নীড় পাতা / ব্রেকিং / পণ্যবাহী ট্রাকে আগুনের ঘটনায় ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন
parbatyachattagram

পণ্যবাহী ট্রাকে আগুনের ঘটনায় ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন

রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে ‘চাঁদা না দেওয়ায়’ পণ্যবাহী ট্রাকে আগুনের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবিতে মানববন্ধন করেছে ব্যবসায়ীরা। মঙ্গলবার সকালে বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে উপজেলা মসজিদ মার্কেট ও চৌমুহনী ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির আয়োজনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে চৌমুহনী মার্কেট ও উপজেলা মসজিদ মার্কেট কমিটির সভাপতি মো. নিজাম উদ্দিন বাবু’র সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো. আবুল কাইয়ুম, মসজিদ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেন, বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গিয়োস উদ্দিন, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ বাঘাইছড়ি উপজেলার সভাপতি আবছার উদ্দিন প্রমুখ।

মানবন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২১বছরেও পাহাড়ে শান্তি ফেরেনি। ক্রমেই আঞ্চলিক দলগুলোর মধ্যে বিরোধ দেখা দিয়েছে। চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে আধিপত্য বিস্তারে প্রতিনিয়ত প্রাণ ঝরছে পাহাড়ে। অপহরণ, মুক্তিপণ আদায় ও চাঁদাবাজি লেগেই আছে। সর্বশেষ এখন চাঁদা না দেওয়ায় পণ্যবাহী ট্রাকে আগুন দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। আমরা পাহাড়ের মানুষ এমন জিম্মি দশা থেকে মুক্তি চাই।’

উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো. আবুল কাইয়ুম বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামে উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করছে পাহাড়ি সংগঠনগুলো। অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনের পরেও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে তারা। এর আগেও আটারো মাইলে মালবাহী ট্রাকে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছিলো। ইউপিডিএফ (প্রসিত) ও জেএসএস (সন্তু লারমা) যৌথভাবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দায়িত্ব পালন শেষে ফেরার পথে আটজন ভোট কর্মকর্তা-কর্মচারিকে গুলি করে হত্যা করেছিলো।’

এসময় বক্তারা পাহাড়ে আঞ্চলিক দলগুলোর সশস্ত্র তৎপরতা বন্ধে প্রধামন্ত্রীর দৃষ্টি আর্কষন করেন ও পণ্যবাহী ট্রাকে আগুনের ঘটনায় প্রসিত খীসার নেতৃত্বাধীন আঞ্চলিক সংগঠন ইউপিডিএফকে দায়ী করেন। মানববন্ধন শেষে বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আহসান হাবীব জিতুর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন ব্যবসায়ীরা ।

এর আগে গত সোমবার ভোর ছয়টায় বাঘাইছড়ি উপজেলার বাঘাইছড়ি-দীঘিনালা সড়কের রাবার বাগান এলাকায় একটি পণ্যবাহী ট্রাকে আগুন দেয় হয় দুর্বৃত্ত। এ ঘটনার জন্য প্রসিত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেট্রিক ফ্রন্টকে (ইউপিডিএফ) দায়ী করে আসছে ব্যবসায়ীরা। তবে ইউপিডিএফের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, মূলত রাঙামাটির সবচে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা বাঘাইছড়ি। এ উপজেলায় রয়েছে পাহাড়ে বিদ্যমান আঞ্চলিক চারটি সংগঠনেরই কার্যক্রম। এর মধ্যে আগুনের ঘটনা সংঘটিত এলাকাটি ইউপিডিএফের নিয়ন্ত্রণাধীন। তাই এ ঘটনায় অভিযোগের তীরে রয়েছে প্রসিত খীসার ইউপিডিএফ। এর আগে গত ১৮ মার্চ এই উপজেলায় দ্বিতীয় ধাপে উপজেলা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষে ফেরার পথে একই সড়কের আটারো মাইল এলাকায় ব্রাশফায়ারের ঘটনায় আটজন নিহত হন। ওই ঘটনাও ইউপিডিএফকে দায়ী করেছে প্রতিপক্ষ জেএএস-এমএন লারমা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

দুর পাহাড়ে ম্যালেরিয়ার হানা বাড়ছেই

রাঙামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার দুর্গম এলাকায় ম্যালেরিয়া রোগের প্রকোপ বেড়েছে। গত কয়েকদিন ধরে এ উপজেলার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

5 × 4 =