধান রয়েছে বলেও জানান তিনি।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

১টি কমেন্ট

Leave a Reply

Back to top button
%d bloggers like this: