বান্দরবানব্রেকিং

নাইক্ষ্যংছড়িতে স্রোতে ভেসে দুজনের মৃত্যু, নিখোঁজ ১

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি
টানা বর্ষণের ফলে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। সোমবার রাত থেকে ভারী বর্ষণের ফলে উপজেলার বাইশারী, সোনাইছড়ি ও ঘুমধুমের নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বীজ তলা, খামারসহ বসতঘরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া পাহাড়ি ঢলে বাইশারী-ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়ক ও নাইক্ষ্যংছড়ি-গর্জনীয়া-বাইশারী সড়ক এবং উপজেলা সদরের সঙ্গে সোনাইছড়ি ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার বিকালে পাহাড়ি ঢলের পানির স্রোতে ঘুমধুমের বড়ুয়া পাড়ার সুবাস বড়ুয়ার ছেলে অশীষ বড়ুয়া (১৬) ও তুমব্রু খালে আব্দুর রহমান (৬) নামের এক শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে। এছাড়া বড়ুয়া পাড়ার আব্দুর রহিম (১৮) নামের এক কিশোর এখনো নিখোঁজ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের পশ্চিম বাইশারী, গুদাম পাড়া ও ধৈয়া বাপের মার্মা পাড়া পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে এবং ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার বীজতলা ভেসে গেছে পাহাড়ি ঢলের পানিতে। এছাড়া পূর্ব বাইশারী এলাকায় ছকিনা নামের এক বিধবা নারীর বাড়ী ধ্বসে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। লাগাতার বৃষ্টির ফলে বাইশারী এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

বাইশারী বাজারের ব্যবসায়ী নেজাম উদ্দিন জানান, বাজারের উত্তর অংশে পানি নিষ্কাসনের কালভার্ড বন্ধ করে দেওয়ায় বাজারের প্রধান সড়ক প্লাবিত হয়ে কিছু দোকানের ক্ষতি হয়েছে।

নারিচবুনিয়া এলাকার বাসিন্দা আব্দুস সালাম জানান, সোমবার কৃষি জমিতে ধানের চারা রোপন করা হয়েছে। কিন্তু রাতের অতিরিক্ত বৃষ্টিতে এবং পাহাড় থেকে নেমে আসা পানিতে তলিয়ে গেছে। পুনরায় ধানের চারা রোপন করে ধান ঘরে তোলা সম্ভব হবে না।

আরিফ রাবার বাগানের সুপারভাইজার মো. ইউনুছ জানান, লাগাতার বর্ষণের ফলে বাগানের টেপিং বন্ধ রয়েছে। বর্ষণ অব্যাহত থাকলে পাহাড় ধ্বসে গাছের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বাইশারী সিএনজি সমিতির সাধারণ সম্পাদক হামিদুল হক জানান, লাগাতার বর্ষণের ফলে বাইশারী-গর্জনীয়া-নাইক্ষ্যংছড়ি সড়কের কয়েকটি জায়গায় ভেঙে যাওয়ায় উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

এদিকে ঘুমধুমের তুমব্রু’র কোনারপাড়া এলাকা পাহাড়ি ঢলের পানিতে ডুবে গেছে। ঢলের পানিতে তুমব্রু বাজারের কয়েকটি দোকান, নো ম্যান্স ল্যান্ডের রোহিঙ্গা ক্যাম্প সহ আশপাশের বাড়ীঘর তলিয়ে গেছে। তুমব্রু বাজারের ব্যবসায়ী ফখর উদ্দিন জানান, পাহাড়ি ঢলে তুমব্রু বাজারের অর্ধশত দোকানে কোমর সমান পানি ঢুকে গেছে। মালামাল পানিতে নষ্ট হয়ে পড়েছে। এছাড়া একদিকে লকডাউনে আয় নেই। এদিকে পাহাড়ী ঢলে মালামাল নষ্ট হয়ে ক্ষতি হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।

বাইশারী ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলম কোম্পানী বলেন, টানা বৃষ্টিতে বাইশারী ইউনিয়নের পশ্চিম বাইশারী, গুদাম পাড়া, ধৈয়া বাপের মার্মা পাড়া সহ বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে, তলিয়ে গেছে কয়েকশত বাড়ীঘর। বন্ধ রয়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। এই বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button