নীড় পাতা / পাহাড়ের সংবাদ / বান্দরবান / দায়িত্ব বুঝিয়ে না দেয়ায় মামলা, আদালতের নোটিশ
parbatyachattagram

দায়িত্ব বুঝিয়ে না দেয়ায় মামলা, আদালতের নোটিশ

বান্দরবানে প্যানেল চেয়ারম্যানকে আলীকদম ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব না দেয়ায় জেলা প্রশাসক, ইউএনও, ইউনিয়ন পরিষদের পদত্যাগকারী চেয়ারম্যানসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছে যুগ্ম জেলা জজ আদালত। বুধবার দুপুরে বান্দরবান যুগ্ম জেলা জজ নিশাত সুলতানা আদালত এ আদেশ দেন।

দালত ও পরিষদ সূত্র জানায়, আলীকদম সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হওয়ায় ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। আলীকদম ইউএনও পদত্যাগপত্রটি গ্রহণ করেন। কিন্তু পদত্যাগের সময় প্যানেল চেয়ারম্যান-১ আবদুল মতিনকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব বুঝিয়ে না দিয়ে নিয়ম বহির্ভূতভাবে গত রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারী) ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মুবিনকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব হস্তান্তর করেন। প্যানেল চেয়ারম্যান ১,২ এবং ৩ জনকে বাদ দিয়ে আইন বহির্ভূতভাবে এটি করা হয়েছে। এ ঘটনায় প্যানেল চেয়ারম্যান-১ আবদুল মতিন বাদী হয়ে চার জনের বিরুদ্ধে বান্দরবান যুগ্ম জেলা জজ আদালতে একটি মামলা করেন। আসামিরা হলেন- আলীকদম সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী, ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মুবিন, আলীকদম ইউএনও এবং জেলা প্রশাসক। যার মামলা নং-৩/১৯। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে নোটিশ প্রাপ্তির আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে কারণ দর্শানোর আদেশ দেন।

মামলার বাদী আবদুল মতিন বলেন, আমি তিনবারের নির্বাচিত ইউপি সদস্য। ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত প্যানেল চেয়ারম্যান-১। আমি ছাড়াও আরো দুজন প্যানেল চেয়ারম্যান রয়েছেন। কিন্তু পদত্যাগকারী চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী প্যানেল চেয়ারম্যানের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর না করে নিয়ম বহির্ভূতভাবে তারই আশির্বাদপুষ্ট ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মুবিনের কাছে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব হস্থান্তর করেন। এটি সম্পূর্ণ ইউনিয়ন পরিষদ আইন বহিভর্ূূত। আমার জন্যও অসম্মানজনক। প্যানেল চেয়ারম্যান হিসাবে নিয়ম তান্ত্রিকভাবে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব বুঝে পেতে আদালতে মামলা করেছি।

আলীকদম নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো: নাজিমুল হায়দার বলেন, নিয়ম অনুযায়ী চেয়ারম্যান কোনো কারণে পদত্যাগ করলে প্যানেল চেয়ারম্যান ১,২ এবং ৩ জনের যে কোনো একজনকে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে হবে। প্যানেলের বাইরে কাউক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু আলীকদম ইউনিয়ন পরিষদে আইন বহির্ভূতভাবে সেটিই করা হয়েছে। তবে দায়িত্ব হস্তান্তরের সঙ্গে ইউএনও এবং জেলা প্রশাসকের কোনো সম্পর্ক নেই। চেয়ারম্যান আরেকজন প্যানেল চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন। ইউএনও শুধুমাত্র পদত্যাগত্র গ্রহণ করেন। তারপরও দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসাবে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে পদত্যাগকারী আলীকদম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, উপজেলা নির্বাচনে আমি আওয়ামীলীগের মনোনীত একজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। সঙ্গত কারণেই আমি চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেছি। পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছে ইউএনও। আগের প্যানেল চেয়ারম্যানদের বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যরা অনাস্থা দিয়ে নতুনভাবে প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছে। নতুন প্যানেল চেয়ারম্যানের কাছেই আমি দায়িত্ব হস্তান্তর করেছি। এখানে আমার কোনো স্বার্থ নেই। আইন অমান্য হলে দাবিদার ব্যক্তিকেই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হোক আমার কোনো সমস্যা নেই।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লামায় রাবার প্লান্টেশনের ৪১৭টি রাবার গাছ কেটে দিল সন্ত্রাসীরা

চাঁদা না পেয়ে সন্ত্রাসীরা ফের বান্দরবানের লামা উপজেলার একটি রাবার প্লান্টেশনে তান্ডব চালিয়েছে বলে অভিযোগ …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + twelve =