নীড় পাতা / পাহাড়ের রাজনীতি / পাহাড়ে নির্বাচনের হাওয়া / দীপেন দেওয়ানের প্রতি ‘অবিচার ও অবমূল্যায়ন’ হয়েছে
parbatyachattagram

বললেন সাইফুল ইসলাম ভূট্টো

দীপেন দেওয়ানের প্রতি ‘অবিচার ও অবমূল্যায়ন’ হয়েছে

দীপেন দেওয়ানের সাথে বিএনপি ‘অবিচার ও অবমূল্যায়ন’ করেছে মন্তব্য করে রাঙামাটি পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জেলা বিএনপির সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম ভূট্টো বলেছেন, যে লোকটি দু:সময়ে বিএনপিকে ছেড়ে গেছে তার কাছেই পরাজিত হলো দু:সময়ে সরকারি চাকুরি ছেড়ে এসে দলকে গোছানো একজন ব্যক্তি,এটা দুঃখজনক।’

রাঙামাটি বিএনপির মনোনয়নে মনিস্বপন দেওয়ানকে ধানের শীষের প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত ঘোষণার পর শনিবার পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডট কমকে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় এই মন্তব্য করেন সাইফুল ইসলাম ভূট্টো,দীপেন দেওয়ানকে ২০০৬ সালে বিএনপিতে যোগ দেয়ানোর সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন যিনি। সেইসময় দীপেনের ঘনিষ্ঠ সহচর ভূট্টোর সাথে দীপেনের দুরত্ব তৈরি হয় ২০১১ সালে পৌরসভা নির্বাচনের আগমুহুর্তে। সেই থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত তুমুল বৈরি সম্পর্কে থাকা এই দুই নেতা ২০১৮ সালে ফের একত্রিত হন। ভূট্টোর সাথে কাপ্তাই উপজেলার চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন,বাঘাইছড়ির সাবেক মেয়র ও বছর দুয়ের আগে দলে যোগ দেয়া আলমগীর কবিরও দীপেন অনুসারি হয়ে উঠেন।

সাইফুল ইসলাম ভূট্টো আরো বলেন,দীপেন দেওয়ান বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের ভুল সিদ্ধান্তের বলি হলেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে তার সম্পর্কে ভুল বোঝানো হয়েছে,ভুল তথ্য সরবরাহ করা হয়েছে। বিপরীতে মনিস্বপন সম্পর্কে ‘বাড়তি ও বানানো তথ্য’ বলা হয়েছে।’

দীপেন দেওয়ান বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের ভুল সিদ্ধান্তের বলি হলেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে তার সম্পর্কে ভুল বোঝানো হয়েছে,ভুল তথ্য সরবরাহ করা হয়েছে। বিপরীতে মনিস্বপন সম্পর্কে ‘বাড়তি ও বানানো তথ্য’ বলা হয়েছে।’………….ভূট্টো

ভূট্টো বলেছেন, বিএনপির দুঃসময়ে বেগম জিয়া ও তারেক জিয়ার আহ্বানে সরকারি চাকুরি ও লোভনীয় সুযোগ সুবিধা ছেড়ে রাঙামাটি জেলা বিএনপির হাল ধরেছিলেন দীপেন। তিনি এলোমেলো,অগোছালো বিএনপিকে সংগঠিত করেছেন,সুসংঘবন্ধ করেছেন। আজ তার মূল্যায়ন হলো না। বরং যিনি বিএনপির দুঃসময়ে বিএনপিকে ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন,তারই মূল্যায়ন হলো। এটা অবশ্যই ভুল সিদ্ধান্ত,নির্বাচনের পরেই বোঝা যাবে বিষয়টা।’

দীপেন দেওয়ান ও তার অনুসারিরা ধানের শীষের পক্ষেই কাজ করবে এমন আশাবাদের কথা জানিয়ে ভূট্টো বলেন, দীপেন দা শনিবার তার বাসায় আসা নেতাকর্মীদের সাথে খোলামেলা কথা বলেছেন,আবেগ আপ্লুত বক্তব্য রেখেছেন। তিনি বলেছেন, যে প্রার্থী হয়েছে তারা যদি ডাকেন,তবে নিশ্চয়ই তিনি যাবেন।’

দীপেন দেওয়ান বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয় থাকবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি আশাবাদি তিনি থাকবেন এবং তিনিও থাকবেন বলেই মনে হচ্ছে। শনিবারের সভায় তার কথাবার্তাও ইতিবাচক মনে হয়েছে।’

মনিস্বপন দেওয়ান নয়,ধানের শীষের পক্ষেই কাজ করবেন জানিয়ে সাইফুল ইসলাম ভূট্টো বলেন, ব্যক্তি মনিস্বপন দেওয়ান ‘অতিশয় বুদ্ধিমান মানুষ’। তিনি ১২ বছরে বিএনপিতে ছিলেন না,বিএনপির জন্য কিছু করেনওনি। কিন্তু ঠিকই সুবিধাটা নিয়ে নিলেন। আমি ব্যক্তি মনিস্বপন নয়,ধানের শীষ প্রতীকের জন্য অবশ্যই কাজ করব।’

সাইফুল ইসলাম ভূট্টো,একসময় মনিস্বপন দেওয়ানের ঘনিষ্ঠ ছিলেন,পরে তার সাথে দুরত্ব তৈরি হয়,পরে তিনি দীপেনকে রাজনীতিতে আনেন এবং তার ঘনিষ্ঠ হন,পরে দীপেনের সাথেও ভূট্টোর দুরত্ব তৈরি হয়, বছর সাতেক পর আবার এখন দীপেনের সাথে ভূট্টোর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক এখন ! ভূট্টোকে বলা হয় রাঙামাটি বিএনপির রাজনীতিতে ‘খেয়ালি খেলোয়াড়’ !

প্রসঙ্গত,সাইফুল ইসলাম ভূট্টো ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে মনিস্বপন দেওয়ানের বিএনপিতে যোগ দেয়ার সময়ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন ভূট্টো। পরে মনিস্বপন দেওয়ানের সাথেও নানান কারণে দুরত্ব তৈরি হয় তার। মনিস্বপনের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রাম শুরু করেন তারা। এরই এক পর্যায়ে বিএনপি ছেড়ে চলে যান মনিস্বপন দেওয়ান।

এদিকে শনিবার বিকালে দীপেন দেওয়ানের মন্ত্রীপাড়ার বাসভবনে তার অনুসারিদের নিয়ে একটি সভা করেন দীপেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাইফুল ইসলাম ভূট্টো,দিলদার হোসেন,আলমগীর কবির,রফিকউদ্দিসহ তার অনসুারিরা। ওই সভায় দীপেন আবেগঘন বক্তৃতা দেন। এসময় তিনি বিএনপিতে তার যোগদানের প্রেক্ষিত ও অবদানের স্মৃতিচারণ করেন এবং তার সাথে থাকা নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

এডিসি বাংলো এখন বখাটেদের আখড়া!

রাঙামাটি শহরের তবলছড়ি পর্যটন রোডে এডিসি হিল বাংলো এখন মাদকসেবী আর বখাটেদের নিরাপদ আশ্রয়স্থলে পরিণত …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

3 × five =