ব্রেকিংরাঙামাটিলিড

দুই আঞ্চলিক দলই সমানে সমান!

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রেশ কাটতে না কাটতেই রাঙামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলায় গ্রাম-গঞ্জে, চায়ের দোকান কিংবা বিভিন্ন আড্ডাখানায় শুরু হয়েছে বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের প্রার্থিতা নিয়ে। ৮টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে দেশের সবচে বড় এই উপজেলায় এখন আলোচনা চলছে কে হতে যাচ্ছেন প্রার্থী। চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীর কয়েক জনের নাম শোনা গেলেও বাঘাঘাইছড়ি উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান বড়ঋষি চাকমা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সুর্দশন চাকমা আলোচনার সর্বত্র কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান দীপ্তিমান চাকমা ও আবুল কাইয়ুম এর নাম শোনা যাচ্ছে। বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুমিতা চাকমা ও সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাগরিকা চাকমাও আলোচনায় আছেন।

আঞ্চলিক সংগঠনের এলাকা দখল নিয়েও চলছে হিসাব নিকাশ। উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় আঞ্চলিক সংগঠনের আধিপত্য বিস্তার, এলাকা দখল, দলীয় কোন্দল থাকলেও পাহাড়িদের মধ্যে নির্বাচনের আমেজ তেমনটি দেখা যায়নি। জেএসএস সন্তু কিংবা জেএসএস (এমএন লারমা) যে বেশি এলাকা দখল করতে পারে জয় তাদের দিকেই যাবে বলে মন্তব্য করেন এলাকার সচেতন মহল।

জেএসএস (এম এন লারমা) কেন্দ্রীয় সদস্য ও সাবেক চেয়ারম্যান সুর্দশন চাকমার নাম নিশ্চিত করেছে সিনিয়র নেতারা। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আ.লীগের বর্তমান এমপি দীপংকর তালুকতারকে সমর্থন জানিয়েছিল জেএসএস(এম এন লারমা)। তাতে আঞ্চলিক দল এম এন লারমা ও আ.লীগের সাথে সমঝোতারও ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়াও ইউপিডিএফ গণতন্ত্র জেএসএস (এমএন লারমা)কে সমর্থন দিতে পারে। যাতে করে সুদর্শন চাকমার জয়ের আশা করেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

এছাড়াও বর্তমান চেয়ারম্যান বড়ঋষি চাকমা পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (সন্তু) লারমা দল হতে নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী হবে বলে সূত্রে জানা যায়। কিন্তু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেএসএসের সংসদীয় প্রার্থী ঊষাতন তালুকদার পরাজয় মেনে নিতে পারিনি এখনও জেএসএস। পরাজয়ের রেশ কাটতে না কাটতেই বসু হত্যা মামলায় আসামি করায় আরেকটি নতুন সমস্যায় পড়েছে জেএসএস। এতে জেএসএস’র উপজেলার শক্ত অবস্থান নড়বড়ে হয়ে যেতে পারে। অন্য দিকে ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপ জেএসএসকে সমর্থন দিতে পারে বলে মনে করেন সচেতন মহল।

ভাইস চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কাইয়ুম ২০১৪ সালে দীপ্তিমান চাকমার কাছে সামান্য ভোটে হেরে যান। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২০০৯ সালে সাগরিকা চাকমার বাছে পরাজয় হয় সুমিতা চাকমার। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে প্রার্থীরা মাঠে সরগরম থাকলেও প্রকাশ্যে মিডিয়ার সাথে কথা বলতে কেউ রাজি হয়নি।

MicroWeb Technology Ltd

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Back to top button