ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

পর্যটকে মুখর পার্বত্য শহর রাঙামাটি

ভ্রমণপ্রিয় হাজারো মানুষের ভিড় এখন পার্বত্য পর্যটন শহর রাঙামাটিতে। যদিও শীতের মধ্যে ধীরলয়ে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ, তথাপি হ্রদ পাহাড়ের সবুজ এই শহরের অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতিদিনই আসছেন নানা বয়সী শত শত মানুষ। মহান বিজয় দিবসকে কেন্দ্র করে ঝুলন্ত সেতু, পলওয়েল পার্ক, আরণ্যক, সুবলং ঝর্ণা এবং সাজেকসহ নানা পর্যটনস্পর্টে পর্যটকদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে। নাগরিক জীবনের যান্ত্রিকতা পিছনে ফেলে প্রকৃতির সান্নিধ্য পেতে পর্যটকরা এখন ভিড় করছে পাহাড়ের দেশ রাঙামাটিতে। শহরের হোটেল-মোটেলগুলোর অধিকাংশ রুম বুকিং রয়েছে।

নগরজীবনের ক্লান্তি দুর করতে পাহাড়ি এই জনপদে ভিড় করা এসব পর্যটকরা রাঙামাটির অপার সৌন্দর্যে মুগ্ধ। পাহাড়ের সৌন্দর্যে আনন্দে আত্মহারা পর্যটকরাও। কিন্তু সেভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখা যায়নি। তবে মাস্ক ছাড়া কাউকে পর্যটন এলাকাতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না বলে জানান পর্যটন কর্পোরেশনরে ব্যবস্থাক।

ঢাকা থেকে ঘুরতে আসা আইরিন আক্তার বলেন, করোনার কারনে দীর্ঘদিন ঘরবন্দি থাকার পর ছুটি পেয়ে রাঙামাটির প্রাকৃতি দেখেতে চলে আসা। এই সুয়োগটি মিস করতে চাইনি। লেক, পাহাড় ও ঝুলন্ত সেতু দেখে মনটাই ভালো হয়ে গেল। সব কিছু মিলে খুব মজা করছি।

মো. নাহিদ হাসান বলেন, সাজেক ঘুরে রাঙামাটি আসলাম, বাংলাদেশ যে কত সুন্দর তা রাঙামাটি না আসলে বোঝা যাবে না। আমাদের দেশটা কত সুন্দর এখানে না এলে কখনোই জানা হতো না। এখানকার পরিবেশ অসম্ভব সুন্দর।

কেউ কেউ অযুহাত দিয়ে বলছেন, ছবি তোলার জন্য মাস্ক খুলে রাখছি, আবার ছবি তোলা শেষ হলে মাস্ক পরিধান করছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার চেষ্টার করার কথাও জানালেন কেউ কেউ।

মো. সোহেল রানা বলেন, আমরা যে কতটা অসচেতন এটা তার প্রমাণ। না মানার কোন সুযোগ নেই। নিজের নিরাপত্তার জন্য অবশ্যই মানা জরুরী। জোর করে কাউকে সচেতনা করা যায়না। নিজের জন্য নিজেকে সচেতন হতে হবে।

পর্যটন ঘাটের বোট ইজারাদার মো. রহমত আলী চৌধুরী বলেন, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দীর্ঘদিন পর এমন পর্যটন রাঙামাটিতে দেখা গিয়েছে। সুবলংসহ লেকে ঘাট থেকে ৫০-৬০ বোট ছেড়ে গেছে।

রাঙামাটি পর্যটন কর্পোরেশন, ব্যবস্থাপক, সৃজন বিকাশ বড়ুয়া বলেছেন, আমাদের হোটেল প্রায় শতভাগ বুকিং রয়েছে। মহান বিজয় দিবস ঝুলন্ত সেতু দেখতে কয়েক হাজার মানুষ ভিড় করেছে আজ। স্বাস্থ্য বিধি বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, আমরা মাস্ক পরিধান ছাড়া কাউকে ভিতরে প্রবেশ করতে দিচ্ছি না। কিছু সচেতনা নিজেদেরও থাকা কথা বলেন এই ব্যবস্থাপক।

স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ছুটির দিনগুলোতে রাঙামাটিতে দৈনিক ২০ হাজার পর্যটকের আগমন ঘটে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button