বান্দরবানলিড

নাইক্ষ্যংছড়ি-গর্জনীয়া-বাইশারী ৭ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারহীন যুগ যুগ

মুফিজুর রহমান, নাইক্ষ্যংছড়ি ॥
বান্দরবানের নাইক্ষংছড়ি-গর্জনীয়া-বাইশারীর ৭ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারহীন, অবহেলা ও অযতেœর শিকার যুগ যুগ ধরে। উপজেলা সদর থেকে বাইশারী ইউনিয়নে যেতে হলে পাড়ি দিতে হবে কক্সবাজারের রামু উপজেলার গর্জনীয়া ইউনিয়নের ৭ কিলোমিটার সড়ক পথ। যে সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন তিন ইউনিয়ন বাইশারী, ঈদগড়, গর্জনীয়ার হাজারো মানুষ চলাচল করে থাকেন। সড়কটি যুগ যুগ ধরে সংস্কার না হওয়ায় বর্তমানে যাতায়ত অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

দীর্ঘ দেড় যুগ আগে সড়কটি ব্রীক সলিং দ্বারা উন্নয়ন করা হয়। আর সে থেকে আজ পর্যন্ত কোন ধরনের মেরামত বা সংস্কর করা হয়নি। যার ফলে হাজারো মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই। এসব কথা জনালেন স্থানীয় বাসিন্দা আবু বক্কর, নুরুল আমিন, শাহ আলম সহ অনেকেই।

স্থানীয় বাসিন্দারা আরো জানান, গত দুই বছর আগে হাজারো মানুষের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম বাইশারী-গর্জনিয়া সড়ক নিয়ে মেরামতের দাবীতে শত শত লোকজন বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। তাছাড়া সড়কটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সহ গণমাধ্যমে বেশ কয়েকবার সচিত্র প্রতিবেদনও প্রকাশিত হওয়ার পরও কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ হয়নি। বর্তমানে সড়কটির বড়বিল ইস্কান্দারের বাড়ির পাশ্ববর্তী, থোয়াইংগা বাজারের পার্শে, আদর্শ শিক্ষা নিকেতন সংলগ্ন, থীমছড়ি বাজারের উত্তর ও দক্ষিণ পার্শে, শাহ মোহাম্মদের পাড়া সহ অসংখ্য স্থানে খান খন্দসহ পাহাড়ি ছড়ায় পরিণত হয়েছে।

উক্ত সড়ক দিয়ে গাড়ি চলাচল করতে গিয়ে সকল গাড়ি অকেজো হয়ে পড়েছে বলে জানালেন বাইশারী গর্জনিয়া সড়কের দায়িত্বে নিয়োজিত সিএনজি চালক সমিতির সভাপতি মোঃ শহিদুল্লাহ। সড়কের বেহাল দশার কারনে মুমূর্ষু রোগীকে অনেক সময় কাঁধে বহন করে নিতে হয়। এছাড়া যদিওবা টমটম, সিএনজি করে কেউ যাতায়াত করে থাকে তাহলে সে ও রুগ্ন হয়ে যায় বলে সিএনজির যাত্রী মোঃ জাকের হোসেন।

সরেজমিনে এই প্রতিবেদক বাইশারী-গর্জনিয়া সড়ক ঘুরে দেখা যায় সড়কের বেহাল অবস্থা বাদই দিলাম। দীর্ঘ দেড় যুগ যাবত কালভার্ট-ব্রীজ, নালা নর্দমার ও কোন ধরনের দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়নি।

স্থানীয় লোকজনের দাবি বর্তমান সরকার সারা দেশে উন্নয়ন করছেন। কিন্তু রামু উপজেলার এই ইউনিয়নের মানুষ কেন এত অবহেলিত। জনপ্রতিনিধিরা কি সরকারের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট এসব বিষয়ে অবগত করেন না এ প্রশ্ন আম জনতার।

এ বিষয়ে স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার ও আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল জব্বার জানান, এ সড়কের বিষয় নিয়ে তিনি চেয়ারম্যান সহ ইউএনও মহোদয়কে অবগত করছেন। তিনি সরেজমিনে পরিদর্শন করবেন বলে জানান।

সড়কটির বিষয়ে বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আলম কোম্পানী জানান, বাইশারী থেকে উপজেলা সদরে পৌছতে রামু উপজেলার ৭ কিলোমিটার সড়ক ব্যবহার করতে হয়। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় গাড়ী চলাচলতো দূরের কথা! পায়ে হাটাও মুশকিল হয়ে পড়েছে।

সড়কের বিষয় নিয়ে গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছৈয়দ মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন এই সড়কটি গত এক বছর আগে টেন্ডার হয়েছে। সড়কের কিছু অংশ গত এক বছর আগে কার্পেটিং দ্বারা উন্নয়ন করা হয়েছে। বাকীটা হয়ে যাবে। সড়কের খান খন্দক গুলো পরিষদের পক্ষ থেকে মেরামত করে চলাচলের উপযোগী করা হবে।

তবে স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ টেন্ডারের বিষয়টি গত এক বছর আগে থেকে শুনে আসলে ও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তাই জনসাধারণ স্থানীয় সাংসদ মহোদয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button