অরণ্যসুন্দরীলিড

পর্যটকদের নতুন ঠিকানা হবে ‘কাট্টলি বিল’

হচ্ছে পর্যটন স্পট, নির্মিত হবে ওয়াচ টাওয়ারসহ নানান স্থাপনা

ওমর ফারুক মুছা, লংগদু
অবশেষে রাঙামাটির লংগদু উপজেলায় পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটতে যাচ্ছে।  উপজেলার ভাসাইন্যাদম ইউনিয়ন এর অন্তর্ভুক্ত কাপ্তাই লেকের সবচে প্রশস্থ অংশ হিসেবে পরিচিত অতিথি পাখির চারণভূমি ‘কাট্টলি বিলে’ পর্যটকদের জন্য একটি অবজারভেশন টাওয়ার বা ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণের সাইট চূড়ান্ত ও কাজ শুরুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। লংগদু উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে ও পরিষদের অর্থায়নে এই টাওয়ার নির্মাণ করা হবে। একই সাথে বাস্তবায়ন করা হবে আরো বেশ কিছু কাজও।
বুধবার লংগদু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাইনুল আবেদীন ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণের স্থান পরিদর্শণ করেছেন। এসময় লংগদু উপজেলা প্রকৌশলী ড. মোঃ জিয়াউল ইসলাম মজুমদার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাশ বাবু উপস্থিত ছিলেন।

ছবি : পলাশ বড়ুয়া

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাইনুল আবেদীন জানান, চারপাশে পাহাড় বেষ্টিত কাপ্তাই লেকের অংশ এই কাট্টলি বিল অত্যন্ত চমৎকার একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার দাবিদার।

ছবি : পলাশ বড়ুয়া

রাঙামাটি জেলা শহরের সন্নিকটে অবস্থিত সুবলং থেকে নৌপথে ২৫-৩০ মিনিটের দূরত্বে অবস্থিত এই কাট্টলি বিল অত্যন্ত নয়নাভিরাম এবং সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশ সম্বলিত স্থান। কাট্টলি বাজারের খুবই সন্নিকটে অবস্থিত মাইজ্জার টিলা নামক স্থানে এই টাওয়ার নির্মিত হলে দর্শনার্থীগণ টাওয়ার এর চূড়ায় উঠে অত্যন্ত মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশ উপভোগ করতে পারবেন। এক পাশে বিজিবি ক্যাম্প, অন্যপাশে কাট্টলীর বাজারে পুলিশ ফাঁড়ি থাকায় জায়গাটা পর্যটকদের জন্য নিরাপদ হবে। এস্থানটা ভবিষ্যতে আরো সম্মৃদ্ধ পর্যটন স্পট হবে। ৫০ ফুট উঁচু এই টাওয়ারের ছাদে সোলার লাইট স্থাপন করা হবে। এতে করে এটি রাতে বাতিঘরের কাজ করবে। পর্যটকদের টপে উঠার ব্যাবস্থা থাকবে। বিস্তৃত লেক, পাহাড়, স্বচ্ছ পানিতে গোসল, চাইলে পাহাড় চূড়া ও লেকের জলের মিতালীর সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত অবলোকন করা যাবে।

পর্যায়ক্রমে এখানে ওয়াশরুম, খাবার ও পানীয় জলের সুব্যবস্থা সহ রাত কাটানোর কটেজ, মাছ ধরার ফিসিং জোন, গোসল করার জন্য সুইমিং কর্ণার, সৌন্দর্য্যবর্ধক বিভিন্ন গাছ সম্বলিত উদ্যান ও ফুলের বাগান, ঝুলন্ত সেতু, নৌকা ও কায়াকিং সহ পর্যাপ্ত বিনোদন এর সুব্যবস্থা করা হবে বলেও জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।

তিনি আরো বলেন আমরা চাই ভবিষ্যতে লংগদু উপজেলা অত্যন্ত সম্ভাবনাময় একটি পর্যটন এলাকা হিসেবে বিকশিত হবে এবং সেই সাথে লংগদুবাসী অর্থনৈতিক ভাবে উপকৃত হবে।

খুব শীঘ্রই এই এলাকায় পরিকল্পিত কার্যক্রম শুরু হবে বলেও নিশ্চিত করেন ইউএনও মাইনুল।

রাঙামাটির পর্যটন বিষয়ক লেখক ইয়াছিন রানা সোহেল বলে, নয়নাভিরাম কাট্টলি বিল বরাবরই পর্যটন সম্ভাবনাময় একটি স্থান। এনিয়ে নানা সময়ে আমরা গণমাধ্যমকর্মীরাও লেখালেখি করেছি। অবশেষে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে জেনে ভালো লাগছে। যদি এটি সত্যিকার অর্থেই করা হয়,তবে এখন রাঙামাটি বেড়াতে আসা পর্যটকদের সুভলং গিয়েই ফিরে আসার পথটি বদলে গিয়ে কাট্টলি অবধি যাবে নিশ্চিত। এর ফলে এই জেলার পর্যটনে গতি আসবে আরো অনেক বেশি,উপকৃত হবেন পর্যটকরাও।

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button