বান্দরবানব্রেকিংলিড

পর্যটক নেই বান্দরবানে

পর্যটন শিল্পের ধস কাটেনি এবারের ঈদেও। আশানুরুপ পর্যটকের আগমন না ঘটায় পাহাড়ের অন্যতম অর্থনৈতিক আয়ের খাত পর্যটন শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। চরম হতাশা দেয়া দিয়েছে এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের মধ্যে। দুটি ঈদের ছুটিকে কেন্দ্র করে বান্দরবানে পর্যটন ব্যবসা জমে উঠে। কিন্তু এবছর দুটি ঈদের ছুটিতেও আশানুরুপ পর্যটকের আগমন না ঘটায় লোকসান গুনছে পর্যটকের সঙ্গে জড়িত আবাসিক হোটেল-মোটেল, রেষ্টুরেন্ট, পরিবহণ, হস্তশিল্প, তাতঁশিল্প’সহ এ অঞ্চলের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীরাও। কারণ পর্যটন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছেন পাহাড়ীরাও। আশানুরুপ পর্যটকের সাড়া না মেলায় প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পর অর্থনেতিক বিপর্যয়ের শঙ্কা করছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। হোটেল ফোর স্টারের পরিচালক রিপন চৌধুরী বলেন, পর্যটকের জন্য হাহাকার তৈরি হয়েছে আবাসিক হোটেল-মোটেল, রেষ্টুরেন্ট এবং পরিবহণ গুলোতে। রহজানের ঈদের পর কোরবানির ঈদে আশানুরুপ পর্যটকের আগমন ঘটবে আশায় বুক বেধেছিল ব্যবসায়ীরা। কিন্তু তেমনটি ঘটেনি। সবগুলো রুম ফাঁকা আবাসিক হোটেল গুলোর। এ ক্ষতি কোনো ভাবেই পুষিয়ে নেয়া সম্ভব নয়।
আবাসিক হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঈদের ছুটিতেও পর্যটক নেই বান্দরবানে। এমন দৃশ্য আগে কখনো দেখিনি। পর্যটন শিল্পে এটি একটি বিপর্যয়। পর্যটন শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতির মুখোমুখি পড়েছে। পাহাড়ে অর্থনৈতিক ভাবেও এর প্রভাব পড়ছে। লোকসান কমাতে অনেকে হোটেলের কর্মচারী ছাটাই এর চিন্তা ভাবনা করছে। এ বছর পর্যটন শিল্পে যে ধস নেমেছে, সেটি আগামী বছরও পুষিয়ে নেয়া সম্ভব হবেনা।
পালকি গেস্ট হাউজের ম্যানেজার মোহাম্মদ শাহীন বলেন, দুটি ঈদের ছুটিতেও পর্যটকের আশানুরুপ আগমন ঘটেনি। এপ্রিল মাস থেকে এ পর্যন্ত লোকসান গুনছে তারা। সবগুলো রুম ফাঁকা ঈদের ছুটিতেও। চার মাস ধরে বেতন পাইনা।
ট্যুরিস্ট পরিবহণ শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ কামাল বলেন, প্রায় চার মাস ধরে বান্দরবানে পর্যটক কম। ট্যুরিস্ট গাড়ীর মালিক-শ্রমিকরা অনেক কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। প্রতিবছর ঈদের পরের দুদিনের জন্য আগেই অধিকাংশ গাড়ী বুকিং হয়ে যেত, কিন্তু এবছর দুটি ঈদেই তেমনটি ঘটেনি। আশানুুরুপ পর্যটক না আসায় অনেক শ্রমিকের ঈদ কেটেছে অর্থকষ্টে।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক বলেন, উৎসব মানেই বান্দরবানে পর্যটকের উপচে পড়া ভীড়। কিন্তু এবছর তেমনটি ঘটেনি। পর্যটকদের বরণে সবধরণের প্রস্তুতি নেয়ার পরও আশানুরুপ পর্যটকে আগমন ঘটেনি।

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button