বান্দরবানলিড

ধর্মান্তরিত পাহাড়ীকে হত্যার প্রতিবাদে উত্তপ্ত বান্দরবান

বান্দরবানে বিক্ষোভ,মানববন্ধন

বান্দরবান প্রতিনিধি
বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হওয়ায় এক পাহাড়ীকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন-বিক্ষোভ মিছিল করেছে পার্বত্য নাগরিক পরিষদ। শনিবার দুপুরে বান্দরবানে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চের সামনে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের ব্যানারে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। মানববন্ধন কর্মসূচীতে সংগঠনের নেতাকর্মী ছাড়াও বৃষ্টি উপেক্ষা করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার শতাধিক লোকজন অংশ নেয়। একাত্মতা প্রকাশ করে মানবন্ধনে অংশ নেয় ত্রিপুরা পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর অনেকেও। পরে হত্যার প্রতিবাদে একটি বিক্ষোভ মিছিল পুলিশি বাধায় শহরের গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ বান্দরবান জেলা সভাপতি কাজী মুজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন, সহ-সভাপতি আবুল কালাম, ক্যাপ্টেন অব: তারু মিয়া, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রমুখ।

কর্মসূচীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ বান্দরবান জেলা সভাপতি কাজী মুজিবুর রহমান বলেন, আগামী ৩ দিনের মধ্যে হত্যাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে তিন পার্বত্য জেলা অচলের কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে। সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা মুসলিম ধর্মান্তরিত হওয়ায় এক পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের এক নওমুসলিম’কে গুলি করে হত্যা করেছে। এটি পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টির একটি নতুন ষড়যন্ত্র। পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের অভিযানের জোড়ালো দাবী জানাচ্ছি।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রোয়াংছড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়নের তুলাছড়ি আগাপাড়া এলাকায় শুক্রবার’রাতে এশারের নামাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা ধর্মান্তরিত হওয়া পাহাড়ের জনগোষ্ঠীর এক নওমুসলিম’কে। নিহতের মুসলিম নাম ওমর ফারুক (৫৪)। তার জন্মগত পুর্বের নাম পুর্ণচন্দ্র ত্রিপুরা। খবর পেয়ে সেনাবাহিনী এবং পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থলে ছুটে যান। কিন্তু যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দূর্গম পাহাড়ী এলাকা হওয়ায় লাশ উদ্ধার করতে সময় লেগেছে।

গুলিবিদ্ধ লাশটি উদ্ধারের পর ময়না তদন্তের জন্য রোয়াংছড়ি থেকে বান্দরবান সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয়দের দাবী, হত্যাকান্ডের সঙ্গে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সশস্ত্র শাখার ক্যাডাররা জড়িত। ত্রিপুরা থেকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে মুসলিম হওয়ায় তাকে কিছুদিন ধরে নানাভাবে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছিল সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রোয়াংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তৌহিদ কবির জানান, গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ত্রিপুরা থেকে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করায় তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হত্যার ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

এই সংবাদটি দেখুন
Close
Back to top button